Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

আসছে ‘আওয়ামী সজীব ওয়াজেদ জয় লীগ’

প্রকাশের সময় : ৮ আগস্ট, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : নামের সঙ্গে ‘আওয়ামী’, ‘বঙ্গবন্ধু’, ‘বঙ্গমাতা’ জুড়ে দিয়ে শতাধিক সংগঠন গড়ে ওঠার পর এবার ‘বাংলাদেশ আওয়ামী সজীব ওয়াজেদ জয় লীগ’ নাম নিয়ে আসছে আরেকটি সংগঠন। এ সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ও কেন্দ্রীয় সভাপতি হাসু সরদার বলছেন, এমন একটি দল গড়বেন- তা ছিল তার ‘ছোটবেলার স্বপ্ন’। তবে তার এ উদ্যোগকে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী দেখছেন আরেকটি ‘ধান্দাবাজি’ হিসেবে।
হাসু সরদারের ইচ্ছা, জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করে শিগগিরই জাতির সামনে সংগঠনের জানান দেবেন তিনি। ছোট সময় থেকে এমন একটি সংগঠন করব এমন চিন্তা করে আসছিলাম। বছরখানেক আগে সজীব ওয়াজেদ জয় ভাইয়ের এক চাচাত ভাই শামীম ভাইসহ আমার কয়েকজন উপদেষ্টার পরামর্শে অনেক পরিশ্রম করে এই সংগঠন গড়ে তুলেছি।
ছয় মাস ধরে ‘পরিশ্রম করে’ ১০১ সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটিসহ কয়েকটি জেলা কমিটি দিয়েছেন জানিয়ে হাসু বলেন, শিগগিরই সারা দেশে তার সংগঠনের জেলা কমিটি দেয়া হবে। তিনি দাবি করেন, এ সংগঠনের সঙ্গে আওয়ামী লীগের অনেক বড় বড় নেতাও জড়িত। তবে তাদের নাম বলা যাবে না। আমি আমার উপদেষ্টাদের সঙ্গে কথা বলে আপনাকে জানাব। সংগঠনের তহবিলের বিষয়ে তিনি বলেন, উপদেষ্টা কমিটি আছে, আপাতত উনারা দেখছেন।
সংগঠনের ঢাকা জেলার একটি ব্যানারে কেবল ‘সজীব ওয়াজেদ জয় লীগ’ লেখা দেখে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে কেন্দ্রীয় সভাপতি বলেন, আমাদের এই কমিটির নেতারা শুধু জয় ভাইয়ের নাম লিখেছে, আসলে আমাদের সংগঠনের নাম ‘বাংলাদেশ আওয়ামী সজীব ওয়াজেদ জয় লীগ’।
হাসু ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এই সংগঠন করার পর অনেকে ‘অনেক কথা’ বলছে। ঢাকা জেলা কমিটির আহ্বায়ককে ফোন করে গালাগালও করা হয়েছে।
ব্যানারে ঢাকা জেলা কমিটির কার্যালয়ের ঠিকানা লেখা হয়েছে কালীগঞ্জ বাজার, চৌধুরী মার্কেট, কেরানীগঞ্জ, ঢাকা-১৩১০। কমিটির আহ্বায়ক রনি আহম্মেদ কেরানীগঞ্জে ব্যবসা করেন বলে দাবি করেন। তার ভাষ্য, কেন্দ্রীয় কমিটির কাছ থেকে ‘অনেক তদবির করে’ ঢাকা জেলা কমিটি পেয়েছেন তিনি।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্র ও প্রধানমন্ত্রীর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের নাম ব্যবহার করে গজিয়ে ওঠা এই সংগঠনের সঙ্গে আওয়ামী লীগের সম্পর্ক আছে কি না জানতে চাইলে ক্ষমতাসীন এ দলের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, দলের রাজনীতিকে ব্যবহার করে এসব চাঁদাবাজি, ধান্দাবাজি। আমি মনে করি, তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া উচিত।
গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনগুলো হচ্ছে যুবলীগ, কৃষক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ, যুব মহিলা লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ ও তাঁতী লীগ। এছাড়া ছাত্রলীগ ও শ্রমিক লীগের ভ্রাতৃপ্রতীম সংগঠনের স্বীকৃতি রয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আসছে ‘আওয়ামী সজীব ওয়াজেদ জয় লীগ’
আরও পড়ুন