Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪ আশ্বিন ১৪২৭, ০১ সফর ১৪৪২ হিজরী

ঠাকুরগাঁওয়ে সাপের কামড়ে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু

ঠাকুরগাঁও জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৪ জুলাই, ২০২০, ৯:৩২ এএম

হাসপাতালে না এনে , ওঝার কাছে নিয়ে যাওয়ায় ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলায় সাপের কামড়ে রয়েল (১২) নামে এক স্কুল ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলেন, সময়মতো সাপ কামড়ের রোগীকে হাসপাতাল আনা হলে চিকিৎসা সম্ভব, সবাই বাঁচবেন এমন নয় , তবে অনেকেরই প্রাণ রক্ষা পেতে পারে।
বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) ভোর রাতে মারা যায় সে। রয়েল উপজেলার ছিট মাধবপুর গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে। সে স্থানীয় সিডি স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র ছিল।
রয়েলের গ্রামবাসী সুত্রে জানা যায়, গতকাল বুধবার রাতে রয়েল তার নিজ বাড়ির শোবার ঘরে ঘুমিয়েছিল। গভীর রাতে তার হাতে একটি বিষধর সাপ কামড়ে ধরে। তাৎক্ষণিক জেগে রয়েল চিৎকার করে ওঠে এবং কাপড় দিয়ে টেনে সাপটিকে ছুঁড়ে ফেলে। সাথে সাথে তার বাবা-মা ঘরে এসে সাপটিকে দেখতে পায়। কিন্তু সাপটিকে মারলে ছেলের ক্ষতি হবে মনে করে না মেরে সাপটিকে পালিয়ে যেতে দেন।
ঐ রাতেই রয়েলকে স্থানীয় দুজন ওঝার কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। ওঝার ঝাড়-ফুঁকে কোনো কাজ না হলে পরিবারের লোকজন রয়েলকে অবশেষে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।
এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডাঃ ফিরোজ আলম বলেন, হাসপাতালে আসার আগেই ছেলেটি মারা যায়। সাপের কামড়ে আক্রান্ত ব্যক্তিকে সময়মত হাসপাতালে আনা হলে তার চিকিৎসা আছে, সাথে সাথে হাসপাতালে এনে ঠিক চিকিৎসায় সেড়ে ওঠাও সম্ভব কিন্তু এখনো সাধারণ মানুষ সনাতন ঝাড়ফুকেই বিশ্বাস করে থাকেন।
একই গ্রামের বাসিন্দা উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দীন জানান, সাপের কামড়ে মৃত রয়েলকে বৃহস্পতিবার দুপুর ২ টায় পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন

আল্লামা শাহ আহমদ শফীর সংক্ষিপ্ত জীবন : তিনি ছিলেন বাংলায় ১৩টি এবং উর্দুতে নয়টি বইয়ের রচয়িতা

img_img-1600487542

বাংলাদেশের ইসলামি শীর্ষ ব্যক্তিত্বদের অন্যতম ছিলেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী; যিনি হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ও আমির ছিলেন।  তিনি ছিলেন বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ও আল জামেয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মইনুল ইসলাম মাদ্রাসারও (হাটহাজারী মাদ্রাসা নামে পরিচিত) মহাপরিচালক।  তিনি ছিলেন বাংলায় ১৩টি এবং উদুর্তে নয়টি বইয়ের রচয়িতা । তিনি কয়েকটি ভাষায় কথা বলতে জানতেন। তার লেখা গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে; বাংলা ভাষায়- হক ও বাতিলের চিরন্তন দ্বন্দ্ব, ইসলামী অর্থ ব্যবস্থা, ইসলাম ও রাজনীতি, সত্যের দিকে করুন আহ্বান, সুন্নাত ও বিদ-আতের সঠিক পরিচয় এবং উর্দু ভাষায়- ফয়জুল জারি (বুখারির ব্যাখ্যা), আল-বায়ানুল ফাসিল বাইয়ানুল হক ওয়াল বাতিল, ইসলাম ও ছিয়াছাত এবং ইজহারে হাকিকাত প্রভৃতি। শাহ আহমদ শফীর জন্ম চট্টগ্রামের

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ