Inqilab Logo

শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৩ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

আন্দোলনে যোগ দিয়েছেন কর্মকর্তারাও অচলাবস্থা কাটেনি বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের

প্রকাশের সময় : ৭ আগস্ট, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) উপজেলা সংবাদদাতা

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের রংপুর ও রাজশাহী বিতরণ জোনকে রাতারাতি কোম্পানিতে রূপান্তরিত করার প্রতিবাদে গত মঙ্গলবার সকাল থেকে শুরু হওয়া শ্রমিক ধর্মঘট গতকাল শনিবারও অব্যাহত থাকায় অচলাবস্থা কাটেনি দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের স্বাভাবিক কাজকর্মের। শ্রমিক ধর্মঘটের সঙ্গে যোগ দিয়েছে কর্মরত কর্মকর্তারাও। ফলে এখন কর্মচারী-কর্মকর্তা ঐক্য পরিষদের উদ্যোগেই চলছে আন্দোলন। আন্দোলনের মিছিলে উত্তাল হয়ে উঠেছে বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র প্রাঙ্গণ। গতকাল শনিবারও পূর্বের ন্যায় তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের কর্মরত শ্রমিক-কর্মচারীরা কাজে যোগ না দিয়ে সকাল ১০টা থেকে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে অবরোধ কর্মসূচি পালন করে এবং তাদের দাবির পক্ষে খ- খ- মিছিল বের করে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের জাতীয় বিদ্যুৎ শ্রমিক লীগ (সিবিএ ১৯০২)-এর সভাপতি জিল্লুর রহমান বলেন, সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলো একের পর এক কোম্পানীকরণ করে ব্যক্তিমালিকানায় দেয়া হচ্ছে। আর কোম্পানীগুলো সরকারী প্রতিষ্ঠানের মূল্যবান সম্পদ আত্মসাৎ করে আবার লোকসান দেখিয়ে সরকারের কাছে ফিরিয়ে দিচ্ছে। এতে সরকারের হাজার হাজার কোটি টাকা লোকসান হওয়ার পাশাপাশি বেকার হয়ে যাচ্ছে হাজার হাজার সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারী। তিনি আরোও বলেন, বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড একটি সরকারি প্রতিষ্ঠান, জনগণকে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ করে সেবা দিয়ে আসছে। কিন্তু কতিপয় ষড়যন্ত্রকারী সরকারকে ভুল বুঝিয়ে রাতারাতি রাজশাহী ও রংপুর বিতরণ জোনকে কোম্পানীতে রূপান্তরিত করে সরকারি এই প্রতিষ্ঠানটিকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্র করছে। এ জন্য তারা এই কোম্পানীকরণ চুক্তি বাতিলের জন্য সারা বাংলাদেশে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়ন ব্যানারে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের দাবি বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত তাদের আন্দোলন চলবে বলে তিনি জানান। একই কথা বলেন, জাতীয় বিদ্যুৎ শ্রমিক লীগ (সিবিএ ১৯০২)-এর সাধারণ সম্পাদক আকবর আলী, জাতীয় শ্রমিক লীগ-এর বড়পুকুরিয়া শাখার সভাপতি শহীদুল ইসলাম ও মহিদুল ইসলাম। এদিকে বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রধান প্রকৌশলী মহব্বত হোসেন বলেন, শ্রমিক-কর্মচারীরা কাজে যোগ না দেয়ায় তাপবিদ্যুতের স্বাভাবিক কাজকর্ম পরিচালনা করা অসম্ভব হয়ে পড়েছে। তবে তিনি জানান, দাপ্তরিক কাজের ব্যাঘাত ঘটলেও স্বাভাবিক আছে বিদ্যুৎ উৎপাদন। একই কথা বলেন, তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের মহাব্যবস্থাপক প্রশাসন এস এম ওয়াজেদ আলী।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আন্দোলনে যোগ দিয়েছেন কর্মকর্তারাও অচলাবস্থা কাটেনি বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ