Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ৫ কার্তিক ১৪২৭, ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

করোনায় বন্ধু হয়েছিলেন মেসি-সুয়ারেজ-রাকিতিচ

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:০১ এএম

চলতি মৌসুমে ফের সেভিয়ায় যোগ দেওয়ার আগে ক্যাম্প ন্যুতে ছয় মৌসুম কাটিয়েছেন ইভান রাকিতিচ। অথচ লম্বা এ সময়ে কখনোই দলীয় অধিনায়ক লিওনেল মেসি ও আরেক সিনিয়র খেলোয়াড় লুইস সুয়ারেজের ভালো বন্ধু হতে পারেননি তিনি। এল দেসমার্কিউকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এমনটাই বলেছেন এ ক্রোয়েশিয়ান তারকা।
গুঞ্জন রয়েছে বার্সেলোনায় মেসি-সুয়ারেজের সঙ্গে সম্পর্কটা খুব একটা ভালো ছিল না রাকিতিচের। তাদের কাছ থেকে কখনোই প্রত্যাশিত সাহায্য পাননি তিনি। আর তা যে অনেকটাই সত্য তা সরাসরি জানালেন এ মিডফিল্ডার, ‘আমি আমার কথা বলছি। আমি কখনোই তাদের অন্তরঙ্গ বন্ধু ছিলাম না। ২৩/২৪ জন খেলোয়াড়ের মধ্যে এটা হওয়াও কঠিন। আমার কাছে বন্ধু ছিল আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা, (মার্ক-আন্দ্রে) টের স্টেগেন, (কেভিন-প্রিন্স) বোয়েটাং এবং গত মৌসুমে জুনিয়র ফিরপো।’ তবে লম্বা সময় এ দুই তারকার সঙ্গে খেলার কারণে তাদের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ রয়েছে রাকিতিচের, ‘তবে আমি দুই জনকেই শ্রদ্ধা করি। তারা আমার ছয় বছরের সতীর্থ ছিল এবং দলের খুব গুরুত্বপ‚র্ণ খেলোয়াড়। আমি সবসময় ভালো অনুভব করেছি এবং তাদের শ্রদ্ধা করেছি।’ তবে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে লকডাউনের সময়ে অনেকটা কাছাকাছি এসেছিলেন তারা। রাকিতিচের ভাষায়, ‘করোনাভাইরাসের লকডাউনের সময়, আমরা খুব কাছাকাছি চলে এসেছিলাম। অনেকটা প্রতিবেশীর মতো। বছরের পর বছর তারা আমার সঙ্গে যেভাবে আচরণ করেছে তাতে আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।’
সেভিয়া থেকে ২০১৪ সালে বার্সেলোনায় নাম লিখিয়েছিলেন রাকিতিচ। এরপর ছয়টি মৌসুম কাটিয়েছেন এ ক্লাবে। যদিও শেষ মৌসুমটা বাজে গিয়েছে তাদের। শিরোপা শ‚ন্য থেকেছেন। নিজেও সে অর্থে খেলার খুব বেশি সুযোগ পাননি রাকিতিচ। আর শেষ ম্যাচটা তো খুবই বাজে গিয়েছে। বায়ার্ন মিউনিখের কাছে ৮-২ গোলের ব্যবধানে বিধ্বস্ত হয় তার দল। এরপর চলতি মৌসুমে নতুন কোচ যোগ দেওয়ার পর রাকিতিচকে নতুন ক্লাব খুঁজে নেওয়ার কথা বলেন রোনাল্ড কোম্যান।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনা


আরও
আরও পড়ুন