Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারি ২০২১, ০৭ মাঘ ১৪২৭, ০৭ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

চট্টগ্রামে বেড়াতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার কিশোরী

চট্টগ্রাম ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:০৪ এএম

ফেনী থেকে চট্টগ্রাম বেড়াতে এসে ধর্ষণের শিকার হয়েছে এক কিশোরী। পরিচয়ের সূত্র ধরে এক যুবতী তাকে বাসায় এনে কৌশলে তুলে দেন বাড়িওয়ালার হাতে। পরে তার পাহারায় কিশোরীকে ধর্ষণ করেন বাড়ির মালিক। এ ঘটনায় এক দম্পতিসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হলেও মূল ধর্ষক পলাতক রয়েছেন। নগরীর ডবলমুরিং থানার এক নম্বর সুপারিওয়ালাপাড়ায় রোববার রাতে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। পুলিশ রাতেই ওই কিশোরীর কথিত বান্ধবী নুরী আক্তার (২০) ও তার স্বামী মো. অন্তরকে (২২) গ্রেফতার করে। গতকাল সোমবার প্রধান আসামি চান্দুর সহযোগী রাজিব হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়। তবে চান্দু এখনও পলাতক রয়েছে।
ধর্ষণের শিকার ১৬ বছর বয়সী কিশোরী সপ্তাহ খানেক আগে ফেনী থেকে নগরীর আগ্রাবাদ সিডিএ আবাসিক এলাকায় চাচার বাড়িতে বেড়াতে আসে। গ্রেফতার নুরী তার চাচাত বোনের বান্ধবী। সে সুবাদে ওই কিশোরীর সাথে নুরীর পরিচয় হয়। পরিচয়ের সূত্র ধরে রোববার সন্ধ্যায় ওই কিশোরীকে নুরী চান্দুর বাড়িতে নিয়ে আসেন। চারতলা বাসার নিচতলায় নুরী ভাড়া থাকেন। পুলিশ জানায়, বাড়ির মালিকের নানা অনৈতিক কর্মকান্ডের সহযোগী নুরী। এ ধারাবাহিকতায় কৌশলে ওই কিশোরীকে তার বাসায় পাঠিয়ে দেয়। একপর্যায়ে বাড়ির বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করে দিয়ে বাড়ির মালিক তাকে ধর্ষণ করেন। আর এ সময় দরজায় দাঁড়িয়ে পাহারা দেয় নুরী।
ঘটনার পর নুরী মেয়েটিকে ঘটনা কাউকে না বলতে হুমকি দিয়ে তার চাচার বাসায় পৌঁছে দেয়। তার বিধ্বস্ত অবস্থা দেখে বাসার লোকজন জানতে চাইলে মেয়েটি পুরো ঘটনা খুলে বলে। তখন তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে নেয়া হয়। খবর পেয়ে ডবলমুরিং থানা পুলিশ ওই বাড়িতে অভিযান চালায়। তবে সেখানে কাউকে পাওয়া যায়নি। রাতে বন্দর এলাকা থেকে নূরীকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর নুরীর স্বামী অন্তরকে পাকড়াও করে পুলিশ। অন্তর নিজেকে নির্দোষ দাবি করে জানায়, এসবের সে কিছুই জানে না। মাত্র চারদিন আগে নুরীর সাথে তার বিয়ে হয়।
ডবলমুরিং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সদীপ কুমার দাশ বলেন, কিশোরীকে কৌশলে তুলে এনে বাড়ির মালিককে দিয়ে ধর্ষণের ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ অভিযানে নামে। এ ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মূল আসামি বাড়ির মালিককেও ধরতে অভিযান চলছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে বলে জানান তিনি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ধর্ষণ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ