Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

আবারো আয়কর ফাঁকির অভিযোগ ট্রাম্পের বিরুদ্ধে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:২১ পিএম

‘ব্যবসায় লাভই হচ্ছে না’ এই অজুহাতে ক্রমাগত আয়কর ফাঁকি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নিউইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। তবে এই অভিযোগ যথারীতি এবারও উড়িয়ে দিয়েছেন ট্রাম্প। খবর বিবিসির।
মার্কিন সংবাদমাধ্যমটির দাবি, ২০১৬ সালে যে বছর মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছিলেন ট্রাম্প, সে বছর মাত্র ৭৫০ মার্কিন ডলার ফেডারেল আয়কর দিয়েছিলেন তিনি। ২০১৭ সালেও একই অঙ্কের কর মিটিয়েছেন ট্রাম্প। এমনকি, গত ১৫ বছরের মধ্যে ১০ বছর তো তিনি কোনও আয়করই দেননি বলে দাবি করেছে ওই সংবাদমাধ্যম। প্রতি বছরই ট্রাম্প দাবি করেছেন, ব্যবসায় লাভের চেয়ে বেশি ক্ষতি হচ্ছে। অথচ ওই সংবাদ মাধ্যমের তদন্ত রিপোর্ট বলছে অন্য কথা।
প্রসঙ্গত, ২০১৬ থেকেই তাঁর বিরুদ্ধে কর ফাঁকির অভিযোগ উঠেছে বারবার। কারণ, তিনি কত টাকা কর দেন, সে বিষয়টি প্রকাশ করতে চাননি ডোনাল্ড ট্রাম্প
নিউইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, ট্রাম্প এবং তাঁর বিভিন্ন কোম্পানির দুই দশকের বেশি সময়ের কর দেওয়ার রেকর্ড তাদের হাতে এসেছে। অভিযোগ উঠেছে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প গত ১৫ বছরের মধ্যে ১০ বছর মোটেও কোনো আয়কর দেননি। প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘নিজের কোম্পানিগুলোর বারবার লোকসান দেখিয়েছেন এবং বছরের পর বছর ধরে আয়কর এড়িয়েছেন। তবে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এই প্রতিবেদনকে ‘ভুয়া খবর’ বলে মন্তব্য করেছেন।
ট্রাম্প বলেছেন, ‘আমি আসলে কর দিয়েছি। আমার ট্যাক্স রিটার্ন দেখলেই এটি বুঝতে পারবেন। এটার অডিট চলছে এখন। অনেকদিন ধরেই এর অডিট চলছে।’ গতকাল রোববার (২৭ সেপ্টেম্বর) এ প্রতিবেদন প্রকাশের পর ট্রাম্প সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।
এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় সরকারের আয়কর পরিসেবা প্রতিষ্ঠান ইন্টারনাল রেভিনিউ সার্ভিসকে (আইআরএস) অভিযুক্ত করে ট্রাম্প বলেছেন, ‘আইআরএসের লোকজন আমাকে ভালো চোখে দেখে না। তারা আমাকে খুব খারাপভাবে দেখে। সেখানে অনেকের লোক আছে। তারা আমাকে খুব খারাপভাবে দেখে।’
নিউইয়র্ক টাইমস বলেছে, তারা এমন উৎস থেকেই ট্রাম্পের কর সংক্রান্ত তথ্য পেয়েছে যেখানে বৈধ পথে তথ্য পাওয়ার সুযোগ আছে।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১৯৯০ এর দশক থেকে তারা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ও তাঁর মালিকানাধীন কোম্পানিগুলোর আয়কর নিরীক্ষা করেছে। এর পাশাপাশি ২০১৬ এবং ২০১৭ সালে ট্রাম্পের ব্যক্তিগত আয়করের প্রতিবেদনও তাঁরা পেয়েছেন। সেখানে দেখা গেছে, দুই বছরে প্রেসিডেন্ট মাত্র ৭৫০ ডলার করে কর দিয়েছেন। গত ১৫ বছরের মধ্যে কার্যত ১০ বছরই তিনি কোনো আয়কর দেননি। আয়ের চেয়ে লোকসানের পরিমাণ বেশি হওয়াকে এর কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন ট্রাম্প।
প্রেসিডেন্ট হওয়ার আগে রীতিমতো একজন তারকা ব্যবসায়ী হিসেবে খ্যাতি ছিল ট্রাম্পের। আবাসন খাতের শীর্ষ ব্যবসায়ী হিসেবেও তাঁকে তুলে ধরা হয় সে সময়। কিন্তু আইআরএসের উপাত্ত তুলে ধরে নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদন বলছে, তিনি কোটি কোটি ডলার আয় করেছেন। তার চেয়ে লোকসানের পরিমাণ বেশি দেখিয়েছেন শুধু কর ফাঁকি দেওয়ার জন্য।
ট্রাম্প তাঁর জমা দেওয়া নথিতে উল্লেখ করেছেন যে, ২০১৮ সালে তিনি অন্তত ৪৩৪ দশমিক ৯ মিলিয়ন ডলার আয় করেছেন। কিন্তু সংবাদপত্রটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ট্রাম্পের আয়কর রিটার্নের নথি বলছে তিনি সেখানে ৪৭ দশমিক ৪ মিলিয়ন ডলার লোকসান দেখিয়েছেন। খবর বিবিসি, নিউইয়র্ক টাইমস



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ট্রাম্প

২৫ অক্টোবর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ