Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ০১ নভেম্বর ২০২০, ১৬ কার্তিক ১৪২৭, ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

লেবানন সরকারের পতন আসন্ন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১০ আগস্ট, ২০২০, ২:৫৯ পিএম

বৈরুত বিস্ফোরণকে কেন্দ্র করে দেশজুড়ে বিক্ষোভের মধ্যে লেবানন সরকারের পতন প্রায় আসন্ন। সরকারের ব্যর্থতার প্রতিবাদে রাজপথ কাঁপিয়ে তুলছে মানুষ। তাদের দাবি সরকারের পদত্যাগ। প্রতিবাদকারী মানুষের সঙ্গে নিরাপত্তারক্ষীদের তীব্র সংঘর্ষ চলছে রাজপথে। জাজিরার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এরই মধ্যে দুই মন্ত্রীসহ ৯ এমপি পদত্যাগ করেছেন। গত মঙ্গলবারের ভয়াবহ বিস্ফোরণের পর সরকারের ওপর বড় ধরনের চাপ তৈরি হয়েছে। এর মধ্যেই একের পর এক মন্ত্রী, এমপি পদত্যাগ করছেন।

এদিকে আরো পদত্যাগের জন্য বিভিন্ন মন্ত্রী আলোচনা শুরু করেন। তাদেরকে থামিয়ে রেখেছেন প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াব। একজন একজন করে পদত্যাগ করার চেয়ে গণহারে মন্ত্রীদের পদত্যাগের বিষয়ে আজ সোমবার মন্ত্রীপরিষদের বৈঠক বসার কথা রয়েছে।
বৈরুত বন্দরে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের বিশাল মজুদে বিস্ফোরণে কমপক্ষে ১৫০ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ৬ হাজারের বেশি মানুষ। হাজার হাজার মানুষ হয়েছেন গৃহহীন। ভয়াবহ এই ট্রাজেডিতে জনরোষ তীব্র হয়ে ওঠে। এমনিতেই কর্তৃপক্ষের দুর্নীতি, অযোগ্যতা ও অমনোযোগিতার কারণে ক্ষুব্ধ জনগণ। তার ওপর ওই বিস্ফোরণ তাদেরকে আরও ক্ষুব্ধ করে তুলেছে। এর প্রেক্ষিতে বেশ কয়েকজন মন্ত্রী সপ্তাহান্তে পদত্যাগের সম্ভাব্যতা নিয়ে আলোচনা করেছেন। এর মধ্যে তথ্যমন্ত্রী মানাল আবদেল সামাদ তো পদত্যাগের ঘোষণাই দিয়ে দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, লেবাননের জনগণকে তাদের প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থতার জন্য আমি ক্ষমা চাই। পরিবর্তন অধরাই রয়ে গেছে। প্রত্যাশার সঙ্গে যখন বাস্তবতা মেলে না, বৈরুত বিস্ফোরণের ভয়াবহতার পর আমি তাই সরকার থেকে আমার পদত্যাগপত্র জমা দিচ্ছি।
ওদিকে পরিবেশমন্ত্রী ডামিয়ানোস কাত্তার প্রধানমন্ত্রী হাসান দিয়াবকে রোববারের মন্ত্রীপরিষদের বৈঠকে বলেছেন, বৈরুত বিস্ফোরণে আমার বাচ্চার বন্ধুরা মারা গেছে। মন্ত্রণালয়ে বসে এই দায় আমি বহন করতে পারছি না। ওদিকে মন্ত্রীপরিষদের সূত্রগুলো আরব নিউজকে বলেছেন, রোববার যেসব মন্ত্রী পদত্যাগ করার আগ্রহ দেখিয়েছেন তাদেরকে ধৈর্য্য ধরার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী দিয়াব। আজ সেখানে বসার কথা মন্ত্রীপরিষদের বৈঠক। সেখানে গণহারে পদত্যাগের বিষয় নিয়ে আলোচনার কথা রয়েছে।
পার্লামেন্টের স্পিকার নাবি বেরি রোববার ঘোষণা করেছেন, যে অপরাধ রাজধানী এবং জনগণকে দুর্দশায় ফেলেছে তা নিয়ে সরকারের সঙ্গে আলোচনার জন্য পার্লামেন্টের একটি অধিবেশন বসবে বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে।
ওদিকে বৈরুত বিস্ফোরণের তথ্য উদঘাটনের জন্য তদন্ত দলকে ৬ দিনের সময় বেঁধে নিয়েছে রাষ্ট্র। কিন্তু স্থানীয় এই তদন্তের ওপর আস্থা নেই লেবাননিদের। তারা আন্তর্জাতিক তদন্ত আহ্বান করেছেন। শনিবার এই দাবিতে কাতায়েব পার্টির তিনজন এমপি পদত্যাগ করেছেন। পদত্যাগ করেছেন প্রগ্রেসিভ সোশ্যালিস্ট পার্টির এমপি মারওয়ান হামাদে। এর ২৪ ঘন্টার মধ্যে ম্যারোনাইট প্যাট্রিআর্চারের প্রধান কার্যালয় থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন এমপি নিমাত ফ্রেম। লেবানিজ ফোর্সেস পার্টির প্রধান সমির জিয়াজিয়া বলেছেন, তারা পদত্যাগে আগ্রহীদের একত্রিত করার চেষ্টা করছেন, যাতে যত দ্রুত সম্ভব পার্লামেন্ট নির্বাচন হয়। এমপি সেথ্রিদা জিয়াজিয়া বলেছেন, লেবানিজ ফোর্সেস দলের ১৫ জন এমপির পদত্যাগপত্র আমাদের পকেটে। যখনই দেখবো নৃশংস এই কর্তৃত্বের বিদায়ের সময় হয়েছে তখনই আমরা তা পেশ করবো।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন