Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

আইনি পরামর্শ নিতে ওসি প্রদীপের ফোনালাপ ফাঁস!

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৯ আগস্ট, ২০২০, ১:১৮ পিএম

আইনি পরামর্শ নিতে ওসি প্রদীপের ফোনালাপ ফাঁস!
অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যার আসামি ওসি প্রদীপের আইনি পরামর্শ নেয়ার একটি ভয়েজ রেকর্ড সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। তবে ভয়েজ রেকর্ডটি তদন্ত করা হবে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

গত ৩১শে জুলাই কক্সবাজারের বাহারছড়া ক্যাম্পে পুলিশের গুলিতে নিহত হন অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ। হত্যার ঘটনার পর পরই আইনী জটিলতা এড়াতে এক আইনজীবীর সাথে পরামর্শ করেন ওসি প্রদীপ কুমার দাস। রেকর্ডটির শুরুতেই পরিচয় দিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলার বিষয়ে পরামর্শ করেন প্রদীপ কুমার দাস। ভয়েজ রেকর্ডে কথোপকথনের আংশিক তুলে ধরা হলো-

ওসি প্রদীপ: স্যার একটা মহাবিপদে পড়ছি, আপনার সাহায্য দরকার

পরামর্শদাতা: বলো বলো

ওসি প্রদীপ: এখন আমরা স্যার একটা ১৫৩, ১৮৬ ও ৩০৭ এ মামলা নিছি স্যার

পরামর্শদাতা: ওয়ান ফিফটি থ্রি

ওসি প্রদীপ: স্যার থ্রি ফিফটি থ্রি

পরামর্শদাতা: থ্রি ফিফটি থ্রি সরকারি কর্মচারি আরেকটা হচ্ছে

ওসি প্রদীপ: আরেকটা হচ্ছে ১৮৬ পুলিশের কাজে বাধা

হত্যার ঘটনায় সেনাবাহিনীর সাথে সম্পর্কের কথা জানতে চান আইনজীবী...

ওসি প্রদীপ: এরপরে স্যার জানাইছি, আর্মি থেকে লোকজন আসছে

পরামর্শদাতা: এ কি আর্মির নাকি?

ওসি প্রদীপ: স্যার অবসরপ্রাপ্ত

ঘটনার বিভিন্ন দিক পর্যালোচনা করে মামলার দায়েরের ধারা নিয়ে আলোচনা করেন ওসি প্রদীপ...

ওসি প্রদীপ: ও যে সদর হাসপাতালে মারা গেছে তাদের একটা কেস নিয়ে নিবো স্যার?

পরামর্শদাতা: আমার তো মনে হয় সদর থানার একটা কেস নিলে ভালো হয়

ওসি প্রদীপ: ভালো হবে না স্যার?

পরামর্শদাতা: আমার মনে হয় ভালো হয়। আর্মির লোক তো পরে টানাটানি করে কিনা!

ওসি প্রদীপ: নাহলে তো স্যার ওরা স্যার লাশ নিয়ে গেলে পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারে।

মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় করণীয়ও নির্দেশনা দেন তিনি....

পরামর্শদাতা: তাহলে তোমরা একটা কাজ করো না, ৩০৪ এও একটা মামলা নিয়া নিতে পারো।

ওসি প্রদীপ: ৩০৪ এ আমরা কি লিখবো স্যার?

পরামর্শদাতা: লেখবা যে হাউএভার মারা গেছিলো। এ কারণে মামলা করা হলো।

কথোপকথনের রেকর্ড নিয়ে তদন্তের কথা জানিয়েছে র‌্যাব। সিনহা হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার ওসি প্রদীপ কুমার দাস সহ সাত জনকে রিমান্ডে নিয়ে মামলার তদন্ত করছে র‌্যাব।

কথোপকথনের বিস্তারিত**

** নাগরিক টিভির সৌজন্যে

 

 

 



 

Show all comments
  • habib ৯ আগস্ট, ২০২০, ১:৪৯ পিএম says : 0
    Eder hate bangladesh ki nirapod?
    Total Reply(0) Reply
  • জামশেদ ৯ আগস্ট, ২০২০, ৫:৫৬ পিএম says : 0
    এর পরামর্শদাতাকেও গ্রেফতার করা হোক
    Total Reply(0) Reply
  • মিনার ৯ আগস্ট, ২০২০, ৫:৫৬ পিএম says : 0
    কথা শুনে মনে হয় এটা পরিকল্পিত হত্যা
    Total Reply(0) Reply
  • খালেদ ৯ আগস্ট, ২০২০, ৫:৫৭ পিএম says : 0
    অপকর্মের সাথে জড়িত পুরুষদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেওয়ার সময়
    Total Reply(0) Reply
  • মাহমুদুর রহমান ৯ আগস্ট, ২০২০, ৫:৫৭ পিএম says : 0
    এরকম কিছু পুলিশের কারণে পুলিশের সকল ভালো কাজ আড়ালে চলে যায়
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Shah Alam Khan ৯ আগস্ট, ২০২০, ১১:৪০ পিএম says : 0
    উপরে ওসি প্রদীপ সিনহাকে হত্যা করার পর পর একজন আইনজীবীর (উকিল বাবু) সাথে ফোনে কথা বলে জানতে চেয়েছিলেন কিভাবে মামলা দিলে তিনি (প্রদীপ বাবু) বেচেযাবেন। এরপর উকিল বাবু প্রদীপ বাবুকে আইনের ফাঁক ফোকড় দিয়ে কিভাবে মামলা করলে প্রদীপ বাবু হত্যার অপরাধ থেকে মুক্ত পাবেন তার ঈশারা দিয়েছে। এই উপদেশ দেয়াটাও হত্যার সাঘে একাত্ততা হিসাবে ধরা যাবে। তাহলে উকিল বাবুও হত্যা মামলার একজন আসামী এটাই প্রতিপন্ন হচ্ছে। আমি বহু আগে থেকেই উকিল বাবুদেরকে নিয়ন্ত্রণে আনার জন্যে আইন প্রণয়নের জন্যে সরকারকে ইনকিলাব পত্রিকায় মন্তব্যের মাধ্যমে বলে আসছিলাম। তবে আমি উকিল বাবুরা যে মিথ্যা কথা তাদের মক্কেলদেরকে বলেন সেটা প্রমাণ হিসাবে দেখাতে পারিনি। এই খবরে যে ফোনালাপ প্রচার করা হয়েছে এটাই যথেষ্ট প্রমাণ উকিল বাবুরা যে তাদের মক্কেলদেরকে মিথ্যা কথা বলে অপরাধ থেকে মুক্ত পাবার ব্যাবস্থা করে দিয়ে থাকেন। কাজেই আমার ব্যাক্তিগত অভিমত এখন এই উকিল বাবুকে এই মিথ্যা কথা বলার জন্যে এবং মামলার সত্য ঘটনাকে মিথ্যায় পরিণত করার প্রচেষ্টার জন্যে গ্রেফতার করা উচিত এবং রিমান্ডে নিয়ে এই উকিল বাবু পূর্বে কিভাবে মক্কেলদেরকে মিথ্যার মাধ্যমে খালাস করিয়েছেন সেটা বের করে তাঁকে সাজা দেয়া উচিৎ বলে আমি মনেকরি। আল্লাহ্‌ আমাকে সহ সবাইকে সত্য বুঝা, সত্য জানা ও সত্য পথে চলার ক্ষমতা দান করুন। আমিন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ওসি প্রদীপ


আরও
আরও পড়ুন