Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ৬ কার্তিক ১৪২৭, ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

আমরা পাঁচ ভাই, বড় ভাই বাড়ীতে আছে কাম কাজ তেমন করে না। আমি প্রবাসে আছি আর আমার ছোট তিন ভাই আছে, আমি টাকা দিয়েছি কোরবানি করার জন্য। দেশে তারা বাবার নাম বলে কোরবানি দিয়েছে। এমতাবস্থায় আমার ওয়াজিব পালন হয়েছে কিনা জানালে উপকৃত হতাম?

মোবারক হোসেন
ইমেইল থেকে।

প্রকাশের সময় : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৮:৩৬ পিএম

উত্তর : যিনি নেসাব পরিমাণ অর্থের মালিক তার পক্ষ থেকে কোরবানী করা ওয়াজিব। যদি তার নামে কোরবানী করা না হয়ে থাকে তাহলে ওয়াজিব আদায় হবে না। অনেকে না বুঝে সামাজিক কারণে কিংবা শোভনীয় মনে করে পিতা মাতা বা অন্য কারও নামে কোরবানী দিয়ে দেয়। এতে মূল ব্যক্তিটির কোরবানী আদায় হয় না। ওয়াজিব কোরবানী করে বাকী নামগুলো অন্য যে কারও নামে নফল হিসাবে নির্ধারণ করা যায়। ওয়াজিবটি তো সবার আগে করতে হবে। 

উত্তর দিয়েছেন : আল্লামা মুফতি উবায়দুর রহমান খান নদভী
সূত্র : জামেউল ফাতাওয়া, ইসলামী ফিক্হ ও ফাতওয়া বিশ্বকোষ।
প্রশ্ন পাঠাতে নিচের ইমেইল ব্যবহার করুন।
[email protected]

 

ইসলামিক প্রশ্নোত্তর বিভাগে প্রশ্ন পাঠানোর ঠিকানা
[email protected]



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: কোরবানি

৩১ জুলাই, ২০২০
৩০ জুলাই, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন

প্রশ্ন : পতিতাদের জানাযার ব্যাপারে একটি মাসআলা সোশ্যাল মিডিয়ায় আসার পরে আমার মনে প্রশ্ন জেগেছে যে, বর্তমানে পতিতালয়ে অনেক নারী আছে, যারা সেচ্চায় এ কর্মে যায়না (বরং কোন প্রতারকের মাধ্যমে বিক্রি হয়ে বা অন্য কোন উপায়) আবার তারা ওখান থেকে বের হয়ে আসতেও পারেনা, কারণ তাদেরকে কঠিন বেষ্টনীর মধ্যে কড়া পাহাড়ায় রাখা হয়। এক পর্যায় কোনো উপায়ন্ত না পেয়ে এসব নারীরা পতিতাবৃত্তিতে যুক্ত হয়ে সারা জীবন এ বন্দী শিবিরে তাদের যৌবন বিলিয়ে দিতে বাধ্য হয়। এসমস্ত বন্দী পতিতা নারীদের মৃত্যুর পর জানাযার নামায পড়ার বিধান কি?

উত্তর : অবস্থাভেদে মাসআলাও ভিন্ন হয়। বাস্তবেই যাদের এমন জীবন ঈমান ও তওবার ভিত্তিতে তাদের সাথে সামাজিক আচরণও ভিন্ন হতে পারে। কিছুদিন আগে পুলিশ ও

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ