Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ১৭ জানুয়ারি ২০২১, ০৩ মাঘ ১৪২৭, ০২ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

করাচিতে জামায়াতের কাশ্মীর-মিছিলে গ্রেনেড হামলা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ আগস্ট, ২০২০, ১১:২১ এএম

কাশ্মীরের জনগণের সঙ্গে সংহতি প্রকাশে জামায়াতে ইসলামী পাকিস্তান করাচিতে মিছিল বের করে। এতে হামলা চালায় সিন্ধুপ্রদেশের রেভোলিউশনারি আর্মির সন্ত্রাসীরা। অন্তত তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। আহত কমপক্ষে ৩০ জন। কয়েক জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

বুধবার জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ এবং ৩৫এ অনুচ্ছেদ তুলে দেওয়ার এক বছর পূর্তি হয়েছে। গত বছর ৫ অগাস্ট ভারতের সংসদে সে দেশের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এই ঘোষণা করেছিলেন। যার জেরে কাশ্মীরের বিশেষ সুবিধার আইন বাতিল হয়ে যায়। একই সঙ্গে লাদাখ এবং জম্মু ও কাশ্মীরকে দুইটি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হয়। পাকিস্তান সরকার এক বছর আগেই ভারতের এই পদক্ষেপের বিরোধিতা করেছিল। বিষয়টিকে আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক মঞ্চে নিয়ে যাওয়ারও চেষ্টা করেছিল।
বুধবার সেই ঘটনার এক বছর উপলক্ষে জামায়াতে ইসলামী বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করে পাকিস্তানের বিভিন্ন প্রদেশে। করাচিতে একটি বিশাল মিছিল এবং সমাবেশের আয়োজন করে জামায়াতে ইসলামী। ঘোষিত সময়ে মিছিল শুরু হওয়ার পরেই গ্রেনেড হামলা হয়। ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় মিছিল। রাস্তা জুড়ে আহত ব্যক্তিদের পড়ে থাকতে দেখা যায়। দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পুলিশ এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা। আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

পাকিস্তান সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত অন্তত ৩০ জন। তাদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

হামলার কিছুক্ষণের মধ্যেই দায় স্বীকার করে বিবৃতি দেয় সিন্ধু রেভোলিউশনারি আর্মি। গত কয়েক মাস ধরে সিন্ধ অঞ্চলে সক্রিয় হয়েছে এই বিচ্ছিন্নতাবাদী দল।

পাক প্রশাসন জানিয়েছে, এখনও পর্যন্ত ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করা যায়নি। তবে বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চলছে। ডয়চে ভেলে



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান


আরও
আরও পড়ুন