Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

তীব্র গরমেও সতেজ থাকুন

প্রকাশের সময় : ৯ আগস্ট, ২০১৬, ১২:০০ এএম

চারিদিকে তীব্র তাপদাহ। এই প্রচ- গরমে শরীর ও মন অনেকটা নিস্তেজ হয়ে যায়। চলমান ভ্যাপসা গরমে অনেকেই দুর্বল ও অসুস্থ হয়ে পড়েন। গরমের তীব্রতায় মানুষের নানা রোগ-শোকও বেড়েই চলছে।
পরিবেশ ও প্রতিবেশগত অবস্থার কারণে খুবই অস্বস্তিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয় এই গরমে। চরম এই গরমের অজুহাতে কিন্তু ঘরে বসে থাকার সুযোগ নেই কর্মমুখী মানুষদের। নানা কাজে, এদিক-সেদিক ছুটোছুটি করতে হয়। গরমে বেশি সমস্যায় পড়েন নারী ও শিশুরা। কর্মজীবী নারী ও স্কুল-কলেজমুখী শিক্ষার্থীদের পড়তে হয় সীমাহীন বিড়ম্বনায়। তাই কীভাবে সুস্থ ও সতেজ থাকা যায় তা নিয়ে আমাদের এই আয়োজন। এই অবস্থায় ফিট রাখতে হবে নিজেকে। কীভাবে সুস্থ্ থাকবেন, দিনভর সতেজ রাখবেন দেহমন? সে বিষয়েই কিছু টিপস।
সুতির হাল্কা জামা-কাপড় পরুন। এ সময় ডাবের পানি বা তাজা ফলের রস বেশ উপকারী। তাই সঙ্গে রাখতে পারেন কিছু মৌসুমী ফল। ফ্রিজের ঠা-া পানি বা আইসক্রিম এড়িয়ে চলুন। নিয়মিত পানিযুক্ত হাল্কা খাবার খান। প্রচ- রোদে অপ্রয়োজনে ঘর হতে বের হবেন না। নুন-চিনি-লেবু পানি ঘন ঘন খান। ঠা-া নয়, স্বাভাবিক তাপমাত্রার পানি খান। বাইরে ছাতা ও সানগ্লাশ ব্যবহার করুন। এসি রুমে বারবার ঢোকা-বেরোনো ঠিক হবে না। চা বা কফি খাওয়া কমিয়ে দিন। এ সময় প্রসাধনী ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। বেশি তেল, বেশি ঝাল ও বেশি মসলার খাবার এড়িয়ে চলুন। এ গরমেও সতেজ-সজীব থাকার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে রাজধানীর গে-ারিয়াস্থ আজগর আলী হসপিটালের চিফ ডায়েটিশিয়ান সেলিনা বদরুদ্দিন বলেন, কিছু নিয়ম মেনে চললে এ সময় সতেজ, সজীব ও সুস্থ থাকা যায় :
তিন বেলা খাবারে পুষ্টিকর তাজা খাবার খাবেন। নিয়মিত কিছু তাজা মৌসুমী ফল খেতে চেষ্টা করুন। বেশি করে পানি পান করুন। বাইরের তৈরি কোনো খাবার রাখবেন না। পেঁয়াজু, ছপ, বেগুনিসহ তেলে ভাজা খাবার এড়িয়ে চলুন। ডাবের পানি, আখের রস, শীতল শরবত শরীরকে ঠা-া রাখে। বিভিন্ন ফলের রস, তাজা দেশি ফল খেতে চেষ্টা করুন। গরমে ঘামের সাথে শরীরের জমা ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া দূর হয়। দিনে ২ বার ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন। গরমে সতেজ থাকার বড় উপায়, প্রচুর বিশুদ্ধ পানি পান করা। বেশি বেশি পানি পান করুন। এর ফলে শরীরে পানির সমতা বজায় থেকে স্বাস্থ্য সতেজ লাগবে। চেহারাতেও যার প্রভাব পড়বে। গরমে সব থেকে বেশি সমস্যা হয় অতিরিক্ত ঘামের কারণে। অতিরিক্ত ঘামের ফলে শরীর থেকে পানি বেরিয়ে গিয়ে শরীর ক্লান্ত লাগে। অনেকে আবার অতিরিক্ত ঘামের দুর্গন্ধে ভোগেন। ঘাম ও দুর্গন্ধের হাত থেকে রেহাই পেতে প্রচুর শাকসবজি ও ফল খাদ্য তালিকায় রাখা দরকার। বিশেষ করে শসা। এই গরমে মৌসুমী ফল, শসা খাওয়ার ফলে ঘাম কমবে, তৃষ্ণাও কম লাগবে। ঘামের দুর্গন্ধও কম হবে। গরমে বাইরে বেরোলে টিস্যু ব্যাগে রাখুন, যখনই ক্লান্ত লাগবে টিস্যু দিয়ে মুখ মুছে নিন। সম্ভব হলে নিয়মিত হালকা ব্যায়াম করুন। নিজের প্রতি আস্থা রাখুন, সব সময় পজেটিভ ধারণা পোষণ করুন। আপনার সকল চাওয়া পাওয়ার জন্য স্রষ্টার সাহায্য প্রার্থনা করুন। জীবনের সব ক্ষেত্রে স্রষ্টার নিয়ম-নীতি মেনে চললে আপনার সুখ সৌন্দর্য ও ঐশ্বর্য আপনার নিয়ন্ত্রণে থাকবে।
আলম শামস



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ