Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২১, ১৪ মাঘ ১৪২৭, ১৪ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

সখিপুরে সাতদিনের ব্যবধানে নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া দুই বান্ধবীর বিয়ে

সখিপুর(টাঙ্গাইল)উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৪ আগস্ট, ২০২০, ৫:৪৪ পিএম

টাঙ্গাইলের সখিপুরে সাতদিনের ব্যবধানে বড়চওনা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া দুই বান্ধবীর বাল্যবিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলার বড়চওনা কলেজ মোড় বিন্নরীপাড়া গ্রামে গত ১৫ আগস্ট শনিবার এবং ২৩ আগস্ট রবিবার এ দুটি বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। এ দুটি বাল্যবিয়েরই রেজিস্ট্রি করেন পাশ্ববর্তী ভালুকা উপজেলার উথুরা ইউনিয়ন কাজী আবদুস সালামের ছেলে নূরুজ্জামান। সোমবার সরেজমিন ওই এলাকায় গিয়ে বাল্যবিয়ে দুটির সত্যাতা পাওয়াযায়।।


জানা যায়, গত ১৫ আগস্ট শনিবার রাতে উপজেলার বড়চওনা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া বড়চওনা কলেজ মোড় বিন্নরীপাড়া গ্রামের হালেম মিয়ার মেয়ে হালিমা আক্তার (১৪) এর সহিত নামদারপুর সুলতান নগর গ্রামের আবদুল গফুরের ছেলে আজাহার উদ্দিনের ৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা কাবিনে বিয়ে হয়। সাত দিনের মাথায় ২৩ আগস্ট রাতে তারই বান্ধবী একই এলাকার মানিক মিয়ার মেয়ে মুক্তা আক্তার (১৪) এর সহিত ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা কাবিনে ভালুকা উপজেলার কৈয়াদি গ্রামের এক প্রবাসীর সঙ্গে বিয়ে হয়।


এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য মজিবর রহমান ফকির ওই দুটি বাল্য বিয়ের বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে দাবি করেন।


বড়চওনা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ লাল মিয়া জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় এ বিষয়ে কিছু জানতে পারেননি।


কাজী আবদুস সালামের ছেলে নূরুজ্জামানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিয়ে দুটি রেজিস্ট্রি করার বিষয়ে অস্বীকার করেন।


উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)আসমাঊল হুসনা লিজা বলেন,খোঁজ নিয়ে দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কাজীর বাড়ি ভালুকা উপজেলায় হওয়ায় তিনি সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করবেন বলেও জানান।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বাল্যবিয়ে

২০ নভেম্বর, ২০২০
১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ