Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ৪ কার্তিক ১৪২৭, ০২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

করহার হ্রাস ও ন্যূনতম করসীমা বৃদ্ধি মুজিববর্ষের উপহার

রাজস্ব আদায়ের কর্ম পরিকল্পনা নিয়ে ভার্চুয়াল সভায় অর্থমন্ত্রী

অর্থনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৮ আগস্ট, ২০২০, ১২:০০ এএম

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, এ বছর বিশ্বব্যাপী মহামারি করোনার প্রাদুর্ভাবে করদাতারা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এসব বিষয় বিবেচনায় নিয়ে এবং মুজিববর্ষের উপহার হিসেবে ব্যক্তি শ্রেণির করদাতাদের করমুক্ত আয়সীমা বৃদ্ধি করে তিন লাখ টাকা করা হয়েছে। পাশাপাশি কর হার হ্রাস করা হয়েছে। রাজস্ব আহরণের গতি স্বাভাবিক রাখতে নানামুখী পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, আয়কর অনিুবিভাগের ২০২০-২১ অর্থবছরের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত হয়েছে ১ লাখ ৫ হাজার ৪৭৫ কোটি টাকা।
রাজস্ব আহরনের গতিকে স্বাভাবিক রাখার জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আয়কর খাত হতে রাজস্ব যোগান নিশ্চিতের লক্ষ্যে অত্যন্ত সুন্দর ও যুগপোযোগী একটি কর্মপন্থা গ্রহণ করেছে। এ লক্ষ্যে সম্পূর্ণ বিজনেস প্রসেস অটোমেশনের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। রাজস্ব ব্যবস্থাপনাকে সামগ্রিক অটোমেশনের আওতায় আনয়নের জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে করের আওতা স¤প্রসারণ (জরিপ, থার্ড পার্টির ডাটাবেইজ ব্যবহার করা), করদাতাদের রিটার্ন দাখিল বৃদ্ধির লক্ষ্যে ২০২০-২১ অর্থবছরে রিটার্ন ফর্ম সহজ করে একপাতার রিটার্ন ফর্ম তৈরি করা হয়েছে। প্রত্যেকটি উপজেলায় আয়কর অফিস স্থাপন করা হবে। একবারের বেশি কোন ব্যক্তি টিন নাম্বার দেয়া হবে না।
গতকাল ২০২০-২১ অর্থবছরের রাজস্ব আদায়ের কর্ম পরিকল্পনা নিয়ে ভার্চুয়াল সভায় অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন। অর্থমন্ত্রী জানান, রাজস্ব যোগান নিশ্চিতের লক্ষ্যে যে সকল কর্মপন্থা গ্রহণ করা হয়েছে, তার মধ্যে পারসোনাল মোটর ভেহিকেল এর অ্যাডভান্স ইনকাম ট্যাক্স (এআইটি) বৃদ্ধি করা হয়েছে, ভুয়া টিআইএন ও কর ফাকি রোধে বিআরটিএ কে ই-টিআইএন যাচাইয়ে ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এনবিআর। আয়কর বিভাগের ৬৫ শতাংশ রাজস্বই আদায় হয় উৎসে কর হতে। তাই উৎসে কর আদায়ে যথাযথ মনিটরিং ও উৎসে কর্তনে কর ফাকি রোধকল্পে টাস্কফোর্স গঠন, ই-টিডিএস ( ট্যাক্স ডিডাকটেড এ্যাট সোর্স) সিস্টেম তৈরির উদ্যোগসহ ইনোভেটিভ কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। বিদেশি নাগরিকেদর কর ফাকি রোধে ডাটাবেইজ তৈরিতে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণের লক্ষ্যে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে এবং ব্যক্তিগত গাড়ির বিশেষ ধরনের নম্বর প্লেট বিক্রির মাধ্যমেও রাজস্ব সংগ্রহের পরিকল্পনা রয়েছে বলেও জানান আ হ ম মুস্তফা কামাল।
অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ও এনবিআরের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বলেন, অর্থমন্ত্রীর নির্দেশক্রমে অটোমেশনকে সর্বোচ্চ গুরত্ব দেয়া হয়েছে। রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে যে কোন ব্যক্তি করদাতার শেয়ারস অ্যান্ড আদার সিকিউরিটিসে তার ইনভেস্টেড অ্যামাউন্টের ওপর ১০ শতাংশ কর দান করেন, আনডিসক্লোজড ল্যান্ডে তার ইনভেস্টেড এ্যামাউন্টের উপর নির্ধারিত হারে কর প্রদান করে তার বিনিয়োগ করলে, আনডিসক্লোজড বিল্ডিং অথবা অ্যাপার্টমেন্টে তার ইনভেস্টেড অ্যামাউন্টের উপর নির্ধারিত হারে কর প্রদান করলে এবং আনডিসক্লোজড ক্যাশ, ব্যাংক ডিপোসিট ইত্যাদিতে তার ইনভেস্টেড অ্যামাউন্টের উপর ১০ শতাংশ কর দান করলে তার বিনিয়োগকৃকত অর্থের উৎস নিয়ে প্রশ্ন তোলা হবে না।
পাশাপাশি করোনা সংক্রমণের ফলে ডিজিটাল ইকনোমির প্রসার ঘটেছে। অনলাইন লেনদেন বৃদ্ধি পেয়েছে। এ খাত হতে কর আদায়ের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। কিছু ক্ষেত্র ব্যতীত প্রায় সকল টিআইএন ধারীদের আয়কর রিটার্ন দাখিল করা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। উইথহোল্ডিং ট্যাক্স রিটার্ন দাখিল করার আওতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। নন-লিস্টেড বাংলাদেশ ভ্যাংক, ইনস্যুরেন্স অ্যান্ড নন ব্যাংকিং ফিনান্সিয়াল ইন্সটিটিউশনের (এনবিএফআই) করহার ৩৭ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে ৪০ শতাংশে বৃদ্ধি করা হয়েছে। এছাড়া করোনা পরিস্থিতি উন্নতি হওয়া সাপেক্ষে কর নির্ধারণ, দাবি সৃষ্টি ও আদায়, অডিট মামলা নিষ্পত্তি, বকেয়া কর আদায়, ব্যবস্থাপনা গতিশীল করা, হাইকোর্টের মামলা দ্রæত নিষ্পত্তিসহ প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করা হচ্ছে। সভায় অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সকল সদস্য, কমিশনার অন্যান্য কর্মকর্তারা সংযুক্ত ছিলেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: অর্থমন্ত্রী


আরও
আরও পড়ুন