Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ৪ কার্তিক ১৪২৭, ০২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

করোনা সংকটের মধ্যে পেয়াজের পরে চাল ও ভোজ্য তেলের মূল্য বৃদ্ধিতে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ হতাশ ও ক্ষুব্ধ

বরিশাল ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৭:৫৫ পিএম

পেয়াজের ঝাঁঝ দক্ষিণাঞ্চলের চাল সহ ভোজ্য তেলের বাজারেও পড়তে শুরু করেছে। রসুন আর আদার দাম আগে থেকেই বেশী। করোনা সংকটের মধ্যে প্রতিনিয়ত এসব নিত্য-পণ্যের মূল্য বৃদ্ধির কারনে নাকাল হচ্ছেন দক্ষিণাঞ্চলের সাধারন মানুষ। তবে পরিস্থতি নিয়ন্ত্রনে তেমন কোন প্রশাসনিক উদ্যোগও লক্ষনীয় নয়। এখনো টিসিবি দক্ষিণাঞ্চলের ৬টি জেলা ও ৪২ উপজেলা সহ বরিশাল মহানগরীতে পেয়াঁজ, ভোজ্যতেল, চিনি ও মুসর ডাল বিক্রীর গাড়ীর সংখ্যা ২০টি অতিক্রম করতে পরেনি।
দেশী পেয়াঁজের বাজার এখনো দক্ষিণাঞ্চলে ৮০ টাকায়ই দাড়িয়ে আছে। আমদানীকরা ভারতীয় পেয়াঁজ ৭৫ টাকা কেজি বিক্রী হলেও তার অন্তত ২০ ভাগই পঁচা। ভারত থেকে পেঁয়াজ রপ্তানী বন্ধের পরে বাজারের উর্ধমূূখী তৎপড়তা নিয়ন্ত্রনে যেসব প্রশাসনিক তৎপড়তা লক্ষ করা গিয়েছিল, তা স্তিমিত হয়ে গেছে ইতোমধ্যে। এরই মধ্যে গত এক সপ্তাহে চালের দাম বেড়েছে কেজি প্রতি ৩ থেকে পাঁচ টাকা পর্যন্ত। বরিশাল সহ দক্ষিণাঞ্চলের বাজারে এখন সর্বনি¤œ মানের চাল বিক্রী হচ্ছে ৪০Ñ৪২ টাকা কেজি। আর মধ্যম-ভাল মানের মিনিকেট চাল ৫৬Ñ৫৮ টাকা। পেয়াঁজ আর চালের পরে আরেক অত্যাবশ্যকীয় নিত্যপণ্য ভোজ্য তেলের দামও বেড়েছে। সুপার সয়াবিন ও সয়াবিন তেলের দাম প্রতি লিটারে ১০ টাকা পর্যন্ত বেড়ে ৯০ টাকা থেকে ১শ টাকায় বিক্রী হচ্ছে।
টিসিবি বরিশাল মহানগরীতে ৫টি সহ দক্ষিণাঞ্চলের ছয় জেলা ও ৪২টি উপজেলায় অতি সিমিতাকারে কিছু পেয়ঁাঁজ, সয়াবিন তেল, চিনি ও মুসুর ডাল বিক্রী করলেও তা বাজরে কোন ইতিবাচক প্রভাব ফেলছে না। ‘মজুদ পর্যাপ্ত, পেয়াঁজের কোন ঘাটতি নেই’ বলে দাবী করা হলেও মাথাপিছু ১ কেজির বেশী পেয়াজ বিক্রী করছে না রাষ্ট্রীয় এ বানিজ্য সংস্থাটি। ফলে এক কেজি পেয়াঁজ কেনার জন্য টিসিবি’র পীক আপের পেছনে লইনে দাড়াতে অনেকেরই আগ্রহ নেই। এতেকরে বাজারে কোন প্রভাব ফেলছে না সরকারী এ পেয়াঁজ বিক্রী কার্যক্রম।
করোনা সংকটে গত ছয় মাস ধরে দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনৈতিক দুরবস্থার মধ্যে চাল, ভোজ্য তেল আর পেয়াঁজের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধি সাধারন মানুষের দূর্ভোগকে যথেষ্ঠ বাড়িয়ে তুলেছে। বিষয়টি নিয়ে যার সাথেই কথা হয়েছে সকলেই হতাশ ও ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন