Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ৬ কার্তিক ১৪২৭, ০৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ক্রমবর্ধমান ইসলামফোবিয়ার বিষয়ে জাতিসংঘে ইমরান খানের হুঁশিয়ারি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৩:২১ পিএম

জাতিসংঘের ৭৫তম অধিবেষনে শুক্রবার দেয়া ভাষণে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান ক্রমবর্ধমান ধর্মীয় বিদ্বেষ, জাতীয়তাবাদ বৃদ্ধি এবং বিশ্বব্যাপী উত্তেজনা আরও বাড়ানোর বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তিনি সাধারণ অধিবেশনে একটি দিনকে আন্তর্জাতিকভাবে ‘ইসলামোফোবিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই দিবস’ হিসাবে ঘোষণার আহ্বান জানান।

ইমরান খান বলেন, ‘ইচ্ছাকৃত উস্কানিমূলক’ এবং ‘ঘৃণা প্রচারণা’ অবশ্যই সর্বজনীনভাবে বেআইনী হওয়া উচিত, যে কারণগুলি ‘ইসলামফোবিয়া’ বৃদ্ধি করেছে। এর ফলে বহু দেশেই মুসলমানদের বিরুদ্ধে হামলা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী খান ভারতের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয়ভাবে ইসলামোফোবিয়াকে সমর্থন দেয়ার অভিযোগ এনে বলেন যে, সেখানে মসজিদগুলি ধ্বংস করা হয়েছে। বৈষম্যমূলক আইনের কারণে মুসলমানদের হত্যা করা হয়েছে এবং তারা জাতীয়তা হারানোর ঝুঁকিতে রয়েছে। তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাস ছড়িয়ে দেয়ার জন্য মুসলমানদের মিথ্যাভাবে দোষ দেয়া হয়েছিল, তাদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ও ঘৃণা ছড়ানো হয়েছিল। তাদের চিকিৎসার অধিকার থেকে বিরত রাখা হয়েছিল এবং অনেক সময় তাদেরকে সামাজিকভাবে আলাদাও করে দেয়া হয়েছে।’ তিনি উল্লেখ করে বলেন যে, অন্যান্য ধর্মও ভারতে প্রান্তিক হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে। তিনি আরও বলেন, আমাকে দুঃখের সঙ্গে বলতে হচ্ছে ভারত ইসলামবিদ্বেষকে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা দিচ্ছে। এর পেছনে কারণ হলো দুর্ভাগ্যজনকভাবে ভারত এখন আরএসএসের আদর্শ দ্বারা শাসিত হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে সাধারণ অধিবেশনকে কোভিড-১৯-এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে তার দেশে নিযুক্ত ‘স্মার্ট লকডাউন’ সম্পর্কে অবহিত করেছিলেন। তিনি বলেন, ‘আমরা ভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণ ও আমাদের অর্থনীতিকে স্থিতিশীল করতে সক্ষম হয়েছি। তবে সবচেয়ে বড় কথা, আমরা আমাদের সমাজের দরিদ্রতম অংশটিকে লকডাউনের সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতির হাত থেকে রক্ষা করতে পেরেছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘সাফল্যের পরেও, বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো পাকিস্তান এখনও বিপদের বাইরে নেই।’ তিনি মনে করিয়ে দেন যে, মানবতার ‘একতা’ দিয়ে আন্তঃসংযুক্ত বিশ্বে ‘সবাই নিরাপদ না হলে কেউই নিরাপদ নয়।’

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে উত্থাপিত হুমকির পুনরাবৃত্তি করে প্রধানমন্ত্রী খান বিশ্বনেতাদের কাছে আবহাওয়া পরিবর্তন সম্পর্কিত প্যারিস চুক্তিতে যে সমস্ত প্রতিশ্রুতি রয়েছে তা পূরণ করার তাগিদ জানান। কার্বন নিঃসরণে পাকিস্তানের অবদান ন্যূনতম হলেও জলবায়ু সংকটে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ দেশগুলির মধ্যে এটি অন্যতম। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব কমাতে তার প্রচেষ্টার অংশ হিসাবে, তার দেশ আগামী তিন বছরে ১০ বিলিয়ন গাছ লাগাবে বলে জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী খান জোর দিয়ে বলেন, দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলে টেকসই শান্তির জন্য, আন্তর্জাতিক বৈধতার ভিত্তিতে জম্মু ও কাশ্মীর বিরোধ নিষ্পত্তি করা দরকার। তিনি বলেন, ‘সুরক্ষা কাউন্সিলকে অবশ্যই বিপর্যয়কর সংঘাত রোধ করতে হবে এবং পূর্ব তিমুরের মতো তার নিজস্ব রেজোলিউশনগুলি কার্যকর করতে হবে।’ তিনি জাতিসংঘকে ‘যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ’ করার আহ্বান জানিয়েছিলেন।

তিনি এই মাসের শুরুর দিকে শুরু হওয়া আন্তঃ-আফগান আলোচনার বিষয়টিও উল্লেখ করেছিলেন এবং বলেছিলেন যে, পাকিস্তানে আশ্রয় নেয়া আফগান শরণার্থীদের দ্রুত ফিরিয়ে নেয়া অবশ্যই রাজনৈতিক সমাধানের অংশ হতে হবে। বক্তব্যে শেষে প্রধানমন্ত্রী খান জাতিসংঘের মহাসচিবকে বৈশ্বিক বিরোধ রোধে নেতৃত্বের প্রতি আহ্বান জানান। সে লক্ষ্যে তিনি আঞ্চলিক হট স্পটগুলিকে মোকাবিলা করতে এবং দেশগুলোর মধ্যে বিরোধ নিষ্পত্তি করতে শীর্ষ সম্মেলনের আহ্বান জানান। সূত্র: ইউএন নিউজ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইমরান খান


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ