Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭, ১০ সফর ১৪৪২ হিজরী

করোনার মধ্যেও জুলাইয়ে রেকর্ড রেমিট্যান্স, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভও সর্বোচ্চ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩ আগস্ট, ২০২০, ৬:৪১ পিএম | আপডেট : ৭:৫২ পিএম, ৩ আগস্ট, ২০২০

একদিকে করোনার প্রাদুর্ভাব অন্যদিকে দেশে বন্যার প্রকোপ। এসব প্রতিকূলতার পরিবেশের মধ্যেও নিয়মিত রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। কঠিন সময়ে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভকে শক্তিশালী করেছে। এক্ষেত্রে দেশ ও পরিবারের প্রতি তাদের ভালোবাসা এবং দায়বদ্ধতার বহি:প্রকাশ ঘটেছে। অর্থনীতির চাকাকে বেগবান রাখতে বড় অবদান রাখছে প্রবাসীদের রেমিট্যান্স। বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসের প্রকোপের মধ্যেও শুধু জুলাই মাসে ২ দশমিক ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। ইতিহাসে একক মাসে এর আগে কখনো এত পরিমাণ রেমিট্যান্স আসেনি। গত জুন মাসের পুরো সময়ে রেমিট্যান্স এসেছিল ১ দশমিক ৮৩৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। প্রবাসী আয়ের এ ঊর্ধ্বমুখী ধারা অব্যাহত থাকার জন্য সরকারের সময়োপযোগী ২ শতাংশ নগদ প্রণোদনাসহ বিভিন্ন পদক্ষেপের গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রয়েছে।পাশাপাশি বাংলাদেশের ইতিহাসে এ যাবতকালের মধ্যে সর্ব্বোচ্চ বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৩৭ দশমিক ২৮৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে। গত ৩০ জুন বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ৩৬ দশমিক ০১৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। তখন পর্যন্ত বাংলাদেশের ইতিহাসে যেটি ছিল সর্বোচ্চ। মাত্র এক মাসের ব্যবধানে সেটি পৌছেছে ৩৭ দশমিক ২৮৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের রেকর্ডে। রিজার্ভের উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধিতে গুরূত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে রেমিট্যান্সের অন্তঃপ্রবাহ।

রেমিট্যান্সে দেশের এ অনন্য রেকর্ডে প্রবাসীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় গত অর্থবছরের শুরু থেকে প্রবাসীদের প্রেরিত আয়ের উপর ২ শতাংশ নগদ প্রণোদনা প্রদান অব্যাহত আছে। যার ফলে গতবছর ১৮ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে। চলতি অর্থবছরে ৩-৫ বিলিয়ন ডলার বাড়তি অর্জনের লক্ষ্য নিয়ে আমরা কাজ করছি। সামনের দিনে রেমিট্যান্স বৈধ পথে আনতে যত কৌশল অবলম্বন করতে হয় সেটা আমরা নেব। প্রবাসীদের রয়েছে দেশের প্রতি অকৃতিম ভালোবাসা আর মমত্ববোধ। তাদের টাকা প্রেরণে যত বাধা রয়েছে সেগুলো দূর করা হবে।

উল্লেখ্য, চিকিৎসার ফলোআপের পরে লন্ডন থেকে আজ সোমবার (৩ আগস্ট) অর্থমন্ত্রী ঢাকায় ফিরে নিয়মিত দাপ্তরিক কাজকর্ম শুরু করেছেন।

 



 

Show all comments
  • নির্ঝর ৩ আগস্ট, ২০২০, ৬:৪৫ পিএম says : 0
    খুব ভালো খবর
    Total Reply(0) Reply
  • আরমান ৩ আগস্ট, ২০২০, ৬:৪৫ পিএম says : 0
    প্রবাসে যাতে প্রবাসীরা ভোগান্তিতে না পারে সে বিষয়ে সরকারের পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত
    Total Reply(0) Reply
  • জুবায়ের ৩ আগস্ট, ২০২০, ৬:৪৬ পিএম says : 0
    আমাদের কূটনৈতিক সম্পর্ক বৃদ্ধির মাধ্যমে আমরা আরো বেশি শ্রমশক্তি রফতানি করতে পারব
    Total Reply(0) Reply
  • সেলিম উদ্দিন ৩ আগস্ট, ২০২০, ৬:৪৬ পিএম says : 0
    পাপুলের মত কিছু লোক না থাকলে এই রেমিটেন্সের পরিমাণ আরও অনেক বেশি বেড়ে যেত
    Total Reply(0) Reply
  • Babul ৩ আগস্ট, ২০২০, ৭:৪৫ পিএম says : 0
    Great achievement..
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Shah Alam Khan ৩ আগস্ট, ২০২০, ১০:২৫ পিএম says : 0
    বাংলাদেশের একটা বড় আয় হচ্ছে প্রবাসীদের পাঠানো ডলার। এই ডলারের পুরটাই লাভ এখানে কোন মূলধন নেই বা কোন খরচ নেই ডলারের পরিবর্তে বাংলাদেশ যা মনে চায় তাই আমদানী করতে পারে। কাজেই আমি মনেকরি বাংলাদেশ সরকারের উচিৎ প্রবাসীদের স্বার্থ রক্ষার জন্যে সকল প্রকার উদ্যোগ গ্রহণ করা। আল্লাহ্‌ সরকারকে সঠিক কাজ করার সামর্থ দিন। আমিন
    Total Reply(0) Reply
  • শামসুল আলম ৪ আগস্ট, ২০২০, ৯:৪০ এএম says : 0
    অর্থমন্ত্রী লোটাস কামালের যোগ্য নেতৃত্ব ও বিচক্ষণ সিদ্ধান্তের কারণে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ক্রমান্বয়ে উন্নতির পথে
    Total Reply(0) Reply
  • আব্দুর রহিম ৪ আগস্ট, ২০২০, ৯:৪২ এএম says : 0
    ইনকিলাব পত্রিকায় এরকম ইতিবাচক আরো রিপোর্ট দেখতে চাই।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বৈদেশিক মুদ্রা


আরও
আরও পড়ুন