Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ০১ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

ফ্রান্সে আট মাসে বন্ধ করা হয়েছে ২০টি মসজিদ

প্রকাশের সময় : ৩ আগস্ট, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইসলামের নামে উগ্রবাদে প্রশ্রয় দেয়ার অভিযোগ
ইনকিলাব ডেস্ক : ফরাসি কর্তৃপক্ষ গত বছরের ডিসেম্বর থেকে এখন পর্যন্ত সেখানকার অন্তত ২০টি মসজিদ বন্ধ করেছে। গত সোমবার দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বার্নার্ড ক্যাজেনোভ জানিয়েছেন, ইসলামের নামে উগ্রবাদে প্রশ্রয় দেয়ার অভিযোগে ওইসব মসজিদ বন্ধ করা দেয়া হয়েছে। তিনি বলেছেন, প্রেয়ার হল কিংবা মসজিদ যা-ই হোক না কেন, এখানে বিদ্বেষ ছড়ানোর কোনও স্থান নেই। এছাড়া, প্রজাতান্ত্রিক নীতি, বিশেষত নারী-পুরুষের সমতায় যাদের বিশ্বাস নেই, তাদের কোন স্থান নেই ফ্রান্সে। তিনি আরও বলেন, এ কারণে গত কয়েক মাসে রাষ্ট্রীয় জরুরি অবস্থার মধ্যে আমি এসব মসজিদ বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এ পর্যন্ত ২০টির মতো মসজিদ বন্ধ করা হয়েছে এবং আরও কিছু বন্ধ করা হবে। ফ্রান্সের মুসলিম কাউন্সিলের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে ক্যাজেনোভ এসব কথা বলেন। খবরে বলা হয়, ফ্রান্সে প্রায় আড়াই হাজার মসজিদ ও প্রেয়ার হল রয়েছে। এর মধ্যে ১২০টিতে উগ্রবাদী সালাফি মতবাদে পরিচালিত।
গত মাসের মাঝামাঝি সময়ে তিউনিসিয়ান বংশোদ্ভূত একজন মুসলিম নিস শহরে বাস্তিল দিবসের উৎসবে ট্রাক চাপা দিয়ে ৮৪ জনকে হত্যা করে। এরপর নর্মান্ডিতে এক যাজককে সন্ত্রাসীরা হত্যা করে। এই পরিপ্রেক্ষিতেই ক্যাজেনোভ ইসলামি ধর্মীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন। ক্যাজেনোভ আরও জানিয়েছেন, উগ্রবাদে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০১২ সাল থেকে অন্তত ৮০ জনকে ফ্রান্স থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। আরও বেশ কয়েকজনকে বহিষ্কার করা হবে। ফ্রান্সের মসজিদগুলোতে বিদেশ থেকে আসা অর্থ সহায়তা উগ্রবাদী চিন্তাধারা উৎসাহিত করতে ব্যবহৃত হচ্ছে বলে সম্প্রতি অভিযোগ উঠেছে। ক্যাজেনোভ বলেছেন, তিনি মসজিদে অর্থের ব্যবহারে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে চান। ফ্রান্সের মুসলিম কাউন্সিলের প্রধান আনুয়ার কিবেখ বলেছেন, মসজিদগুলোতে অর্থ বরাদ্দ দিতে এক মাসের মধ্যে নতুন একটি ফাউন্ডেশন গঠন করা হবে। গত সপ্তাহে ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী ম্যানুয়েল ভালস বলেছেন, বিদেশি অর্থে ফ্রান্সে মসজিদ নির্মাণ বন্ধের ওপর সাময়িক নিষেধাজ্ঞার কথা বিবেচনা করছেন তিনি। ফরাসি কর্তৃপক্ষ সেক্যুলার নীতির প্রতি সম্মান রেখে মসজিদের আর্থিক স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার জন্য ইসলামি ফাউন্ডেশনের সঙ্গে একযোগে কাজ করছে বলে ক্যাজেনোভ নিশ্চিত করেছেন। উল্লেখ্য, এর আগে গত বছরের নভেম্বরে প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলায় ১৩০ জন নিহত হন। গত কয়েক বছরে পুরো ইউরোপ জুড়ে এরকম বেশ কয়েকটি বড় সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয়েছে। এএফপি, বিবিসি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ