Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২১, ১২ মাঘ ১৪২৭, ১২ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ষড়যন্ত্রের ব্যাপারে তারা ছিল উল্লসিত

অপারেশন গিডিওন-৩

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ আগস্ট, ২০২০, ১২:০২ এএম

দু’হাজার উনিশ সালের ১৬ অক্টোবর একটি চুক্তি সই করা হলো। এতে প্রেসিডেন্ট মাদুরোকে ধরা/আটক করা/ক্ষমতা থেকে সরানোর কথা বলা হয়। সেই সঙ্গে বর্তমান সরকারকে হটিয়ে তার জায়গায় হুয়ান গুয়াইদোকে ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট পদে বসানো। এই কাজের জন্য জর্ডান গাউড্রুকে শুরুতে দেয়া হবে দেড় মিলিয়ন বা পনের লাখ ডলার। কাজ শেষে পাবেন বিশ কোটি ডলার। এই ষড়যন্ত্রের ব্যাপারে যারা জানতেন, তারা ছিলেন উল্লসিত। ‘বহু বছর ধরে আমরা ছিলাম একা। আমাদের লড়তে হচ্ছিল নিজেদের অর্থে, রাজনৈতিক ব্যবস্থা থেকে আমরা কোন সমর্থন পাচ্ছিলাম না,’ বলছিলেন ভেনেজুয়েলার ন্যাশনাল গার্ডের’ নির্বাসিত সাবেক ক্যাপ্টেন হাভিয়ের নিয়েতো। তার বিরুদ্ধে একবার ইউগো শ্যাভেজকে হত্যার ষড়যন্ত্রের অভিযোগ উঠে। এজন্যে তাকে জেলও খাটতে হয়। ‘কিন্তু এবার আমি খুবই উত্তেজিত ছিলাম। কারণ এই পরিকল্পনায় জে. জে. রেনডন, হুয়ান গোয়াইদো আর তার টিমের সমর্থন ছিল।’ কিন্তু কয়েকদিনের মধ্যেই বিবাদ শুরু হয়ে গেল। জর্ডান গাউড্রু তার পনের লাখ ডলার পাওনা দাবি করলেন। কমিশন তার আগে দেখতে চাইলো, যারা এই ষড়যন্ত্রে অর্থ জোগাবে, তারা কারা এবং এর প্রমাণ। কিন্তু জর্ডান গাউড্রু কোন প্রমাণ দেখাতে পারলেন না। মায়ামিতে জে. জে. রেনডনের সাগর তীরের এক বাড়িতে একটি বৈঠক শেষ হলো বেশ বাজেভাবে। জে. জে. রেনডন জানান, জর্ডান গাউড্রুর মেজাজ খিঁচড়ে গেল, সে খুব অশ্রদ্ধা দেখাতে শুরু করলো অন্যদের প্রতি। ‘গত বছরের ৮ নভেম্বর আমাদের শেষ বৈঠকটি ছিল বেশ অস্বস্তিকর। তখন আমি বললাম, আমাদের কোন কিছুই আসলে আগাচ্ছে না। আমি চাই তুমি আমার বাড়ি থেকে চলে যাও।’ মি. রেনডন বলছেন, এসব সত্তে¡ও তিনি জর্ডান গাউড্রুকে ৫০ হাজার ডলার দিলেন তার খরচ মেটানোর জন্য। হুয়ান গুয়াইদোর প্রেসিডেনশিয়াল কমিশনের কাছে তখন জর্ডান গাউড্রুর সঙ্গে করা চুক্তিটির আর কোন মূল্য নেই। কিন্তু জর্ডান গাউড্রু তা মনে করে না। তারা তখন কলম্বিয়ায় তিনটি প্রশিক্ষণ শিবির চালাচ্ছে। জর্ডান গাউড্রুর রিক্রুট করা মার্কিন স্পেশাল ফোর্সেসের দু’জন সেনা এ বছরের জানুয়ারিতে কলম্বিয়ায় এসে পৌঁছালো। এদের একজন লুক ডেনম্যান। ইরাক যুদ্ধে অংশ নিয়েছেন। সামরিক বাহিনী ছেড়ে ড্রাইভারের কাজ করার প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন। কিন্তু সামরিক জীবন তিনি ছাড়তে পারলেন না। ডেনম্যানের বোন সারাহ বেøক জানান, সামরিক বাহিনীর দিনগুলো খুব মিস করছিলেন লুক। ‘আমার মনে হয় সে আসলেই সামরিক বাহিনীতে লোকজনের সঙ্গে যে ঘনিষ্ঠ বন্ধন, সেটা খুব মিস করতো। কারণ ওরা একসঙ্গে থাকে, ঘুমায়, নিশ্বাস নেয়, নিজের জীবন দিয়ে একে অন্যকে বিশ্বাস করে। জর্ডান ছিল তার দলের জরুরী চিকিৎসা কর্মী। লুক এদেরকে তার ভাইয়ের মতো করে ভাবতো। খুবই বিশ্বাস করতো।’ ‘আমরা যেটা জানি, জর্ডান একদিন লুককে ফোন দিয়েছিল এবং বুঝিয়েছিল, এটা খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা কাজ তারা করতে যাচ্ছে। এই কাজ করতে পারলে ভেনেজুয়েলার মানুষের জীবন পাল্টে দেয়া সম্ভব হবে। লুক আমার বাবাকে ফোন করে জানিয়েছিল ও একটা চাকরি নিতে যাচ্ছে এবং এটা তার জীবনের সবচেয়ে অর্থপূর্ণ একটি কাজ হতে যাচ্ছে।’ সারাহ বেøকের বিশ্বাস, তার ভাইকে জর্ডান গাউড্রু ভুল বুঝিয়েছিল। লুক ডেনম্যান এখন কারাকাসের জেলখানায় বন্দী। ‘ওরা আমার ভাইকে জানিয়েছিল এটি মার্কিন সরকারের মদতপুষ্ট একটি অভিযান।’ কয়েকটি সূত্র জানিয়েছে, প্রশিক্ষণ শিবিরে ছিল যে ভেনেজুয়েলানরা, তাদেরও বিশ্বাস ছিল যে মার্কিন সরকারের মদতে এই অভিযান চালানো হবে। অপর ভাড়াটে মার্কিন সেনা, আইরান বেরির বিশ্বাসও ছিল তাই। কিন্তু আসলে এর কোন সত্যতা ছিল না। চলতি বছরের মার্চ মাসেও এই অভিযানের জন্য কোন ভালো তহবিল পাওয়া গেল না। সূত্র : বিবিসি।

 

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভেনুজুয়েলা
আরও পড়ুন