Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ১০ কার্তিক ১৪২৭, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

শহীদ জিয়ার বিরুদ্ধে অপপ্রচারে জনগণ বিভ্রান্ত হবে না

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:০৭ এএম

জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থা-জাসাসের নেতৃবৃন্দ বলেছেন, শহীদ জিয়ার বিরুদ্ধে অপপ্রচারে দেশের জনগণ বিভ্রান্ত হবে না। ক্ষমতাসীন আওয়ামী নাৎসীবাদের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সাঙ্গ-পাঙ্গরা কুৎসিত মনোবৃত্তি নিয়ে মাঠে নেমেছে। জাসাসের জাতীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ড. মামুন আহমেদ এবং সাধারণ সম্পাদক চিত্রনায়ক হেলাল খান গতকাল এক বিবৃতিতে এর নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। বিবৃতিতে তারা বলেন, ‘মহান স্বাধীনতার ঘোষক, বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক প্রেসিডেন্ট শহীদ জিয়াউর রহমান বীর উত্তম-কে নিয়ে মান্নান হীরার রচনা ও পরিচালনায় ‘ইনডেমনিটি’ নাটকটি সভ্য সংস্কৃতি বিবর্জিত নাটক, মিথ্যা ও কাল্পনিক তথ্য নির্ভর। এটি সুপরিকল্পিত অপপ্রচার।’

এই নাটকের সাথে সংশ্লিষ্টদের প্রতি ঘৃনা, নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে জাসাস নেতৃদ্বয় বলেন, মান্নান হীরার তৈরী করা নাটকটি মূলতঃ ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর রাষ্ট্রপতি খোন্দকার মোস্তাক আহমেদ-এর জারি করা ইনডেমনিটি অধ্যাদেশটিকে বিকৃত করে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বীর উত্তম-এর নাম যুক্ত করে উপস্থাপন করা হয়েছে। অবিলম্বে নাটক বন্ধসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গের শাস্তির দাবি জানিয়েছে জাসাস। নেতৃদ্বয় আরও বলেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট শহীদ জিয়াউর রহমান এমন একটি প্রতিষ্ঠান যেখানে কোন নাটক কিংবা সাইনবোর্ড পরিবর্তন করে বাংলাদেশের জনগণের হৃদয় থেকে তার নাম মুছে ফেলা কোনক্রমেই সম্ভব নয়। এই সকল নাটক বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার শহীদ জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে পরিকল্পিত গভীর ষড়যন্ত্রেরই অংশ। এই সকল অপকর্ম করে শহীদ জিয়াউর রহমানকে ছোট কিংবা হেয় প্রতিপন্ন করা যাবে না। শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বীর উত্তম বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের বীর সেনানী, তিনি বাংলাদেশের জনগণের হৃদয়ে আছেন এবং চিরকাল থাকবেন।

ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি’র সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকের নিন্দা ও প্রতিবাদ এক বিবৃতিতে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সভাপতি এম এ কাইয়ুম এবং ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এ এফ এম আব্দুল আলীম নকী বলেছেন, বাংলাদেশ নামক স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্রটি এখন আওয়ামী নাৎসীবাদের কবলে হাবুডুবু খাচ্ছে। আমরা আওয়ামী ফ্যাসিবাদী শাসন কর্তৃক ইতিহাস বিকৃতির এক চরম নোংরামি দেখতে পাচ্ছি। যারা মহান স্বাধীনতার ঘোষক, বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক রাষ্ট্রপতি শহীদ জিয়াউর রহমান বীর উত্তম-কে নিয়ে ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় ‘ইনডেমনিটি’ নাটকের মাধ্যমে সভ্য সংস্কৃতি বিবর্জিত নাটক মঞ্চস্থ করতে যাচ্ছে সেটি নিঃসন্দেহে সুপরিকল্পিত। নেতৃদ্বয় এই নাটকের সাথে সংশ্লিষ্টদের প্রতি ঘৃনা, নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। তারা অবিলম্বে নাটক বন্ধসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গের শাস্তির দাবি জানান।
এই ঘৃন্য ইতিহাস বিকৃতির প্রতিবাদে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি এবং সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে আগামী ১ অক্টোবর সকাল ১১.০০ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে প্রতিবাদ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবে।



 

Show all comments
  • Mohammed Shah Alam Khan ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৯:৫২ পিএম says : 0
    ইনডেমনিটি নাটক একটা জীবন্ত সত্য ঘটনার ভিত্তিতে রচিত একটি নাটক। তাছাড়া বঙ্গবন্ধুর হত্যা মামলা চলাকালে বিভিন্ন সাক্ষীদের সাক্ষ প্রমাণাদি থেকে জানা গেছে সেই সময়ে জিয়া মিয়ার হত্যার সাথে জড়িত থাকার বিভিন্ন কর্মকাণ্ড। কিন্তু যেহেতু মৃত্যু ব্যাক্তির বিচার হয়না সেহেতু বিচারের রায়ে জিয়া মিয়া নেই তবে সাক্ষিদের রেকর্ডে জিয়া মিয়া ও খন্দকার মোশতাকের নাম রয়েগেছে। এখন ইনডেমনিটি আইন পাশ হয়েছিল জিয়া মিয়ার মাধ্যমে কাজেই এই নাটক যখন মঞ্চস্থ হবে তখন জিয়া মিয়ার কর্মকাণ্ড সেখানে প্রকাশিত হবে এটাই সত্য। আজ যদি কেহ ইতিহাস বিকৃত করে ভিন্ন কথা বলতে চায় সেটা জনগণ মেনে নিবে না। ইতিহাস কথা বলে এটাই সত্য। তাই বঙ্গবন্ধুর হত্যার ইতিহাস থেকে জিয়া মিয়ার রক্ষা নেই। জিয়া মিয়া মাঠে যুদ্ধ করে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা নন কলকাতায় অবস্থান করে সেক্টর কমান্ডার হয়ে সেখান থেকেই নেতৃত্ব দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা হয়েছেন এটাও সত্য। তবে জিয়া মিয়া খালেদা বিবির কারনে বঙ্গবন্ধুর নিকটে যেতে পেরেই এত তগমা লাগাতে পেরেছিলেন। জিয়া মিয়া আসোলে পাকিদের লোক তাই বঙ্গবন্ধুর নিকটের লোক হয়েই তাঁকে হত্যার ষড়যন্ত্র করতে পেরেছিলেন এবং সফল হয়েছিলেন। আল্লাহ্‌ ন্যায় বিচারক কাজেই দেরীতে হলেও ন্যায় বিচার জনগণ একদিন দেখতে পাবে। আমিন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: শহীদ-জিয়া
আরও পড়ুন