Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ১০ কার্তিক ১৪২৭, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

গ্রেফতার তিতাসের চার প্রকৌশলীসহ ৮ জন

নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণ আরো দু’জন নিয়ে ৩৩ জনের মৃত্যু : বাকি ৪ জনও সঙ্কটাপন্ন গ্রেফতারকৃতরা ২ দিনের রিমান্ডে

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:০১ এএম

নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় তিতাস গ্যাসের চার প্রকৌশলীসহ আটজনকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি। গতকাল শনিবার সকালে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয় বলে সিআইডির ডিআইজি মাঈনুল হাসান জানিয়েছেন। বায়তুস সালাত জামে মসজিদে গ্যাসের লিকেজ থেকে বিস্ফোরণের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৩ জনে দাঁড়িয়েছে। এ ঘটনায় সর্বশেষ মারা যান ফরিদ (৫০)। গতকাল দুপুরের দিকে তার মৃত্যু হয়। এর আগে গতকাল ভোরের দিকে মারা যান আবদুল আজিজ (৪০) নামে আরো একজন। গ্রেফতারকৃত তিতাস গ্যাসের ৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে গতকাল ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাউসার আলমের আদালতে তাদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থাপিত শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়। উভয় মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন পার্থ সংকর পাল। চিকিৎসাধীন ৩ জনের অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক। দগ্ধ ব্যক্তিদের মধ্যে ৩৭ জনকে গুরুতর অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাদের মধ্যে ৩৩ জনের মৃত্যু হলো। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন একজন।

নারায়ণগঞ্জ সিআইডির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ডিআইজি মাঈনুল হাসান আরো বলেন. গ্রেফতারকৃতরা হলেন- তিতাস গ্যাস ফতুল্লা অঞ্চলের ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম (৪২), উপ-ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মাহমুদুর রহমান রাব্বী (৩৪), সহকারী প্রকৌশলী এসএম হাসান শাহরিয়ার (৩২), সহকারী প্রকৌশলী মানিক মিয়া (৩৩), সিনিয়র সুপারভাইজার মুনিবুর রহমান চৌধুরী (৫৬), সিনিয়র উন্নয়নকারী আইউব আলী (৫৮), হেল্পার হানিফ মিয়া (৪৮) ও কর্মচারী ইসমাইল প্রধান (৪৯)।

তিনি বলেন, মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় গাফলতি থাকায় সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে সাময়িক বহিষ্কৃত তিতাসের এই আট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের গ্রেফতার করা হয়েছে। বিস্ফোরণের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় তাদের গ্রেফতার দেখিয়ে পাঁচদিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়। পরে আদালত ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। মামলার তদন্তের কাজ অগ্রসর হয়েছে। তিতাসের কর্মকর্তাদের অবহেলার বিষয়টি তদন্তে উঠে এসেছে। মসজিদ কমিটির গাফলিত পাওয়া গেলে তাদেরকেও আইনের আওতায় আনা হবে। এ বিষয়ে এখনও তদন্ত চলছে।

গত ৪ সেপ্টেম্বর রাত পৌনে ৯টার দিকে এশার নামাজ চলাকালে ফতুল্লার পশ্চিম তল্লার বাইতুস সালাত জামে মসজিদে বিকট শব্দে বিস্ফোরণে অর্ধশতাধিক মানুষ অগ্নিদগ্ধ হন। ওই ঘটনায় পরদিন তিতাস, ডিপিডিসি, মসজিদ কমিটির বিরুদ্ধে ‘অবহেলাজনিত মৃত্যু সংঘটনের’ অভিযোগ এনে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ মামলা দায়ের করে, যার তদন্ত করছে সিআইডি। এঘটনায় ফায়ার সার্ভিস, জেলা প্রশাসন, তিতাস গ্যাস, ডিপিডিসি, সিটি করপোরেশন পৃথক পাঁচটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। তদন্তের মধ্যে দিয়ে ধীরে ধীরে বেরিয়ে আসতে থাকে অনিয়ম ও গাফিলতির নানা তথ্য। বিস্ফোরণের ঘটনায় তিতাস গ্যাস মসজিদের উত্তর পাশের সড়কের মাটি খুঁড়ে পরিত্যক্ত পাইপলাইনে ছয়টি ছিদ্র দেখতে পান। ছিদ্র পাওয়ার পর গত সোমবার তিতাসের চার কর্মকর্তাসহ ৮ জনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বিস্ফোরণ
আরও পড়ুন