Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ১০ কার্তিক ১৪২৭, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

পচে যাচ্ছে ভারতে আটকে পড়া ১৬৫ ট্রাক পেঁয়াজ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:০০ এএম

মোদি সরকারের পেঁয়াজ রাজনীতির প্যাঁচে পড়েছে ভারতের কৃষকরাও। বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করায় ভারতের বাজারের পেঁয়াজের দাম কমে গেছে। এতে ফুঁসে উঠেছেন ভারতে কৃষকরা। তবে ঘোষণা না দিয়েই পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করায় ভারতে আটকে পড়েছে সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দর ব্যবহারকারী ব্যবসায়ীদের ১৬৫ ট্রাক পেঁয়াজ। প্রতি ট্রাক পেঁয়াজের মূল্য ১০ লাখ টাকা।
বাংলাদেশ থেকে ইলিশের প্রথম চালান কলকাতায় পৌঁছার পরই গত ১৪ সেপ্টেম্বর পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয় দেশটি। তখন থেকে সাতক্ষীরা জেলার ওপারে (ভারত) ১৬৫ ট্রাক আটকে থাকায় এখন পচনের মুখে পড়ছে বিপুল পরিমাণ পেঁয়াজ। কবে নাগাদ এসব পেঁয়াজ দেশে প্রবেশ করবে সঠিক দিনক্ষণও জানতে পারছেন না ব্যবসায়ীরা। তাছাড়া মোটা অংকের ক্ষতির মুখে পড়েছেন আমদানিকারকরা।

জানতে চাইলে ভোমরা বন্দরের রাজস্ব কর্মকর্তা মহসিন হোসেন জানান, কত ট্রাক পেঁয়াজ ভারতে আটকা পড়েছে তার সঠিক হিসাব আমার জানা নেই। পেঁয়াজ পচনশীল দ্রব্য। পেঁয়াজের ট্রাক আটকা পড়ে থাকলে সেগুলো নষ্ট হয়ে যায়। এতে আমদানিকারক ব্যবসায়ীরা আর্থিকভাবে লোকসানের মুখে পড়বেন।
ভোমরা স্থলবন্দরের ব্যবসায়ীদের সংগঠন ভোমরা সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান নাসিম জানান, গত সোমবার ভারত হঠাৎ পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ ঘোষণা করে। কিন্তু ওই ঘোষণার আগেই ১৬৫ ট্রাক পেঁয়াজ ভারত থেকে এলসি করা ছিল ভোমরা বন্দরের ব্যবসায়ীদের। এসব পেঁয়াজের ট্রাকগুলোর ডকুমেন্ট পাস করা রয়েছে। জেনেছি আগের এলসি করা পেঁয়াজের ট্রাকগুলো তারা ছেড়ে দেবে। তবে এখনও পর্যন্ত ছাড়েনি বা কোনো সুরহা হয়নি। তাছাড়া ভারতের পেঁয়াজ রফতানি ম‚ল্য নির্ধারণকারী প্রতিষ্ঠান ন্যাপেট ৩০০ ডলারের পরিবর্তে প্রতিটন পেঁয়াজের রফতানি মূল্য নির্ধারণ করেছে ৭০০ ডলার।

ভোমরা স্থলবন্দরের ব্যবসায়ীরা জানান, আটকা পড়া প্রতি ট্রাক পেঁয়াজের ম‚ল্য ১০ লাখ টাকা। গত সোমবার থেকে ভোমরা বন্দরের বিপরীতে ভারতের ঘোজাডাঙা সীমান্তে পেঁয়াজভর্তি ট্রাকগুলো আটকে থাকায় পেঁয়াজ নষ্ট হতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে অর্ধেক পেঁয়াজ নষ্ট হয়ে গেছে। তাছাড়া আগামী রোববার বা সোমবার ট্রাকগুলো দেশে ঢুকলেও অর্ধেকের বেশি পেঁয়াজ আর খাওয়ার উপযুক্ত থাকবে না। এতে প্রতি ট্রাকে ব্যবসায়ীদের ৫-৬ লাখ টাকার লোকসান হবে। সব মিলিয়ে ব্যবসায়ীদের ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে ৯ কোটি ৯০ লাখ টাকারও বেশি।



 

Show all comments
  • N Islam ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৯:২৪ এএম says : 0
    এই পঁচা পিয়াজ লইয়া আমরা কি করিবো ? উহা ভারতেই ফিরাইয়া দেওয়া হউক ।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Kowaj Ali khan ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৩:৪৭ এএম says : 0
    ভারতীয় পেয়াজ খাওয়া হারাম। পাকিস্তান সময়ে ভারতীয় সব কিচু হারাম ছিলো। এখন ও বাংলাদেশের মোসলমানদের জন্য ভারতীয় সব কিচু হারাম। ইনশাআল্লাহ।
    Total Reply(0) Reply
  • abu hasan ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১০:৩৯ এএম says : 0
    মানুষের অন্তরের অন্তস্তল থেকে ইচ্ছাশক্তি উদ্গিরন করে একটা দেশের সুদূরপ্রসারী ভবিষ্যতের কথা চিন্তাভাবনা করে বাংলাদেশ স্বাধীনতার আগে থেকেই ভারত কর্তৃক বাংলাদেশের প্রতি যে মনোভাব রয়েছে তা গবেষনার মাধ্যমে দেশের কল্যানে স্থায়ীভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহন করা, যাতে অন্যের স্বার্থ রক্ষায় ও ধোকায় না পড়ে দেশের ভবিষ্যৎ মজবুত করতে কোন সমস্যায় পড়তে না হয়।
    Total Reply(0) Reply
  • abu hasan ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১০:৪১ এএম says : 0
    মানুষের অন্তরের অন্তস্তল থেকে ইচ্ছাশক্তি উদ্গিরন করে একটা দেশের সুদূরপ্রসারী ভবিষ্যতের কথা চিন্তাভাবনা করে বাংলাদেশ স্বাধীনতার আগে থেকেই ভারত কর্তৃক বাংলাদেশের প্রতি যে মনোভাব রয়েছে তা গবেষনার মাধ্যমে দেশের কল্যানে স্থায়ীভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহন করা, যাতে অন্যের স্বার্থ রক্ষায় ও ধোকায় না পড়ে দেশের ভবিষ্যৎ মজবুত করতে কোন সমস্যায় পড়তে না হয়।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Kowaj Ali khan ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৮:৪৯ এএম says : 0
    এই ব্যবসায়ীরা নাফাক কেন যে ভারত, বারমা হইতে পেয়াজ আমদানি করে।?
    Total Reply(0) Reply
  • দেশ প্রেমিক সৈনিক ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৩:২৪ পিএম says : 0
    মাননিয় শেখ হাসিনা বলেছেন গনভবনে পেয়াজ ছারা তরকারি রান্না করতে,আমরা গনভবনে থাকিনা তবে হিন্দুস্থানি পেয়াজ ছারা তরকারি রান্না করে খেতে পারি।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Shah Alam Khan ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১০:০৭ পিএম says : 0
    বাংলাদেশের আমদানীকারকদের বারটা বাজানোর জন্যে এটা ভারতের আরেক চাল। তারা যখন অনুমতি দেবে ততক্ষণে চালানের ১২ আনা পেয়াজ নষ্ট হয়েযাবে আর সেটা নিয়েই বাংলাদেশের আমদানী কারকদেরকে সন্তুষ্ট থাকতে হবে। তবে এই পচনশীলতার জন্যে যদি কোন বীমার ব্যাবস্থা থাকে এবং আমদানীকারকরা বীমা করিয়ে থাকেন তাহলে রক্ষা নয়ত চালান গায়েব......
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পেঁয়াজ

২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন