Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

টাঙ্গাইলে গৃহবধূকে হত্যার দায়ে স্বামী এবং শ্বশুরের মৃত্যুদণ্ড

টাঙ্গাইল জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৩১ আগস্ট, ২০২০, ৭:২৮ পিএম | আপডেট : ৭:৫৮ পিএম, ৩১ আগস্ট, ২০২০

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে এক গৃহবধুকে হত্যার দায়ে স্বামী ও শ্বশুরের মৃত্যুদন্ড ও এক লাখ টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছে আদালত। আজ সোমবার দুপুরে টাঙ্গাইলের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এ রায় দেন।দন্ডিতরা হলেন, ভূঞাপুর উপজেলার অর্জুনা গ্রামের জহিরুল ইসলাম (২৫) ও তার বাবা মজনু মিয়া (৫৫)।সত্যতা নিশ্চিত করে টাঙ্গাইলের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের স্পেশাল পিপি নাসিমুল আক্তার নাসিম বলেন, জহিরুল ইসলামের সাথে একই উপজেলার কুঠিবয়রা গ্রামের সলিম উদ্দিনের মেয়ে তাসলিমা আক্তারের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের টাকা দাবি করে তাসলিমার উপর নির্যাতন করা হতো। যৌতুকের দাবিকৃত দেড় লাখ টাকা না পেয়ে ২০১৬ সালের ২৭ নভেম্বর তাসলিমাকে হত্যা করে মরদেহ যমুনা নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হয়।
তিনদিন পর ভূঞাপুরের গোবিন্দাসী ঘাট থেকে তাসলিমার ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে তার বাবা বাদি হয়ে ওই বছরের এক ডিসেম্বর থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ স্বামী জহিরুল ইসলাম ও শ্বশুর মজনু মিয়াকে গ্রেফতার করে। ইতোপূর্বে আদালতে তারা নদীতে চুবিয়ে তাসলিমাকে হত্যার পর নদী ভাসিয়ে দেয়ার কথা বলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। পরবর্তীতে তারা জামিনে মুক্ত হন।
সোমবার তাদের আদালতে হাজির থাকার কথা থাকলেও আসামিরা উপস্থিত হননি। তাদের অনুপস্থিতিতেই রায়টি দেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন।
মামলা পরিচালনায় বাদিপক্ষের আইনজীবী ছিলেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালের স্পেশাল পিপি নাসিমুল আক্তার নাসিম আর আসামিপক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট খন্দকার ফায়েকুজ্জামান নাজিব।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ