Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ২২ জানুয়ারি ২০২১, ০৮ মাঘ ১৪২৭, ০৮ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

এবার নেপালেও রামমন্দির তৈরির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মার

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১০ আগস্ট, ২০২০, ১:০০ পিএম

নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি দেশটির ‘অযোধ্যাপুরী’তে হিন্দু দেবতা রামের জন্ম হয়েছে দাবি করে সেখানে রামমন্দির নির্মাণের নির্দেশ জারি করেছেন। গত শনিবার পৌরসভাটির মেয়রসহ একটি প্রতিনিধি দলের সঙ্গে এই বিষয়ে প্রায় দুই ঘণ্টার বৈঠকে এই নির্দেশ দেন। বৈঠকে তিনি দাবি করেছেন, নেপালের চিতওয়ান এলাকার মাদির পৌর এলাকার অন্তর্ভুক্ত অযোধ্যপুরীতেই রামের জন্ম হয়েছে। নেপালের ইংরেজি সংবাদমাধ্যম হিমালয় টাইমস এখবর জানিয়েছে।
সম্প্রতি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম অবতার রাম নেপালের রাজপুত্র ছিলেন এবং অযোধ্যার অবস্থান নেপালেই ছিল বলে দাবি করেছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি। যদিও তার এই মন্তব্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিল ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি। ভারতের গণমাধ্যমেও তার বক্তব্যকে 'বিভেদ সৃষ্টিকারী' বলে বর্ণনা করা হয়েছে।
প্রতিনিধি দলের এক সদস্য জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন যে আমার কাছে যেসব প্রমাণ আছে সেগুলো নির্দেশ করে নেপালের অযোধ্যাপুরীতেই রামের জন্ম হয়েছে।
ওলি প্রতিনিধি দলকে অযোধ্যাপুরীকে স্থানীয়দের মধ্যে তুলে ধরতে ও ঐতিহাসিক নিদর্শন সংরক্ষণ করার পরামর্শ দিয়েছেন। সুবেদি নামের মাদি পৌরসভার ৯ নং ওয়ার্ডের চেয়ার বলেন, আমরাও বিশ্বাস করি চিতওয়ানের অযোধ্যাপুরী থেকে পারসার থরি এলাকার বাল্মিকি আশ্রমে রামের জন্ম হয়েছে।
ন্যাশনাল এসেম্বলির সদস্য দিল কুমার রাওয়াল জানান, প্রধানমন্ত্রী অযোধ্যাপুরীর আশেপাশের এলাকা সংরক্ষণের নির্দেশ দিয়েছেন। প্রতিনিধি দলকে প্রধানমন্ত্রী আরও প্রমাণ সংগ্রহের জন্য খনন কাজ শুরু করতে বলেছেন।
অযোধ্যাপুরীকে ঐতিহাসিক ও ধর্মীয় স্থান হিসেবে গড়ে তুলতে সরকার ভূমি প্রদান করবে বলে জানিয়েছেন নেপালি প্রধানমন্ত্রী। এছাড়া রাম, লক্ষ্মণ ও সীতার মূর্তি স্থাপনের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।
প্রতিনিধি দলের পক্ষ থেকে নেপালের প্রধানমন্ত্রীকে বলা হয়েছে, তারা মাদি পৌরসভার নাম পরিবর্তন করে অযোধ্যাপুরী রাখার চেষ্টা করবেন। এতে করে স্থানটির ধর্মীয় গুরুত্ব বাড়বে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন