Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১১ কার্তিক ১৪২৭, ০৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

আদালতে লিয়াকতের জবানবন্দি : সিনহা হত্যায় জড়িত থাকার স্বীকারোক্তি

কক্সবাজার ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ৩০ আগস্ট, ২০২০, ৫:৩০ পিএম | আপডেট : ৬:০১ পিএম, ৩০ আগস্ট, ২০২০

আদালতে ১৬৪ ধারা জবানবন্দিতে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা সম্পর্কে মামলার উল্লেখিত তথ্য-উপাত্ত তথা এই হত্যার সত্যতা স্বীকার করেছে মামলার প্রধান আসামী বাহার ছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ বরখাস্ত এসআই লিয়াকত আলী।

রোববার (৩০ আগস্ট) ১৬৪ ধারা জবানবন্দিতে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহর আদালতে এই স্বীকারোক্তি দিয়েছেন তিনি।
জবানবন্দি শেষে সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা র‌্যাবের এসএসপি খায়রুল ইসলাম।

তিনি জানান, সিনহা হত্যা মামলার প্রধান আসামী রিমান্ডে যা স্বীকার করেছেন আদালতের কাছেও তা স্বীকার করেছেন। মেজর (অব.) সিনহা হত্যা মামলার তথ্য-উপাত্ত সম্পর্কে নিজের সংশ্লিষ্টতা স্বীকার করেছেন লিয়াকত আলী।
এএসপি খায়রুল ইসলাম বলেন, মামলার প্রধান আসামী লিয়াকত আলী জিজ্ঞাসাবাদে সিনহা হত্যা সম্পর্কে র‍্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে যা স্বীকার করেছে আদালতের কাছেও একই স্বীকারোক্তি দিয়েছে।

মামলায় তৃতীয় দফায় তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুরের একদিন পরই ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে প্রধান আসামী বরখাস্ত এসআই লিয়াকত আলীকে আদালতে আনা হয়।

আজ রোববার (৩০ আগস্ট) দুপুর পৌনে ১২টার দিকে জবানবন্দিতে তাকে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহর আদালতে আনা হয় এবং বিকাল ৫টার দিকে তার জবানবন্দি রেকর্ড সম্পন্ন হয়।

র‌্যাব সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার তৃতীয় দফায় বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, এসআই লিয়াকত আলী, এএসআই নন্দদুলাল রক্ষিতের তৃতীয়বারের মতো তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

তৃতীয় দফায় তিনের রিমান্ড মঞ্জুরের একদিন পরই আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ার জন্য বরখাস্ত এসআই লিয়াকত আলীকে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে তাকে আদালতে আনা হয়।

র‌্যাব সূত্র মতে, আত্মসমর্পণের পর গত ৬ আগস্ট ওসি প্রদীপ, লিয়াকত ও নন্দদুলালসহ সাত পুলিশের সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।
সাত দিনের রিমান্ড শেষে দ্বিতীয় দফায় ২৪ আগস্ট আরো সাত দিনের রিমান্ড চেয়েছিল র‌্যাব।

আদালত চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছিলেন। ওই চার দিন রিমান্ড শেষ হলে তদন্তের স্বার্থে তৃতীয় দফায় আরো চার দিনের আবেদন করা হলে গত শুক্রবার (২৮ আগস্ট) আদালত তাদের তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত ৩১ জুলাই রাত সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত আলীর গুলিতে নিহত হন অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান। ঘটনার পর পুলিশ বাদী হয়ে টেকনাফ থানায় দুটি ও রামু থানায় একটি মামলা করে।

মামলায় এ পর্যন্ত সাত পুলিশ সদস্য, এপিবিএনের তিন সদস্য ও টেকনাফ পুলিশের করা মামলার তিন সাক্ষীসহ ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। এপিবিএনের তিন পুলিশ সদস্য পৃথকভাবে বুধ ও বৃহস্পতিবার আদালতে ১৬৪ ধারা মতে জবানমন্দি দেন। যার কারণে এ তিন পুলিশ সদস্য কারাগারে রয়েছেন।

গত ৫ আগস্ট কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হত্যা মামলা করেন সিনহা মো. রাশেদ খানের বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস। এতে ৯ জনকে আসামি করা হয়। পরে আরো ছয়জনকে আসামী করা হয়। দুইজন ছাড়া সব আসামী গ্রেফতার হয়েছে।

অপরদিকে গত শুক্রবার (২৮ আগস্ট) ওসি প্রদীপের জামিনের জন্য চট্টগ্রাম কোর্টের প্রবীণ আইনজীবী এহেছানুল হক হেনার নেতৃত্বে সাত সদস্যের একটি আইনজীবীর প্রতিনিধি দল কক্সবাজার আদালতে হাজির হয়ে রিমান্ডের বিরোধিতা করেন এবং জামিনের আবেদন করেন। তাদের জামিন আবেদন নাকচ করে দেন আদালত।



 

Show all comments
  • সাদিয়া আক্তার কল্পনা ৩০ আগস্ট, ২০২০, ৯:০৩ পিএম says : 0
    এদের রিমান্ডে নেওয়া হচ্ছে না লাচ্ছি সেমাই খাওয়ানো হচ্ছে তদন্ত করে দেখা উচিত
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Shah Alam Khan ৩০ আগস্ট, ২০২০, ৯:০৩ পিএম says : 0
    মেজর (অবঃ) সিনহা মামলার তদন্ত এখন শেষের পর্যায় চলে এসেছে। মামলার প্রধান আসামী বাহার ছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ বরখাস্ত এসআই লিয়াকত আলী অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা সম্পর্কে মামলার উল্লেখিত তথ্য-উপাত্ত তথা এই হত্যার সত্যতা স্বীকার করেছে। এখন বাকী থাকলো দুজন বরখাস্ত ওসি প্রদীপ বাবু ও এসআই নন্দদুলাল এদের জবানবন্দিও স্বীকারোক্তি মূলকই হবে এটা অনুমান করা যায়। এখন আমাদেরকে মামলার রায়ের অপেক্ষায় থাকতে হবে। আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতাদের একজন হিসাবে আল্লাহ্‌র কাছে দাবী করে প্রার্থনা করছি আল্লাহ্‌ যেমন ভাবে ’৭১ সালে আমাদেরকে সাহায্য সহযোগিতা করে ৯ মাসেই যুদ্ধে জয়ী করে বাংলাদেশ সৃষ্টি করেছিলেন ঠিক তেমনিভাবে এই হত্যা বিচারের মাধ্যমে আমাদের (মুক্তিযোদ্ধাদের) রক্তের বিনিময়ে অর্জিত দেশ বাংলাদেশের পুলিশদেরকে সত্য বলা ও সততার সাথে চলার ক্ষমতা প্রদান করেন। পুলিশরা যাতে এই বিচারের পর আর কোন অন্যায় কাজ না করে। সাথে সাথে মহান আল্লাহ্‌র দরবারে এটাও প্রার্থনা করছি, আল্লাহ্‌ যেন আমাদের দেশের উকিলদেরকেও সত্য কথা বলা ও সততার সাথে চলার ক্ষমতা দান করেন। আমিন
    Total Reply(0) Reply
  • Esou Forge ৩০ আগস্ট, ২০২০, ৯:০৪ পিএম says : 0
    দাবান এর মতো হেটে আসে এদের কীসের রিমান্ড দিছে,, বুঝি না বাপু,রিমান্ড নাকি সিনেমার দৃশ্য
    Total Reply(0) Reply
  • Md Sayem ৩০ আগস্ট, ২০২০, ৯:০৪ পিএম says : 0
    জাতির বুঝতে আর অসুবিধা হয়নি,, ওসি প্রদীপ কে বাঁচানোর চেষ্টা চলছে
    Total Reply(0) Reply
  • Monalisa Kabir ৩০ আগস্ট, ২০২০, ৯:০৪ পিএম says : 0
    প্রতি দিন রিমান্ড, ওরা কি প্রমান করতে চায় ওসি প্রদীপ লিয়াকত ধোয়া তুলসি পাতা
    Total Reply(0) Reply
  • MD Shahin ৩০ আগস্ট, ২০২০, ৯:০৫ পিএম says : 0
    লিয়াকতের সম্পদের হিসাব নেওয়া উচিত দুদকের নেয়া উচিত পরিমাণ সম্পদ আছে
    Total Reply(0) Reply
  • Nazim Miha ৩০ আগস্ট, ২০২০, ৯:০৫ পিএম says : 0
    এই নাটক কি শেষ হবে না, আর এর বিচার কি আমারা জনগণ দেখতে পাবো।
    Total Reply(0) Reply
  • Khandakar Rafiq Shawon ৩০ আগস্ট, ২০২০, ৯:০৬ পিএম says : 0
    সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান এর খুনিদের পাবলিক এর হাতে ছেড়ে দেয়া হোক সরাসরি জনতা... করে দিবে। কারণ বাংলাদেশের আইন কাঠামো মারা গেছে দেশে এখন সঠিক বিচার পাওয়া যায় না। তাই পাবলিক নিজেরাই আইন হাতে তুলে নিবে সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান এর খুনিদের মারতে ।অতএব ওটাই হবে সঠিক বিচার জাতি এখন সরকার এর উপর আস্থা হারিয়ে ফেলেছে।
    Total Reply(0) Reply
  • Mejor Rahman ৩০ আগস্ট, ২০২০, ৯:০৭ পিএম says : 0
    ধন্যবাদ সম্মানিত র্যাবের সাহসী ও সততার সহিত দায়িত্ব পালন কারী সদস্যদের কে । আপনরাই পারবেন বাহিনীর ভাল কাজে জনগনের আস্থা ফিরিয়ে আনতে
    Total Reply(0) Reply
  • Kamrul Islam ৩০ আগস্ট, ২০২০, ৯:০৭ পিএম says : 0
    ইন্সপেক্টর লিয়াকত না বলে আসামি লিয়াকত বলুন
    Total Reply(0) Reply
  • প্রতিবাদী ৩০ আগস্ট, ২০২০, ১১:৪৪ পিএম says : 0
    খুনিটার এই ছবিটা না দিয়ে জেলের পোশাক পরা একটা ছবি দেয়া উচিত ছিল।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammad Sirajullah, M.D. ৩১ আগস্ট, ২০২০, ২:৪২ এএম says : 0
    When you want to run a free country with colonial Police, What else you can expect. These Police officers were recruited for safety of other officers and harassment of the Native. Mukti Juddhd hoyechhilo Bangladeshke Pakistan there separate korai jonyo there separate korai jonyo, Bangladesh, IOndia ,Pakistan all are still going on with colonial legacy and none became a country for the ry for the people These are still run with the principal of " Government off the people, Buy the People and far (away) the people.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মেজর সিনহা


আরও
আরও পড়ুন