Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১২ কার্তিক ১৪২৭, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

কুড়িগ্রামে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি পানিবন্দি ৫০ হাজার মানুষ

কুড়িগ্রাম জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৯:৪৪ এএম

টানা বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে কুড়িগ্রামে সবকটি নদনদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে। টানা চতুর্থ দফা বন্যায় গত দু’দিনে জেলার প্রায় আড়াই হাজার হেক্টর আবাদি ফসল নিমজ্জিত হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় ৫০ হাজার মানুষ। সেই সাথে চলছে তীব্র ভাঙন। শুক্রবার সকালে ধরলা নদীর পানি ব্রীজ পয়েন্টে ৩১ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। এছাড়াও তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র, দুধকুমরসহ অন্যান্য নদনদীর পানিও বৃদ্ধি পেয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় ১২৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এই অবস্থা আরো ৩ থেকে ৪ দিন বিরাজ করবে বলে স্থানীয় আবহাওয়া অফিস সূত্র জানিয়েছে।

বন্যার ফলে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার মোগলবাসা, যাত্রাপুরের নুরানী মাদ্রাসা পাড়া ও হলোখানা ইউনিয়নের সারডোরে ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। ভাঙছে উলিপুরের বজরা, থেতরাই এবং নাগেশ্বরীর কালিগঞ্জ ও কচাকাটায়। তীব্র স্রোতে রৌমারীর কর্তীমারী, খেদাইমারী ও চর রাজিবপুরের কোদালকাটি এবং মোহনগঞ্জে ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। বন্যায় ডুবে গেছে গ্রামিণ সড়কও।

কুড়িগ্রামের রাজারহাট কৃষি আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল কুমার জানান, গত ২৪ ঘন্টায় কুড়িগ্রামে ১২৮মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এই অবস্থা আরো তিন/চারদিন বিরাজ করবে বলে তিনি জানান।

কুড়িগ্রাম ত্রাণ ও পূনর্বাসন কর্মকর্তা আব্দুল হাই সরকার জানান, ধরলা নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। মাঠ পর্যায়ে খোঁজ-খবর রাখতে বলা হয়েছে। এছাড়াও ভুরুঙ্গামারী উপজেলার ২টি ইউনিয়নের ৮টি ওয়ার্ড পানিবন্দী হয়েছে।

কুড়িগ্রামের পানি উন্নয়ন বোর্ডে নির্বাহী প্রকৌশলী মো: আরিফুল ইসলাম জানান, উজানে অতিবৃষ্টির কারণে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। কুড়িগ্রামের মানুষ চতুথর্ দফা বন্যার কবলে পরেছে। বিভিন্ন জায়গায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। আমরা খোঁজ খবর রাখছি। এই মূহুর্তে তীব্র স্রোতের কারণে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাচ্ছে না। পরিস্থিতি অনুকূলে আসলেই উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে ভাঙন ঠেকাতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অপরদিকে কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ড. মোস্তাফিজার রহমান জানান, গত দু’দিনে নদনদীতে পানি বৃদ্ধির ফলে ২ হাজার ১০৪ হেক্টর ফসল নিমজ্জিত হয়েছে। এরমধ্যে আমন ১৮৪০ হেক্টর, মাসকালাই ১২৭ হেক্টর, শাকসবজি ১২৭ হেক্টর ও বাদাম ১০ হেক্টর।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বন্যা

২ অক্টোবর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ