Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭, ১০ সফর ১৪৪২ হিজরী

অবিলম্বে গণপরিবহনে ৬০ শতাংশ বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহারের দাবি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১১ আগস্ট, ২০২০, ২:১৪ পিএম

করোনাভাইরাসের কারণে সরকার গণপরিবহনে ৬০ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধি করলেও অনেক ক্ষেত্রে বাস মালিকরা ২০০% বেশি ভাড়া নিয়ে থাকে। এমনকি ডাবল সিটে যাত্রী বসিয়ে ভাড়া নেয় ৬০% বেশি। এ নিয়ে প্রায় কথা কাটাকাটি এমনটি মারামারিও হচ্ছে রাজধানীসহ বিভিন্ন রুটে।
এদিকে করোনা সংকটে গণপরিবহনে ৬০ শতাংশ বর্ধিত বাসভাড়া অবিলম্বে প্রত্যাহার করে আগের ভাড়া বহাল রাখার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ যাত্রীকল্যাণ সমিতি।

আজ মঙ্গলবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে সংগঠনের মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী এ দাবি জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, করোনা সংকট রয়ে গেলেও দেশে এখন কোনো গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। যেসব শর্ত অনুসরণ করে বর্ধিত ভাড়া আদায়ের কথা বলা হয়েছিল, তার কোনোটাই মানা হচ্ছে না বাসগুলোতে। সেই পুরনো কায়দায় গাদাগাদি করে যাত্রী বহন করা হচ্ছে। আবার এই করোনাকালে ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার জন্য সরকারের বর্ধিত ৬০ শতাংশ ভাড়ার চেয়েও অধিকাংশ রুটে বেশি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। এতে করোনা সংকটে কর্মহীন ও আয় কমে যাওয়া দেশের সাধারণ মানুষের যাতায়াত দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, সরকার যাত্রী প্রতিনিধি বাদ দিয়ে মালিকদের নিয়ে বৈঠক করে এই সংকটে জনগণের ওপর একচেটিয়াভাবে বাসের ভাড়া ৬০ শতাংশ বাড়িয়ে দেয়। এ ঘোষণার পর পরই দেশব্যাপী চলাচলরত বাস-মিনিবাসের সঙ্গে লেগুনা, হিউম্যান হলার, টেম্পো, অটোরিকশা, প্যাডেলচালিত রিকশা, ইজিবাইক, নসিমন-করিমন, টেক্সিক্যাবসহ সব যানবাহনের ভাড়া প্রায় দ্বিগুণ হয়ে যায়। এতে যাত্রীস্বার্থ চরমভাবে উপেক্ষিত হয়।

বিবৃতিতে অনতিবিলম্বে স্বাস্থ্যবিধির নামে গণপরিবহনের বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহার করে দেশের প্রতিটি রুটে পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানানো হয়।



 

Show all comments
  • হাসান ১১ আগস্ট, ২০২০, ১০:৪৪ পিএম says : 0
    এ দেশে মসজিদ ও গণপরিবহনে করোনা ছড়ায়? রাস্তা-ঘাট, হাট-বাজার, শপিংমল, অলি-গলি সব জায়গায় মানুষের জটলা। বন্ধু-বান্ধবদের আড্ডা। কোথাও করোনা নাই। কোন মানুষই স্বাস্থ্যবিধি মানছেনা। সরকারের মাথাগুলো এগুলো কি চোখে দেখে না? আইন শুধুই গণপরিবহন ও মসজিদের জন্য? এদের মাথায় কি........? আমরা বাংগালীদের স্বভাব কি জানিনা? কোন আইনে আমাদের কাজ হবে না। সুতরাং মসজিদ ও গণপরিবহনের ক্ষেত্রে পুর্বের অবস্থা ফিরিয়ে আনা হোক। এতে করে আমাদের মত গরীবরা রুজি রোজকার করে দিন যাপন করতে পারে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সংবাদ সম্মেলন


আরও
আরও পড়ুন