Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২১, ১৩ মাঘ ১৪২৭, ১৩ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

রাজশাহী সিটি হাটে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ঝুঁকিতে পড়ছেন হাজার হাজার ক্রেতা ও বিক্রেতারা

রাজশাহী ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৪ জুলাই, ২০২০, ৪:৫৬ পিএম

রাজশাহী অঞ্চলের সর্ববৃহৎ কোরবানির এই পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি না মানার কারণে ঝুঁকিতে পড়ছেন হাটে আগত হাজার হাজার ক্রেতা ও বিক্রেতারা। করোনা ভাইরাসের কারণে পশুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি মানা ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার নির্দেশনা থাকলেও রাজশাহী সিটি হাটে মানা হচ্ছে না কোনো স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব। তার ওপর হাঁটু পর্যন্ত কাদা পানি। এরই মাঝে চলছে বেচাকেনা। তবে এ বিষয়ে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি হাট ইজারাদারকে। অবশ্য ক্রেতা কম হওয়ায় পশুর দামও বেশ কম রয়েছে।

সরেজমিনে রাজশাহীর সিটিহাটে গিয়ে দেখাযায়, হাটজুড়ে কাঁদাপানিতে সয়লাভ। কোথাও কোথাও হাঁটু পর্যন্ত দেবে যাচ্ছে পা। এরই মাঝে গরু মহিষ আর মানুষে গাদাগাদি করে চলছে কেনাবেচা। হাটে কেউই মাস্ক পড়ছেন না। ক্রেতা বিক্রেতা কারো মুখেই মাস্ক নেই। মাস্ক না পড়ার বিষয়ে জানতে চাইলে অনেক বিক্রেতাই বলেন, গরুর হাটে গরমের মধ্যে মাস্ক পড়ে থাকা যায় না। মুখ ঘেমে যায়। কথাও বলতে কষ্ট হয়। তাই তারা মাস্ক পড়ছেন না। এবিষয়ে ক্রেতারাও একই ধরনের কথা বলছেন। সিটি হাট ইজারাদার বলেন, আমরা সবাইকে মাস্ক পরার কথা বলি কিন্তু কেউ শুনে না।

তবে করোনা ভাইরাসের কারণে ভয়ে মানুষ হাটে কম আসছে। তাই পশুর দাম কম। গতবছর যে গরু ১ লাখ ২০ হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছে এবার তার সর্বোচ্চ মূল্য ৯০ হাজার টাকা বলছে। এতে গবাদিপশুর খামারিরা লোকসান গুনবেন। অনেকেই হতাশ হয়ে খামার বন্ধ করে দেওয়ার আশঙ্কায় রয়েছেন। কারণ, গবাদিপশুর সব ধরনের খাবারের দাম চড়া। বিক্রি করতে গিয়ে দাম না পেলে ক্ষুদ্র খামারিরা টিকতে পারবে না।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ