Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ৭ কার্তিক ১৪২৭, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ঈদের খুশিকেই ‘কোরবানি’ করেন যারা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২ আগস্ট, ২০২০, ১০:৫৩ এএম

ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানেই খুশি। সবাই যখন ঈদ আনন্দে মত্ত থাকে তখন সেই আনন্দঘন মুহূর্তগুলোকে ‘কোরবানি’ করে জনগণের সেবায় কাজ করে যাচ্ছেন কিছুসংখ্যক শ্রেণি পেশার মানুষ। উৎসব আনন্দে শামিল হতে পারেন না তারা। পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধব সবাই যখন ঈদের খুশি ভাগাভাগিতে ব্যস্ত, পেশাগত কারণে দায়িত্বের বোঝা মাথায় নিয়ে কিছু মানুষ থাকে উৎসব-আনন্দের ঊর্ধ্বে। কর্মস্থলে থেকে তাদের দায়িত্ব পালন করতে হয় ঈদের দিনও। আর তারা হলেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, নিরাপত্তা কর্মী, চিকিৎসক, নার্স, মসজিদের ইমাম মোয়াজ্জেম ও রেডিও-টিভিসহ গণমাধ্যম কর্মীর মত কিছু শ্রেণীপেশার মানুষ।

ঈদের দিনটিকে সামনে রেখে কতজনের কত পরিকল্পনা থাকে। নতুন পোশাক পরা, খাওয়া-দাওয়া আর বেড়াতে যাওয়ার ভাবনা তো আছেই। আছে উপহার নেয়া-দেয়ার বাসনাও। এসব নিয়ে পরিবারের মাসব্যাপী চলে ঈদ উদযাপনের পরিকল্পনা। কিন্তু এই ঈদের আন্দঘন মুহূর্তগুলোও অধিকাংশ সময় ত্যাগ করেই চলতে হচ্ছে তাদেরকে। ইচ্ছে করলেই তারা মনমতো সময় কাটানোর প্রোগ্রাম সাজাতে পারে না। পরিবার, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধবদের সাথে হইচই করে সময় কাটানোর মতো সুযোগ এদের খুব কমই হয় শুধুমাত্র জনগণের সেবা সংক্রান্ত পেশাগত দায়িত্ব পালন করার জন্য।

আইনশৃঙ্খলা রাক্ষাকারী বাহিনী: আইনশৃঙ্খলা রাক্ষাকারী বাহিনীর ঈদ মানেই বিশাল এক দায়িত্ব। ছুটি খুব কম সদস্যেরই মেলে। মিললেও তা দুই-এক দিনের বেশি নয়। তাতে অবকাশের তেমন কোনো সুযোগ নেই। মজার ব্যাপার হলো সবাই এক কাতারে যখন ঈদের নামাজ আদায় করে তখনো তাদের দায়িত্ব পালন করতে হয়। সবচেয়ে কষ্টকর মনে হয় যখন কোনো ট্রাফিক পুলিশ ঈদের দিনেও বৃষ্টি, রোদ উপেক্ষা করে তার দায়িত্ব পালন করে। অথচ দেখলে মনেই হবে না তাদের কোনো কষ্ট আছে। রাস্তা বাস, ট্রাক, রিকশাই যেন তাদের পরিবারের সদস্য।

নিরাপত্তাকর্মী: ঈদের ছুটিতে আপনার ঘরের তালা পাহারা দেয়ার দায়িত্ব পালন করতে হয় পাহারাদার, দারোয়ান, নিরাপত্তাকর্মীর। সারা বছর হেলায় ফেলায় কাটালেও ঈদ এলে তাদের দায়িত্ব অনেক বেড়ে যায়। ঈদের সময় সবার ছুটি জুটলেও তাদের বেলায় খুব কম সময়ই ছুটি মঞ্জুর হয়। এ কারণে অফিস আদালত, ব্যাংকের নিরাপত্তাকর্মীদের সেই অর্থে কোনো ছুটি নেই।

চিকিৎসক নার্স: মানবতার সেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক ও নার্সদের ঈদ আনন্দ বলে কিছু নেই। হাসপাতালগুলোর দিকে তাকালেই খুব সহজেই বোঝা যায়। এ সময় রোগীর সংখ্যা কিছু কম থাকলেও মুমূর্ষু রোগীদের হাসপাতাল ছেড়ে যাওয়ার কোনো উপায় নেই। তাই ডাক্তার, নার্স ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের ঈদের কোনো ছুটি মিলে না। এ ছাড়া রোগ বালাই তো আর ঈদের ছুটিতে বিরত থাকে না। কাজেই বুঝতেই পারছেন ডাক্তারদের ঈদ চিকিৎসাকেন্দ্রেই হয়। বিশেষকরে এবার করোনা পরিস্থিতিতে তো তাদের ছুটি পাওয়া আরও কঠিন।

ইমাম, মুয়াজ্জিন ও ঈদগাহের দায়িত্বরত কর্মী: মসজিদের ইমাম বা মুয়াজ্জিনেরা খুব কম সময়ই ঈদের ছুটি পান। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় তাদের পরিবার তাদের থেকে অনেক দূরে থাকে। ঈদে অনেক গুরু দায়িত্ব তাদের ওপর। ঈদের নামাজ পড়ানো, ধর্মীয় অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করা ইত্যাদি। কোনোভাবেই দায়িত্ব পালন না করার সুযোগ নেই। ঈদগাহের দায়িত্বে যারা থাকেন তাদের তো ঈদের আগে থেকেই কাজের মধ্যে থাকতে হয়। ঝড়-বৃষ্টি- রোদের কথা মাথায় রেখে মুসল্লিদের জন্য প্যান্ডেল নির্মাণ করা, নির্বিঘ্নে নামাজ পড়ার সুব্যবস্থা করার গুরুদায়িত্ব থেকে ছুটি মেলার কোনো সুযোগ নেই।

গণমাধ্যমকর্মী: রেডিও, টেলিভিশন, পত্রিকা বা বিভিন্ন গণমাধ্যমে যারা কাজ করে তাদের অনেকের ঈদের ছুটি পাওয়া খুব সৌভাগ্যের বিষয়। এবার চার দিন পত্রিকা অফিস ছুটি রাখা হয়েছে। কিন্তু অন্যান্য মিডিয়ার সাপ্তাহিক ছুটি ছাড়া কোনো বিরতি নেই। অবশ্য মিডিয়া হাউজগুলোকে ঈদ উৎসব নিয়ে অনেক নিউজ কাভার করতে হয় অথবা প্রোগ্রাম তৈরি করতে হয় এটাও হয়তো ঈদ আনন্দেরই একটা অংশ। কিন্তু পরিবারের সাথে সময় কাটানো, বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়স্বজনের বাসায় ঘুরে বেড়ানো এমন সৌভাগ্য খুব কম জনেরই হয়।

এছাড়াও, বিদ্যুৎ, পরিবহন, শ্রমিক ও সরকারি বিভিন্ন অফিসে জরুরি বিভাগে কর্মরত কিছু কর্মকর্তা জনকল্যাণে বিলিয়ে দেন তাদের ঈদ আনন্দ।



 

Show all comments
  • আজিজুর রহমান ২ আগস্ট, ২০২০, ৩:১৪ পিএম says : 0
    গতানুগতিক নিউজ এর বাইরে একটা ভালো নিউজ রিপোর্টার কে ধন্যবাদ
    Total Reply(0) Reply
  • নজরুল ইসলাম ২ আগস্ট, ২০২০, ৩:১৩ পিএম says : 3
    দেশ ও জাতির জন্য এই মানুষগুলোর অবদানের কথা কখনোই স্বীকার করা হয় না
    Total Reply(0) Reply
  • মাহমুদ ২ আগস্ট, ২০২০, ১১:৪৩ এএম says : 0
    এরা কাজও করে বেশি গালিও শোনে বেশি
    Total Reply(0) Reply
  • মিজানুর রহমান ২ আগস্ট, ২০২০, ২:৪৫ পিএম says : 1
    সকলের প্রতি রইল সশ্রদ্ধ সালাম
    Total Reply(0) Reply
  • ফিরোজ ২ আগস্ট, ২০২০, ২:৪৬ পিএম says : 2
    এই পেশাজীবী মানুষদের অধিকাংশ ভালো। কিছু অসৎ মানুষের জন্য তাদের ভালো কাজগুলো মানুষের কাছে নিন্দিত হয়
    Total Reply(0) Reply
  • আশিক ২ আগস্ট, ২০২০, ২:৪৬ পিএম says : 1
    কিন্তু আমরা তাদেরকে যোগ্য সম্মান টুকু দেই না
    Total Reply(0) Reply
  • Ibrahim ২ আগস্ট, ২০২০, ৭:৫৮ পিএম says : 4
    আমরা প্রবাসে যারা আছি তারা ও এরকম
    Total Reply(0) Reply
  • Ibrahim ২ আগস্ট, ২০২০, ৭:৫৯ পিএম says : 1
    আমরা প্রবাসে যারা আছি তারা ঠিক এমনই ঈদের দিনেও কাজ করতে হয় নতুন পোশাক কি জিনিস কি দেখেছিলাম বাংলাদেশের থাকার সময় আসার পর থেকে ঈদের আনন্দ কি জিনিস সেটা জানিনা
    Total Reply(0) Reply
  • Syed Taslim Alam ২ আগস্ট, ২০২০, ১০:১৯ পিএম says : 0
    Thanks.Good News.May Allah give rahmat upon these group of people for their sacrifices
    Total Reply(0) Reply
  • Fahim ২ আগস্ট, ২০২০, ১১:০৭ এএম says : 0
    Khub sundor news
    Total Reply(0) Reply
  • MAHFUZ ২ আগস্ট, ২০২০, ৫:৫০ পিএম says : 0
    স্যালুট তাদের....যারা সব সময়.. সমাজ সেবায় নিয়োজিত থাকে
    Total Reply(0) Reply
  • মাহমুদুল হাসান ২ আগস্ট, ২০২০, ১১:৩৩ পিএম says : 0
    এই বিষয়টি জনগণের সামনে তুলে ধরার জন্য ধন্যবাদ! সরকারের উচিত ঈদের দিনে এই সকল কর্মীদের উপযুক্ত ভাতা দেওয়া!
    Total Reply(0) Reply
  • Syed ৩ আগস্ট, ২০২০, ১০:৫৪ এএম says : 1
    Police ar kichu songhak sangbadik sara sobaike niye..... we can be proud, because it's their pride....
    Total Reply(0) Reply
  • Mehedi Hridoy ৩ আগস্ট, ২০২০, ১১:১৭ এএম says : 0
    আমার মতে বিভিন্ন সুপার শপে যারা কাজ করে তাদের নাম টাও এখানে উল্লেখ করা দরকার ছিল। কারণ তারাও নিজের আনন্দ এবং পরিবারের সাথে এই মুহূর্তটা উদযাপন করতে পারে না।
    Total Reply(0) Reply
  • Monir Uddin Ahmed ৩ আগস্ট, ২০২০, ১১:৪০ এএম says : 1
    আমি একজন বিদ্যুৎ প্রকৌশলী। সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ সরবরাহের লক্ষ্যে ঈদের আগের দিন এবং ঈদের দিন ও অফিস করেছি, আমার মতো অনেক প্রকৌশলী এমন অফিস করেছি। যদি ও আমাদের কথা খুব কম বলা হয় তবুও আমি গর্ববোধ করি দেশের মানুষের সেবা করতে পেরে।
    Total Reply(0) Reply
  • নূরুল্লাহ ৩ আগস্ট, ২০২০, ৯:১০ পিএম says : 0
    কওমি মাদরাসার ছাত্র শিক্ষকগণ। তারা কুরবানি দাতা ও দরিদ্র ছাত্রদের জন্য এ দিনটিতে নজিরবিহীন কুরবানির সাক্ষর রাখেন।
    Total Reply(0) Reply
  • HafezHamid ৪ আগস্ট, ২০২০, ৫:৪৬ পিএম says : 0
    এই খবরটি দেখে অনেক ভালো লাগছে যে পৃথিবীতে এমন কিছু মানুষ আছে যারা কিছু মানুষের কষ্ট বুঝে, আলহামদুলিল্লাহ।
    Total Reply(0) Reply
  • মিজানুর ৮ আগস্ট, ২০২০, ৮:২০ পিএম says : 0
    এই আলোচনার মাঝে রয়েছে গভির চিন্তার প্রতিফলন। ধন্যবাদ জানাই লেখক কে। মিজানুর
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: কোরবানি

৩১ জুলাই, ২০২০
৩০ জুলাই, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ