Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

নির্বাচনী মাঠেও তারা প্রতিদ্বন্দ্বি!

জাহেদ খোকন | প্রকাশের সময় : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৮:১৬ পিএম

ফুটবলের মতো নির্বাচনী মাঠেও তারা প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবেই হাজির হলেন। দেশের ফুটবলে এক সময় ঢাকা আবাহনীর হয়ে মাঠ মাতাতেন কাজী মো. সালাউদ্দিন। ঠিক তেমনি ঐতিহ্যবাহী ঢাকা মোহামেডানের পক্ষে আলো ছড়াতেন বাদল রায় ও শফিকুল ইসলাম মানিক। খেলা ছেড়েছেন অনেক আগেই। এদের মধ্যে সালাউদ্দিন ও বাদল রায় বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) যথাক্রমে তিনবারের নির্বাচিত সভাপতি ও সহ-সভাপতি। অন্যদিকে মানিক জাতীয় দলের সাবেক ও বর্তমানে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের কোচ।

বাফুফে’র আসন্ন নির্বাচনে এই তিনজন একে অন্যের প্রতিপক্ষ হলেন। সভাপতি পদে বাফুফের বর্তমান কমিটির প্রধান কাজী সালাউদ্দিনকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে মনোনয়নপত্র কিনেছেন দুই সাবেক তারকা ফুটবলার বাদল রায় ও শফিকুল ইসলাম মানিক। অন্যদিকে সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে আবদুস সালাম মুর্শেদীকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মনোনয়নপত্র তুলেছেন আরেক সাবেক তারকা ফুটবলার শেখ মো. আসলাম। সালাম তিনবারের নির্বাচিত সিনিয়র সহ-সভাপতি আর আসলাম বাফুফের বর্তমান কমিটির সদস্য।

বাফুফের বহুল আলোচিত নির্বাচনকে সামনে রেখে সোমবার ছিল মনোনয়নপত্র বিক্রির শেষ দিন। এদিনের চমক সালাউদ্দিনকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে বাদল ও মানিকের সভাপতি পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ এবং সালামের প্রতিপক্ষ হিসেবে আসলামের সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত। সোমবার দুপুর ১টার দিকে হঠাৎই বাফুফে ভবনে দেখা মিললো সাবেক তারকা ফুটবলার ও জাতীয় দলের সাবেক কোচ শফিকুল ইসলাম মানিকের। ভবনে প্রবেশের সময় কেউ ভাবতেও পারেননি তিনি মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতে এসেছেন। যখন মানিক বাফুফের হিসাব শাখা থেকে বেড়িয়ে আসলেন, তখন তার হাতে দেখা গেল সভাপতি পদের মনোনয়নপত্র। এসময় উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি বলেন,‘আমি বাফুফের নির্বাচনে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছি। আপাতত আমার সিদ্ধান্ত নির্বাচনের শেষ পর্যন্ত থাকবো।’ মানিকের পথ অনুসরণ করে দুপুর ২টার পর সভাপতি পদের মনোনয়নপত্র কেনেন বাফুফের বর্তমান সহ-সভাপতি ও সাবেক তারকা ফুটবলার বাদল রায়। তার ম্যানেজার প্রদীপ এসে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। এরপর দেখা মিললো আরেক চমকের। ধরেই নেয়া হচ্ছিলো বিনা বাধায় সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে হয়তো চতুর্থবারের মতো নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন সালাম মুর্শেদী। কিন্তু না সালামের প্রতিপক্ষ হিসেবে নির্বাচন করতে বিকেলে মনোনয়নপত্র কিনলেন শেখ মো. আসলাম। এই সাবেক তারকা ফুটবলারের পক্ষে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন তার ছোট ভাই। এরপরই মনোনয়নপত্র তুলেছেন বর্তমান সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনের সম্মিলিত পরিষদের সবাই। সালাউদ্দিন প্যানেল থেকে শেষ মূহূর্তে ছিটকে পড়েছেন বর্তমান কমিটির সদস্য সাবেক তারকা ফুটবলার আরিফ হোসেন মুন।

গত ৪ সেপ্টেম্বর ছুটির দিনে বাফুফে ভবনে প্রবেশের মুখে নিরাপত্তা কর্মীদের বাঁধার সম্মুখীন হয়েছিলেন মুন। সেদিনই ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে মুন বলেছিলেন, আসন্ন বাফুফে নির্বাচনে তিনি কাজী সালাউদ্দিনের প্যানেলে থাকবেন না। শেষ পর্যন্ত তাই হলো। কাল প্যানেল ঘোষণার সময় একটি পরিবর্তনের কথা জানান সালাউদ্দিন। অবধারিতভাবেই পরিবর্তনটি আরিফ হোসেন মুন। তার বদলে টঙ্গী ক্রীড়াচক্রের নুরুল ইসলাম নুরুকে নিজ প্যানেলভুক্ত করেন বাফুফের বর্তমান সভাপতি। আগামী ৩ অক্টোবর হতে যাওয়া বাফুফে নির্বাচনে এক সভাপতি, এক সিনিয়র সহ-সভাপতি, চার সহ-সভাপতি ও ১৫ সদস্য পদের জন্য কাজী সালাউদ্দিনের প্যানেলে রয়েছেন মোট ২১ জন। মঙ্গলবার বেলা ১১টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র জমা দেয়া যাবে। প্রার্থী, প্রস্তাবকারী কিংবা সমর্থনকারী যে কেউ এসে মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারবেন।

তফসিল ঘোষণার পর গত ৫ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয় মনোনয়ন সংগ্রহ। প্রথম দিনে সহ-সভাপতি পদে দুইজন এবং সদস্য পদে তিনজন মনোনয়নপত্র কেনেন। ৬ সেপ্টেম্বর সহ-সভাপতি পদে একটি এবং সদস্য পদে আরও ১০টি মনোনয়ন বিক্রি হয়। কিন্তু গেল দু’দিন সভাপতি ও সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে কেউই মনোনয়ন কিনতে আগ্রহী না হলেও শেষ দিন কাল সভাপতি পদে তিন ও সিনিয়র সহ-সভাপতি পদের দু’জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। এদিন ৩৩ জন মনোনয়নপত্র কিনেছেন। ফলে গেল তিনদিনে ২১ পদের বিপরীতে মোট ৪৯ জন মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। যার মধ্যে সভাপতি পদে ৩, সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে ২, সহ-সভাপতি পদে ৮ ও সদস্য পদের জন্য ৩৬ জন রয়েছেন।

বাফুফের নির্বাচনে সভাপতি পদের মনোনয়নপত্রের মূল্য ১ লাখ, সিনিয়র সহ-সভাপতি পদের মূল্য ৭৫ হাজার টাকা, সহ-সভাপতি পদের মনোনয়নপত্রের মূল্য ৫০ হাজার টাকা এবং সদস্য পদের মনোনয়নপত্রের মূল্য ২৫ হাজার টাকা। বাফুফের সাধারণ সম্পাদক মো. আবু নাইম সোহাগ জানান, মনোনয়নপত্র বিক্রি থেকে বাফুফে আয় করেছে ১৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ