Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২০, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ২০ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

কাশ্মীরিদের বেআইনি হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার ভারতের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১১:১৬ এএম

বন্দুকযুদ্ধের নাটক সাজিয়ে নিরীহ কাশ্মীরিদের হত্যার কথা অবশেষে স্বীকার করল ভারতের সেনাবাহিনী। দেশটির সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে জম্মু-কাশ্মীরের স্থানীয় অধিবাসীদের ওপর নির্যাতন ও হত্যাকাণ্ডের অভিযোগ দীর্ঘদিনের। তবে এতদিনের অভিযোগেও তারা কখনো এসব অপরাধের স্বীকারোক্তি দেয়নি। তবে করোনা আরোপিত লকডাউনে জুলাইয়ে তিন কাশ্মীরিকে হত্যায় ক্ষমতার অপব্যবহার হয়েছে বলে স্বীকার করেছে ভারত। খবর আল জাজিরার।
গতকাল শুক্রবার ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, গত ১৮ জুলাই সেনাবাহিনী জানিয়েছিল, তারা শোপিয়ানের আমশিপোরা গ্রামে অজ্ঞাত তিন ‘বিদ্রোহীকে’ হত্যা করেছে। এখন তদন্তে দেখা গেছে, তারা রাজৌরি জেলার বাসিন্দা ছিলেন, যাদের সাজানো বন্দুকযুদ্ধে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছিল তাদের পরিবার।
ভারতীয় সেনাবাহিনীর মুখপাত্র কর্নেল রাজেশ কালিয়া বিবৃতিতে বলেন, ‘সেনা কর্তৃপক্ষের নির্দেশ অনুসারে আমশিপোরা অভিযানের বিষয়ে তদন্ত শেষ হয়েছে। তদন্তে প্রাথমিকভাবে বেশ কিছু প্রমাণ মিলেছে যাতে মনে হয়েছে, অভিযানের সময় সশস্ত্র বাহিনী বিশেষ ক্ষমতা আইনের (এএফএসপিএ) অধীনে প্রয়োগ করা ক্ষমতা মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে।’
তিনি বলেন, ‘তদন্তে প্রাথমিক প্রমাণ মিলেছে, আমশিপোরা অভিযানে নিহত তিন অপ্রমাণিত সন্ত্রাসী হলেন ইমতিয়াজ আহমেদ, আবরার আহমেদ ও মোহাম্মদ ইবরার। তারা রাজৌরি থেকে ফিরছিলেন। তাদের ডিএনএ প্রতিবেদন আসার অপেক্ষায় রয়েছে। সন্ত্রাস বা এ সম্পর্কিত কর্মকাণ্ডে তাদের যোগসূত্রের বিষয়ে পুলিশ তদন্ত করছে।’ এর আগে পুলিশের বিবৃতিতে দাবি করা হয়েছিল, ওই অভিযানে সেনা কর্মকর্তাদের ওপর গুলি চালানো হয়। এ ঘটনার কিছুদিন পরে নিহত তিন ব্যক্তির ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়ে পড়ে। সেখান থেকেই তাদের শনাক্ত করেন স্বজনেরা এবং বেআইনি হত্যাকাণ্ডের অভিযোগ করেন।
শুক্রবার ভারতীয় সেনাবাহিনী বেআইনি হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকারের পর নিহত ইবরারের চাচাতো ভাই নসিব খাতানা জানান, নিহতরা সবাই একে অপরের চাচাতো ভাই ছিলেন। তারা কাজের উদ্দেশ্যে রাজৌরি থেকে শোপিয়ান গিয়েছিলেন।
মানবাধিকার কর্মীদের দাবি, কাশ্মীরে ভারতীয় সেনারা আর্থিক সুবিধা ও মেডেলের জন্য বেসামরিক লোকদের হত্যা করে অনেক সময় ‘বিদ্রোহী’ বলে চালিয়ে দেন। আগেও এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে। ২০১০ সালের মে মাসে মাচিল এলাকায় নিয়ন্ত্রণরেখার কাছে ভারতীয় সেনারা সাজানো বন্দুকযুদ্ধে তিন বেসামরিক নাগরিককে হত্যা করেছেন, কাশ্মীর পুলিশের তদন্তে এ তথ্য বেরিয়ে আসার পর বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে উপত্যকায়। সেনারা পুরস্কারের লোভে ওই তিন নিরীহ মানুষকে হত্যা করে ‘সশস্ত্র বিদ্রোহী’র ট্যাগ লাগিয়ে দিয়েছিলেন।



 

Show all comments
  • Jack Ali ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:২৬ পিএম says : 0
    May Allah destroy Modi and his barbarian security forces by corona virus.. May Allah guide Kashmiri Muslim to Qur'an and Sunnah.. If they follow Qur'an and Sunnah then Allah will give them victory... Unfortunately majority muslims are million billion far away from Islam as such they are tortured by their own government and and also by the Kafir.
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammed Kowaj Ali khan ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:৩৭ পিএম says : 0
    ভারত একটি জঘন্য অপরাধী দেশ। যেই গোলামদেরে মোসলমানরা কত সুযোগ শুবিধা দিয়াছেন সেই গোলামরা মোসলমান হত্যা করিতেছে।
    Total Reply(0) Reply
  • Md. Shahin Waliur ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৪:০৮ পিএম says : 0
    এভাব দায়ীদের বিরুদ্ধ উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক।
    Total Reply(0) Reply
  • Abdul Matin ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৪:০৮ পিএম says : 0
    স্বীকার করছে ভালো, এবার বন্ধ করুন।
    Total Reply(0) Reply
  • Salim Ibn Hussain ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৪:০৮ পিএম says : 0
    আমাদের পুলিশ ও Rab এরকমই সাজানো হত্যাকাণ্ড করে।
    Total Reply(0) Reply
  • Muhammad Sojan Ahamed ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৪:০৮ পিএম says : 0
    ভারত সরকার কাশ্মিরে গণহত্যার চালাচ্ছে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: কাশ্মীর


আরও
আরও পড়ুন