Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

এমসি কলেজই দেশের প্রকৃত চিত্র

সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:০০ এএম

সিলেটের এমসি কলেজের ঘটনাকে অত্যন্ত ভয়ঙ্কর ও ভয়াবহ বলে উল্লেখ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, এমসি কলেজের ঘটনাই হচ্ছে দেশের প্রকৃত চিত্র। এখানে কারো কোনো নিরাপত্তা নেই। এখানে একটা ল‘লেসনেস চলছে, নৈরাজ্য চলছে এবং সেটা আওয়ামী লীগের সৃষ্ট। গতকাল রোববার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

এমসি কলেজে ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত ছাত্রলীগের দুস্কৃতিকারীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করে তাদেরকে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, স্বাধীনতার প্রায় ৫০ বছর হতে যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত দেশে আওয়ামী লীগ যখনই ক্ষমতায় এসছে তখনই এই ধরনের নৈরাজ্য বৃদ্ধি পেয়েছে এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবণতি হয়েছে। এই আওয়ামী লীগ একটা ব্যাপারে সফল হয়েছে যে তারা সারাদেশের সকল মানুষের মধ্যে একটা ত্রাস সৃষ্টি করতে পেরেছে, একটা ভয়-ভীতি সৃষ্টি করতে পেরেছে।

তিনি বলেন, সমাজের প্রত্যেকটা স্তরে একটা নিরাপত্তার অভাব বোধ করা, ভয়-ভীতি কাজ করা এবং এক সময় যারা উচ্চ কন্ঠ ছিলেন মানুষের দাবি-দাওয়া, সমস্যা নিয়ে কথা বলতেন তারাও এখন কথা বলছেন না। সাংবাদিকরা কথা বলেননি এরকম আমরা কখনো দেখিনি। এখন সাংবাদিকরা বাধ্য হয়ে কী করছে? বিএনপিকে খুঁজে বেড়াচ্ছে, বিএনপির কোথায় কি ত্রæটি আছে সেগুলো দেখে বেড়াচ্ছেন এবং সেগুলো বের করে করে সামনে আনছেন। উপায় তো নেই। কারণ আপনাদেরকে ওই কাজ দেয়া হচ্ছে, আপনাদের বলা হচ্ছে না হলে আপনাদের চাকরি থাকবে না- এই সমস্ত সমস্যা সৃষ্টি করা হচ্ছে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, যে সরকার রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব জোর করে নিয়েছে এবং যারা পুলিশকে ব্যবহার করেছে তাদের অপকর্মগুলোতে। পুলিশ তো সোজা বলে, আওয়ামী লীগের নেতাদেরকেই বলে যে, তোমরা করা? ক্ষমতায় তো আমরা আনছি। পরিস্কার করে বলে এবং কোনো রকম বাদ-বিচার নেই। জেলা শহরগুলোর আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক মিটিংয়ে এসপি যে বক্তব্য রাখে সেটা বক্তব্য আওয়ামী লীগের নেতার চাইতে ১০ গুণ বেশি। সে নিজেই গণতন্ত্রকে রক্ষা করেছে ২০১৪, ২০১৮ সালে। ওরাই তো প্রধান। হু আর ইউ, তোমরা কী করেছো। দ্যা (সরকার) হ্যাব লস কট্রোল। কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করবে। এটা তো পলিটিক্যাল গভর্নমেন্ট নয়, ব্যাঙ্কক্রাফট ওরা।

প্রবাসীদেরে ফেরা নিয়ে সরকার ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে অভিযোগ করে মির্জা ফখরুল বলেন, তাদেরকে (প্রবাসীদের) আসার সময়ে যে সুরক্ষা দেয়ার কথা ছিলো সেটা দেয়া হয়নি। পরে অর্থনৈতিক যে প্রণোদনা দেয়ার কথা ছিলো সেটা দেয়া হয়নি। ফলে অনেকেই ঋণগ্রস্থ হয়ে পড়েছে। প্রবাসীদের ফিরে যাওয়ার ব্যাপারেও যেটা আগে থেকে বুঝা উচিত ছিলো সরকারের, সেটা তারা করেনি। এমন একটা সময় যেখানে আমার প্রবাসীদের জীবিকা বিপন্ন হবে এবং দেশের রেমিটেন্স বিপন্ন হয়ে যাবে। এগুলোতে আাগে থেকেই সরকারকে বুঝতে হবে- এই সমস্যাগুলো হতে পারে।

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যাকান্ড প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আজকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সরকারি দলের সঙ্গে এক হয়ে অপরাধগুলো করছে। কিছুদিন আগে কক্সবাজারের মেরিনডাইভে অন দ্যা স্পট একজন অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (মেজর সিনহা) হত্যা করা হয়েছে। কক্সবাজার থেকে প্রায় সকল পুলিশ সদস্যকে বদলি করে দিয়ে আজকে প্রমাণিত যে, কক্সবাজারে এতোদিন ধরে যে ক্রসফায়ারগুলো হয়েছে, বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডগুলো হয়েছে প্রায় ২‘শ উপরে-এগুলোর পরিকল্পিতভাবেই হয়েছে এবং তাদের পেছনে সর্বোচ্চ পর্যায়ের মদদ ছিলো।

বিনামূল্যে ভ্যাকসিন দেয়ার আহবান জানিয়ে বিএনপির এই নেতা বলেন, বিএনপি মনে করে, ভ্যাকসিন সংগ্রহ ও বিতরণের ক্ষেত্রে কোনো রকম রাজনৈতিক, কুটনৈতিক ও বানিজ্যিক স্বার্থও যেন সাধারণ মানুষের ভ্যাকসিন প্রাপ্তিতে কোনো ব্যাঘাত না ঘটায় সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকলকে দায়িত্বশীল ভুমিকা পালনের আহবান জানিয়েছে স্থায়ী কমিটি। জনগণ যেন কোনো ব্যয় ব্যতিরেখে এই ভ্যাকসিন পেতে পারে তার ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের প্রতি সভা থেকে আহবান জানানো হয়।

স্থায়ী কমিটির সভায় পাবনা-৪ আসনের উপ-নির্বাচন বাতিল করে পুনঃনির্বাচনের দাবি ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের চরিত্র ও ভাবমূর্তি হননে কথিত ‘ইনডেমনিটি’ নাটক তৈরি করে সরকারের ইতিহাস বিকৃতি করার ঘটনার নিন্দা জানানো হয়।#



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মির্জা ফখরুল


আরও
আরও পড়ুন