Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২ আশ্বিন ১৪২৭, ০৯ সফর ১৪৪২ হিজরী

ইলিশ গেল কোথায়?

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১২ আগস্ট, ২০২০, ১২:০০ এএম

ঈদের পর রাজধানীর বাজারে ছিল প্রচুর ইলিশ মাছের আমদানি। দামও মধ্যবৃত্তের নাগালের মধ্যেই ছিল। কিন্তু হঠাৎ করে ইলিশ মাছ যেন উধাও হয়ে গেল। রাজধানীর যাত্রবাড়ী, শনিরআখড়া, ধোলাইপাড়, মতিঝিল, ফকিরাপুল বাজার ঘুরে দেখা যায় হঠাৎ করে বাজারে ইলিশের আমদানির কমে গেছে। দামও আগের চেয়ে বেশি। সাগরে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ছে। অথচ রাজধানীতে ইলিশ বেচাবিক্রি কমে গেল কেন? কোথায় যাচ্ছে ‘মাছের রাজা’ ইলিশ?

ইলিশের প্রজনন বৃদ্ধি ও মাছের আকৃতি বড় করার লক্ষ্যে প্রতিবছর বিশেষ সময় সাগরে ইলিশ মাছ ধরা বন্ধ রাখা হয়। এ সময় সরকার জেলেদের আর্থিকভাবে সহায়তা করে থাকেন। এবার ইলিশ মাছ ধরা বন্ধ ছিল ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই। ৬৫ দিন বন্ধ থাকার পর ২৪ জুলাই সাগরে ইলিশ মাছ ধরা শুরু হয়। সাগরেও ইলিশ মাছ ধরা পড়ে ঝাঁকে ঝাঁকে। চাঁদপুর, চট্টগ্রাম, কক্সবাজারের ইলিশের আড়তগুলোতে ব্যাপক ইলিশের সমাগম ঘটে। জালে বেশি এবং বড় সাইজের ইলিশ ধরা পড়ায় জেলে, পাইকার, ক্রেতা-বিক্রেতা সবাই খুশি।

ঈদের পর রাজধানীর বাজারগুলোতে প্রচুর ইলিশ মাছের আমদানি দেখা যায়। দামও গরিব ও মধ্যবৃত্তের নাগালের মধ্যে। ফলে রাজধানীর বাজারগুলোতে ইলিশ কেনার ধূম পড়ে যায়। এমনো দেখা যায় রাজধানীর পাড়া-মহল্লার অলিগলিতে ফেরি করে ইলিশ বিক্রি করা হচ্ছে।

কিন্তু গত দুই তিনদিন বাজারে ঘুরে দেখা গেল রাজধানীর, নিউমার্কেট, হাতিরপুল, যাত্রবাড়ী, খোলাইপাড়, শনিরআখড়া, মতিঝিল এজিবি কলোনি মাছ বাজার, মতিঝিলের ফকিরাপুল বাজার, দয়াগঞ্জ বাজার ঘুরে দেখা যায় ইলিশের সরবরাহ কমে গেছে। দাম আগের চেয়ে চড়া। ঈদের পর যে বাজারের ৫ থেকে ১০টি ইলিশ মাছের দোকান দেখা গেছে; সেখানে দুই থেকে ৫টি দোকানের ইলিশ মাছ বিক্রি করা হচ্ছে। দাম অনেক বেশি।

বিক্রেতারা ‘ফিক্সড প্রাইসে’ ইলিশ বিক্রি করছেন। বড় আকৃতির ইলিশের কেজি ৯শ’ টাকা থেকে ১২শ’ টাকা এব মাঝারি আকৃতির ইলিশের কেজি ৭শ’ টাকা থেকে ৮শ’ টাকা। জাটকা ইলিশের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪শ’ থেকে সাড়ে ৪শ’ টাকায়। এতে দেখা যায় আকারভেদে ইলিশের দাম কেজিতে ৮০ থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত বেড়ে গেছে। বিক্রেতারা বলছেন, সরবরাহ কম তাই ইলিশের দাম বেড়ে গেছে।

ইলিশের রাজধানী খ্যাত চাঁদপুরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ভরা মৌসুমে আশানুরূপ ইলিশ নেই বরিশালের পাইকারি বাজারে। দামও বেশি। ক্রেতারা বলছেন, এসময়ে ইলিশের দাম থাকা উচিত ছিল সাধারণের নাগালে। বিক্রেতাদের দাবি, নদীর ইলিশ কম। আবহাওয়া খারাপ থাকায় জেলেরা ঠিকঠাকভাবে মাছ ধরতে না পারায় বেড়েছে দাম।

পাইকারি বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতা থাকলেও নেই আশানুরূপ ইলিশ। আষাঢ়, শ্রাবণ, ভাদ্র, আশ্বিন- এই চার মাস ইলিশের ভরা মৌসুম বলা হলেও বরিশালের বাজারে নেই নদীর ইলিশ। সাগরের ইলিশ থাকলেও তা তুলনামূলক পরিমাণে কম। ক্রেতারা বাজারে গিয়ে হতাশ হচ্ছেন। একদিকে নদীর ইলিশ কম, অপরদিকে আবহাওয়া খারাপ থাকায় জেলেরা সাগরে ঠিকমতো ধরতে পারছে না।

আর এ কারণে ইলিশের সরবরাহ কমে দাম বেড়েছে বলে জানিয়েছেন বরিশাল নগরের পোর্ট রোডের মৎস্য ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক নীরব হোসেন টুটুল। তিনি জানান, বরিশালের পাইকারি বাজারে গতকাল ৬শ’ থেকে ৯শ’ গ্রাম ওজনের ইলিশের দাম মণপ্রতি ৩০ হাজার, এক কেজির ইলিশ মণ প্রতি ৩৮ হাজার, ১২শ’ গ্রাম ওজনের মণপ্রতি মণপ্রতি ৪১ হাজার টাকা দরে বিক্রি হয়েছে।

গত সপ্তাহে আকারভেদে প্রতিমণে এই দাম তিন থেকে চার হাজার টাকা কম ছিল। তবে রাজধানীর মাঠ ব্যবসায়ীদের মতে সাগরে যে পরিমাণ ইলিশ ধরা পড়ছে তা সরবরাহ হলে বাজারে ইলিশ মাছের সংকট হওয়ার কথা নয়। কোথায় যাচ্ছে রুপালি ইলিশ সেটাই তাদের প্রশ্ন।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইলিশ

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০
১১ সেপ্টেম্বর, ২০২০
১০ সেপ্টেম্বর, ২০২০
৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০
১২ আগস্ট, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন