Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

আমিরাত, ভারতের সাথে ত্রিপক্ষীয় সহযোগিতা চুক্তির প্রস্তাব ইসরায়েলের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৩:৪৬ পিএম

ইসরায়েল, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং ভারতের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় সহযোগিতা চুক্তির প্রস্তাব দিয়েছে তেল আভিভ। ইসরায়েলের একজন শীর্ষ কূটনীতিক এই তথ্য জানিয়ে বলেন, ইসরায়েল মনে করে, ভারত ও চীনের উচিত তাদের বিরোধ শান্তিপূর্ণভাবে সমাধান করা।

ইসরায়েল এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত আগমী ১৫ সেপ্টেম্বর হোয়াইট হাউস সম্পর্ক স্বাভাবিক করার জন্য একটি ঐতিহাসিক চুক্তিতে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাক্ষর করতে যাচ্ছে। এই উপলক্ষে ইসরায়েলি কর্মকর্তারা সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং ভারতের সাথে ত্রিপক্ষীয় সহযোগিতার প্রস্তাব দিয়েছেন। ইসরায়েলের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এশিয়া-প্যাসিফিক বিভাগের উপ-মহাপরিচালক গিলাদ কোহেন এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানিয়ে বলেছেন, ‘আমরা ভারত সরকারের সাথে কৃষি, প্রযুক্তি এবং পানি বন্টনের মতো ক্ষেত্রে ত্রিপক্ষীয় সহযোগিতা নিয়ে কথা বলছি। তিনটি দেশ একত্রে কাজ করলে সবাই লাভবান হবে।’

মিশর (১৯৭৯) ও জর্ডানের (১৯৯৪) পর তৃতীয় আরব দেশ ও প্রথম উপসাগরীয় দেশ হিসাবে ইসরায়েলের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। এর পরেই গত শুক্রবার প্রথম মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ হিসাবে ইসরায়েলের দখলকৃত জেরুজালেমে দূতাবাস খুলেছে কসোভো।

ভারতের সাথে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির (এফটিএ) জোরদার করার বিষয়ে কোহেন বলেছেন, ‘আমরা এশিয়া প্যাসিফিকে আমাদের অংশীদারদেরকে ভারতে বিনিয়োগ এবং আমাদের সাথে আমদানি-রফতানি করতে উৎসাহিত করার চেষ্টা করছি। কোরিয়ার সাথে এফটিএ চুক্তি শীঘ্রই হচ্ছে, চীন এবং ভিয়েতনামের সাথেও বিষয়টি অনেক এগিয়ে গিয়েছে। আমরা আশা করি ভারতের সাথেও মনোনীত বাণিজ্য চুক্তির জন্য এফটিএ হবে।’

নিম্ন শুল্কের হারের বিষয়ে কোহেন বলেছিলেন, ‘সর্বাধিক উন্নত এফটিএ কোরিয়ার সাথে রয়েছে। ২০২১ সালে, আমরা চীন এবং ভিয়েতনামের দিকে নজর দিচ্ছি। ভারতের সাথে, এটি সাথে এটি প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। ভারত ও ইসরায়েলের মধ্যে ২০০ টি পণ্য গুরুত্বপূর্ণ। এগুলো নিয়ে আলোচনা চলছে। ভারতের সাথে আমাদের শুল্ক কমিয়ে আনতে হবে। আমাদের সকল ব্যবসায়ের পরিমাণ ভাল তবে আমরা আরও অনেক ভাল করতে পারি।’ প্রসঙ্গত, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ২০১৭ সালের জুলাই মাসে সর্বশেষ ইসরায়েল সফর করেছিলেন, সেটি ছিল ইসরায়েলে কোনও ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রথম সফর। পরের বছর ফেব্রুয়ারিতে তিনি একইভাবে ফিলিস্তিন সফর করেছিলেন।

এদিকে, ভারত ও চীনের সাম্প্রতিক সীমান্ত উত্তেজনা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে গিলহাদ কোহেন বলেছিলেন, ‘ভারতের সাথে আমাদের খুব ভাল সম্পর্ক রয়েছে। চীনের সাথে আমাদের সুসম্পর্ক রয়েছে। আমরা সমস্ত এশিয়ার সাথে সুসম্পর্ক রাখার চেষ্টা করি।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা আশা করি শান্তিপূর্ণ উপায়ে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা হ্রাস পাবে ও নিরসন হবে, আমরা এটাই কামনা করি।’ সূত্র: ইন্ডিয়া টুডে।



 

Show all comments
  • saif ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৪:১৬ পিএম says : 0
    তাতো হয়েই আছে এখন কেবল পর্দা উঠানোর বাকি।
    Total Reply(0) Reply
  • ash ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৬:৪৪ এএম says : 0
    HAY RE SOME BOLOD MUSLIM COUNTRY !!!!!!!!!
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইসরায়েল


আরও
আরও পড়ুন