Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ৪ কার্তিক ১৪২৭, ০২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

দর্শক ফেরার ম্যাচে উল্টো টিকিট ফেরত!

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:০৬ এএম

করোনাকাল। মাঠে গিয়ে গ্যালারিতে বসে খেলা দেখার সুযোগ নেই বললেই চলে। দু-একটি দেশে সে সুযোগ পাওয়া গেলেও দর্শক সংখ্যা বেঁধে দেওয়া হয়েছে। এমনই বেঁধে দেওয়া দর্শক নিয়ে হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেস্টে এবারের সুপার কাপটা আয়োজন করতে যাচ্ছে উয়েফা। আজ রাত একটার সেই ম্যাচের দুই দল গত মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ী বায়ার্ন মিউনিখ ও ইউরোপা লিগ চ্যাম্পিয়ন সেভিয়া সমর্থকদের জন্য ৩ হাজার করে টিকিট রেখেছিল ইউরোপিয়ান ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। টিকিট নিয়ে না ‘যুদ্ধ’ শুরু করেন বুভুক্ষু ফুটবলভক্তরা, এমনটাই ভেবেছিলেন আয়োজকেরা। কিন্তু হলো উল্টোটা। অর্ধেক টিকিটও বিক্রি হয়নি। উল্টো টিকিট কিনেও তা ফেরত দিয়েছেন বায়ার্নের ৮০০ দর্শক!
করোনাভাইরাসের ভয়েই টিকিট ফেরত দিয়েছেন এ সব ফুটবল-ভক্ত। তারা ভয় পাচ্ছেন সুপার কাপটা না করোনার ‘সুপার স্প্রেডার’ বা ছড়িয়ে দেওয়ার উপলক্ষ হয়ে যায়। ৬ হাজার টিকিট রাখলেও উয়েফা আশা করছে শেষ পর্যন্ত ১৮০০ দর্শক থাকবেন পুসকাস স্টেডিয়ামে আয়োজিত হতে যাওয়া ম্যাচে। যাদের ১৩০০ জন বায়ার্নের ও ৫০০ জন স্প্যানিশ ক্লাব সেভিয়ার। সব রকমের সুরক্ষা সতর্কতা অবলম্বন করা হবে বলে জানিয়েছে উয়েফা। তবে হাঙ্গেরিয়ান মেডিকেল চেম্বারের পরামর্শদাতা আন্দ্রাস সিসিলেক রয়টার্সকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, দর্শকের উপস্থিতিতে ম্যাচ আয়োজনে এর চেয়ে ‘খারাপ সময়’ আর হতে পারে না। কঠিন এই সময়ে আয়োজকদের এমন সিদ্ধান্ত ‘বড় বিপদ’ ডেকে আনতে পারে বলে মনে করছেন হাঙ্গেরির এই মহামারী বিশেষজ্ঞ। কারণ ইউরোপ এখন করোনাভাইরাস মহামারীর দ্বিতীয় ধাক্কা সামাল দিচ্ছে, হাঙ্গেরিতে প্রতিদিন আক্রান্ত হচ্ছে ৬০০ এর বেশি মানুষ, ‘স্টেডিয়ামে দর্শকদের আলাদা রাখা সম্ভব নয়। তারা ম্যাচের আগে-পরে জড়ো হবে...গণপরিবহন, স্টেডিয়ামের প্রবেশপথ, আসন, টয়লেট, উদযাপন; সবখানেই সংক্রমণ হওয়ার আশঙ্কা থাকছে।’
হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেস্টে করোনাসংক্রমণ আবারও বেড়েছে। প্রতি লাখে সংক্রমণ সংখ্যা আবারও ৫০ পেরিয়ে যাওয়ার পর প্রতিবেশী জার্মানি বুদাপেস্টকে ঝুঁকিপ‚র্ণ ঘোষণা করেছে। বায়ার্ন মিউনিখ যে এলাকার ক্লাব, সেই বাভারিয়ার রাজ্যপ্রধান মার্কুস সাডার যে সব দর্শক খেলা দেখতে যাচ্ছেন তাঁদের সাবধান করে দিয়েছেন, ‘সবারই যাওয়ার আগে দুবার ভাবা উচিত। যাঁরা বুদাপেস্ট থেকে ফিরবেন তাঁদের সবাইকে হয় করোনা পরীক্ষা করাতে হবে অথবা কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।’
সাডারের ভয় বুদাপেস্ট না আবার ফুটবলের ‘ইশলা’ হয়ে যায়। ইশলা অস্ট্রিয়ার একটি স্কি অবকাশ কেন্দ্র। ইউরোপে করোনা ছড়িয়ে পড়ার প্রথম দিকে সেখানে কয়েক হাজার পর্যটক করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। জার্মানির সংবাদমাধ্যমও বুদাপেস্টে দর্শকের অনুমতি দেওয়ায় সমালোচনা করছে উয়েফার। বিল্ড লিখেছে ‘সুপার কাপ কি সুপার স্প্রেডার কাপ হবে?’ তবে বায়ার্ন মিউনিখ ও সেভিয়া দুই ক্লাবই যারা খেলা দেখতে যাবেন তাঁদের আসা-যাওয়ার আগে করোনাপরীক্ষা করানোর প্রস্তাব দিয়েছে। এর আগে গত সপ্তাহে মিউনিখের মেয়র বুন্দেসলিগায় বায়ার্নের ম্যাচে আংশিক দর্শক ফেরানোর পরিকল্পনা বাতিল করে দেন।
গতকাল দুঃসংবাদ পেয়েছেন ইংল্যান্ডের ফুটবল ভক্তরাও। আগামী ১ অক্টোবর থেকে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে দর্শক ফেরানোর পরিকল্পনা করেছিল দেশটির ফুটবল সংশ্লিষ্টরা। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলে দিয়েছেন ওই পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হচ্ছে না আপাতত। দেশটিতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়াতেই দর্শক ফেরানোর অনুমতি দেয়নি সরকার। এদিন আরও কিছু বিধি-নিষেধ ঘোষণা করেন তিনি, ‘আমরা ১ অক্টোবর থেকে এটা (মাঠে দর্শক ফেরানোর পরিকল্পনা) কার্যকর করতে পারব না। আমাদের স্পোর্টস ক্লাবগুলির জন্য এর প্রভাব সম্পর্কে আমি অবগত।’
গত মার্চ থেকে এই মহামারীর প্রকোপে কয়েক মাস বন্ধ ছিল বিশ্বের সব ধরনের খেলাধুলা। এরপর ধীরে ধীরে ফেরানো হয়েছে খেলা। ইংল্যান্ডও সেই পথে হেঁটেছে। তবে যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আবারও বাড়তে শুরু করেছে। দেশটিতে চার লাখ ছাড়িয়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। গতপরশু নতুন রোগীর সংখ্যা প্রায় ৫ হাজার।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফুটবল


আরও
আরও পড়ুন