Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২০, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ২০ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

সড়কে নিথর ৬ প্রাণ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:০০ এএম

দাঁড়ানো একটি ট্রাককে আরেকটি কাভার্ডভ্যান পেছন থেকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যাচ্ছিল। খবর পেয়ে বার আউলিয়া হাইওয়ে থানার এসআই মাহবুবুর রহমান কাভার্ডভ্যানটিকে ধাওয়া দেন। বাঁশবাড়িয়া এলাকার ইউনিটেক্স মিলের সামনে গিয়ে কাভার্ডভ্যানটিকে জব্দ করেন তিনি। এ সময় চট্টগ্রামমুখী অপর একটি ট্রাক কাভার্ডভ্যানটিকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয়। এতে কাভার্ডভ্যানের সামনে দাঁড়ানো এসআই এর মৃত্যু হয়। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে বিভিন্ন জেলায় আরো ৫ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে গাজীপুরে ২, আমতলী ও কেশবপুর ও গফরগাঁয়ের একজন করে।
সীতাকন্ডে (চট্টগ্রাম) : সীতাকুন্ডে মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় হাইওয়ের পুলিশের এক এসআই ঘটনাস্থলেই নিহত ও অপর এক সদস্য আহত হয়েছেন। গতকাল রোববার সকাল ৭টায় উপজেলার বাঁশবাড়ীয়া আর আর জুট মিলস্ নামক এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতের নাম মো. মাহবুবুর রহমান (৪৩)। তিনি বার আউলিয়া হাইওয়ে পুলিশের ফাঁড়ির সাব ইন্সপেক্টর (এসআই) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি দক্ষিণ কুমিল্লা জেলার ডুমুরিয়া এলাকার তফাজ্জল হোসেনের ছেলে। জানা যায়, উপজেলার বাঁশবাড়ীয়া ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের আরআর জুট মিলস্ নামক এলাকায় একটি ট্রাক দুর্ঘটনা কবলিত হয়। বিষয়টি শুনে দ্রুত ঘটনাস্থলে আসেন কর্তব্যরত হাইওয়ে পুলিশের এসআই মাহবুবুর রহমান ও সঙ্গীয় ফোর্স। দায়িত্বরত অবস্থায় রেকার দিয়ে ট্রাকটি সরানোর সময় হঠাৎ একই দিক থেকে আসা অপর একটি ট্রাক দুর্ঘটনা কবলিত ট্রাকটিকে সজোরে ধাক্কা দেয়। এসময় এসআই মাহবুবুর রহমান ট্রাকের নিছে চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই মৃত্যুবরণ করেন এবং অপর পুলিশ সদস্য মো. নোমান (২৮) গুরুতর আহত হন। আহত নোমানকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ঘাতক ট্রাকটি জব্দ করেছে।
গাজীপুর : গাজীপুরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতিবন্ধী শিশুসহ দু’জন নিহত ও অপর দুইজন আহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন ময়মনসিংহের নান্দাইল থানার জালুয়া বাটি সাবার এলাকার ইউনুস মিয়ার প্রতিবন্ধী ছেলে তুহিন মিয়া (১১) এবং ময়মনসিংহের ত্রিশাল থানার ঠাকুর নালা এলাকার মতিন মোল্লার ছেলে শিবলী সাদিক (৩৮)। শিবলী সাদিক প্রাণ আরএফএল কারখানায় চাকুরি করতেন। এলাকাবাসী ট্রাকটিকে আটক করে। তবে ট্রাকের চালক ও হেলপার পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার ও ট্রাকটি জব্দ করে।
এদিকে কালীগঞ্জ থানার ওসি একেএম মিজানুল হক জানান, প্রাণ আরএফএল কারখানার কর্মী শিবলী সাদিক রোববার চোখের ডাক্তার দেখিয়ে সিএনজি চালিত অটোরিক্সা যোগে ঘোড়াশাল যাচ্ছিলেন। পথে ওভারটেক করার সময় পেছন থেকে আসা একটি প্রাইভেটকারের সাথে অটোরিক্সার মৃদু ধাক্কা লাগে। ক্ষুব্ধ অটোরিক্সার চালক বেপরোয়া গতিতে প্রাইভেটকারের পিছু নেয়। পথে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সিএনজি অটোরিক্সাটি শিমুলিয়া এলাকায় টঙ্গী-নরসিংদী সড়কের নলছাটা ব্রিজের পশ্চিমে সড়কের পাশে উল্টে যায়। এতে শিবলী সাদিক ঘটনাস্থলেই নিহত ও অপর দুইজন আহত হয়।
গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) : ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় পাপিয়া (৭) সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছে। গতকাল উপজেলার ধামাইল গ্রামে মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত পাপিয়া পশ্চিম গফরগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী।
নিহত শিশুর পিতা সাইদুল মিয়া জানান, রোববার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ধামাইল পূর্বপাড়া মক্তব থেকে আরবি পড়ে বাড়ি ফেরার পথে গফরগাঁও-বরমী সড়ক পার হওয়ার সময় একটি বেপরোয়া গতির ইঞ্জিনচালিত অটোরিক্সা তার মেয়েকে চাপা দেয়। পরে এলাকাবাসী তার মেয়েকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্রেক্সে নিয়ে আসে। সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মেয়ের মৃত্যু হয়। এলাকাবাসী ঘাতক অটোরিক্সাটিকে আটক করলেও চালক পলাতক রয়েছে।
কেশবপুর : গতকাল দুপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় বাবু নামে এক কলেজ শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরো তিন জন। কেশবপুর-কলাগাছি সড়কের রামভদ্রপুর বটতলা এলাকায় দুপুরে মোটরসাইকেল ও নছিমনের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। নিহত সাইফুল্লাহ বাবু ভালুকঘর গ্রামের মজিবর রহমান সরদারের ছেলে কলেজ শিক্ষার্থী (২১)।
আমতলী (বরগুনা) : বরগুনার আমতলী উপজেলার পূর্ব চিলা গ্রামের পল্লী চিকিৎসক মো. মিজানুর রহমান সড়ক দূর্ঘটনায় আহত হয়ে গতকাল ঢাকার একটি বে-সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নিথর-৬-প্রাণ

২১ সেপ্টেম্বর, ২০২০
আরও পড়ুন