Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭, ১০ সফর ১৪৪২ হিজরী

ফরিদপুরে বাবর ও ফুয়াদকে গ্রেপ্তারের দাবি

ফরিদপুর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১০ আগস্ট, ২০২০, ৩:০২ পিএম

ফরিদপুরের অন্যতম লুটেরা ও ক্ষমতা অপব্যবহারকারী ফুয়াদ , বাবর ও তাদের সঙ্গীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানান ফরিদপুরের তৃণমূল আঃলীগের নেতা কর্মী ও নির্যাতিত পরিবারের সদস্যরা ।
সংসদ সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেনের এপিএস ফুয়াদ ও সংসদ সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেনের ভাই খন্দকার মোহতাশেম হোসেন বাবর ক্ষমতা অপব্যবহার করে টেন্ডারবাজী, জমি দখল ও সাধারন মানুষকে হামলা – মামলা ও নির্যাতনকারীর এই দুই নায়ককে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন ফরিদপুরের সর্ব স্তরের জনগন ।
ফরিদপুরের প্রতিটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান , ঠিকাদার , ব্যবসায়ী ও সাধারন জনগণকে জিম্মী করে হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক হয়েছেন কিন্তু ফকির হয়ে গেছেন আঃ লীগের প্রকৃত নেতা কর্মী ও সাধারন জনগন ।
এদের অত্যাচার থেকে রেহাই পায় নাই কর্মরত আঃ লীগের মাঠ কাঁপানো লড়াকু সৈনিকরা। এই লুটেরাদের রোষানল থেকে রেহাই পায়নি বঙ্গবন্ধুর সাথে আগরতলা মামলার অন্যতম আসামী বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর মো ক্যাপ্টেন বাবুল , সাবেক তুখোড় ছাত্র নেতা অ্যাড বদিউজ্জামান বাবুল , বীর মুক্তিযোদ্ধা খান মাহাবুবুর রহমান , ফরিদপুর জেলা আঃ লীগের সাধারন সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেন , সাবেক আঃ লীগের উপদেষ্টা কমিটির সদস্য বিপুল ঘোষ , শামসুল হক ( ভোলা মাস্টার ) , অমিতাভ বোস , সাবেক তুখোড় ছাত্র নেতা খলিফা কামাল উদ্দিন , ফারুক হোসেন , ৯০ এর গন আন্দোলনের অন্যতম ছাত্র নেতা কাজী মোমিতুল হাসান বিভুল সহ দুই শতাধিক নেতা কর্মীরা ।
ওই সকল নেতা কর্মীদের এই ফুয়াদ – বাবর গং রা সংসদ সদস্যের নির্দেশে হামলা – মামলা ও নির্যাতন চালান বলে জানান ক্ষতিগ্রস্ত নেতা কর্মীদের পরিবারের সদস্যরা ।
ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির ফরিদপুর জেলা শাখার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খান মাহাবুবুর রহমান খান জানান , অতি দ্রুত এই লুটেরাদের মহানায়ক খন্দকার মোহতাশেম হোসেন বাবর ও সংসদ সদস্যের এপিএস ফুয়াদ সহ সকল দুর্নীতিবাজদের গ্রেপ্তারের দাবি জানান ।
এই লুটেরারা ক্ষমতার অপব্যবহার ও নির্যাতনে ফরিদপুরের ত্যাগী আঃলীগ নেতা কর্মীরা নিজ এলাকা ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়েছে ।
বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহাবুবুর রহমান খান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে ফরিদপুরের এই শুদ্ধি অভিযানকে স্বাগত জানান।
৯০ এর গণ আন্দোলনের অন্যতম ছাত্র নেতা ও শহর আঃলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী মোমিতুল হাসান বিভুল জানান, বাবর – ফুয়াদ লুটেরাদের জন্য ফরিদপুরের আঃলীগের প্রকৃত ত্যাগী নির্যাতনের শিকার হয়েছেন এবং নিজেরা হাজার কোটি টাকার মালিক হয়েছেন । এই দুই দুর্নীতিবাজসহ ফরিদপুরের সকল দুর্নীতিবাজদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবি জানান ।
উল্লেখ্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে গত ৭ই জুন থেকে ফরিদপুরে দুর্নীতিবাজ ও টেন্ডারবাজদের গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে এবং এ পর্যন্ত দশের অধিক দুর্নীতিবাজদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন