Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১৬ আগস্ট ২০২০, ০১ ভাদ্র ১৪২৭, ২৫ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

আখাউড়া দিয়ে ত্রিপুরায় গেল ভারতীয় পণ্য

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ও আখাউড়া উপজেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ২৪ জুলাই, ২০২০, ১২:০১ এএম

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে ট্রানজিট পণ্যের প্রথম চালান গেল ভারতের ত্রিপুরায়। গতকাল সকাল ৯টার দিকে রড ও ডাল নিয়ে চারটি কার্গো কন্টেইনার স্থলবন্দর দিয়ে ত্রিপুরায় প্রবেশ করেছে।
এ সময় নোম্যান্সল্যান্ডে (শূন্যরেখা) ভারতীয় পণ্যের কাগজপত্র আখাউড়া কাস্টমস কর্তৃপক্ষের সুপারিন্টেনডেন্ট মোহাম্মদ আলীর কাছ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করেন আগরতলা স্থলবন্দর কাস্টমস সুপারিন্টেনডেন্ট জয়দ্বীপ মুখার্জি ও আগরতলা ল্যান্ডপোর্ট অথরিটি জয়ন্তী চৌধুরী। পরে আগরতলা স্থলবন্দরে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব ভারতীয় পণ্যের চালান আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করেন।
সূত্র জানায়, ভারতের কলকাতা থেকে চট্টগ্রাম নৌবন্দর ও বাংলাদেশের মহাসড়ক ব্যবহার করে প্রথমবারের মতো পরীক্ষাম‚লক ট্রানজিট প্রক্রিয়ায় এ পণ্য গেল ত্রিপুরা ও আসাম রাজ্যে।
বাংলাদেশের ম্যাংগু লাইন নামের একটি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ভারতের ডার্সেল লজিস্টিক লিমিটেডের পাঠানো পণ্যগুলো পরিবহন করছে কাস্টমস ক্লিয়ারিং অ্যান্ড ফরওয়ার্ডিং এজেন্ট আদনান ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল। ২০১৮ সালের ২৫ অক্টোবর বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সম্পাদিত চুক্তির আওতায় বাংলাদেশের বন্দর ব্যবহার করে নিজ দেশে পণ্য পরিবহন করছে ভারত।
প্রথম চালানে ৫৩.২৫ মেট্রিকটন রড আর ৪৯.৮৩ মেট্রিকটন ডাল নিয়ে ১৪ জুলাই কলকাতার নদীবন্দর থেকে চট্টগ্রাম নদীবন্দরের উদ্দেশ্যে রওনা হয় ‘সেজুতি’ জাহাজ। মঙ্গলবার চট্টগ্রাম বন্দরে নোঙ্গর করে। পণ্য খালাসের পর সড়ক পথে রড ও ডালবোঝাই ৪টি ট্রেইলর আখাউড়া স্থলবন্দরে পৌঁছানের পর গতকাল পণ্য খালাস হয়। বাংলাদেশের ভূখন্ড ব্যবহার করে ভারতের পরীক্ষামূলক এই ট্রানজিট চালানের জন্য ফি নির্ধারণ করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারতীয়-পণ্য
আরও পড়ুন