Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১২ কার্তিক ১৪২৭, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

সমুদ্র সীমানা নিয়ে আলোচনায় তুরস্ক রাজি, গ্রিসের না

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৩:৫৮ পিএম

পূর্ব ভূমধ্যসাগরে খনিজ সম্পদের অনুসন্ধান নিয়ে কয়েক মাস ধরেই গ্রিস ও তুরস্কের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। দুপক্ষের মধ্যকার উত্তেজনাকর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের মধ্যে থাকলেও যুদ্ধের বিউগল বাজতে শুরু করেছে। গ্রিস ইউরোপীয় মিত্রদের সঙ্গে নিয়ে ভূমধ্যসাগরে যুদ্ধজাহাজের মহড়া দিয়েছে। তুরস্ক ঠেকিয়েছে গ্রিসের কয়েকটি যুদ্ধবিমানকে। নেমেছে নৌশক্তি প্রদর্শনে। কাছেই অপেক্ষা করছে মার্কিন নৌবাহিনীর জাহাজ।

খবরে বলা হয়, ভূমধ্যসাগরে গ্রিস ও তুরস্ক নিজেদের বিমান ও নৌ যান ও সমরাস্ত্রের মেলা বসিয়েছে। অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স ও সংযুক্ত আরব আমিরাত সামরিক মহড়ায় অংশ নিচ্ছে। এই অবস্থায় ন্যাটো উত্তেজনা কমাবার জন্য দুই দেশের মধ্যে আলোচনার জন্য উদ্যোগী হয়েছে।

ন্যাটো প্রধান জেনস স্টলেনবার্গ ঘোষণা করে দিয়েছিলেন, ''দুই দেশ টেকনিক্যাল আলোচনায় রাজি হয়েছে। আমি দুই পক্ষের সঙ্গে সমানে যোগাযোগ করছি, যাতে সমাধানসূত্র পাওয়া যায়।'' কিন্তু তাঁর এই ঘোষণার কয়েক ঘণ্টা পরই গ্রিসেরমুখপাত্র সংবাদসংস্থা এপি-কে জানিয়ে দেন, ''ন্যাটো প্রধানের বক্তব্যের সঙ্গে বাস্তব অবস্থা মিলছে না। তুরস্ককে অবিলম্বে যাবতীয় জাহাজ ফিরিয়ে নিয়ে যেতে হবে। তারপরই একমাত্র উত্তেজনা কমতে পারে।''

তুরস্ক অবশ্য আলোচনা চাইছে। সে দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, ''তুরস্ক শর্তহীন আলোচনায় রাজি। এই আলোচনার মাধ্যমে আন্তর্জাতিক আইনের আওতায় থেকে সমস্যার দীর্ঘস্থায়ী সমাধান হতে পারে।''

জার্মানিও দুই দেশের মধ্যে আলোচনা চায়। চ্যান্সেলার আঞ্জেলা ম্যার্কেল বৃহস্পতিবারও তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এর্দোগানের সাথে কথা বলেছেন। ম্যার্কেলের মুখপাত্র জানিয়েছেন, ‘দুই নেতা আঞ্চলিক উত্তেজনা কমাবার ওপর জোর দিয়েছেন।’ পরিস্থিতি এতটাই উত্তেজক যে, দুই দেশের মধ্যে সামরিক সংঘর্ষের সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না। সূত্র: ডয়চে ভেলে



 

Show all comments
  • Jack Ali ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৫:৪৪ পিএম says : 0
    O'Allah those country are helping Greece--- destroy them.. O'Allah unite muslim Ummah under one umbrella of Islam..
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: তুরস্ক


আরও
আরও পড়ুন