Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ৫ কার্তিক ১৪২৭, ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

প্রশ্ন : আমার মা বৃদ্ধ হয়ে গেছেন। তার এখন বিশেষ যত্ন ও খেয়াল প্রয়োজন। কিন্তু আমার মা আমাদের সাথে থাকুক সেটা আমার স্ত্রী পছন্দ করেন না। এমতাবস্থায় এ কারণে আমি কি আমার স্ত্রীকে তালাক দিতে পারবো। ইসলাম কি বলে?

লিটন
ইমেইল থেকে।

প্রকাশের সময় : ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৭:৩৬ পিএম

উত্তর : এটি স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার মতো বড় কোনো কারণ নয়। কেননা, আপনার মায়ের সর্বোচ্চ সেবা ও তদারক করার দায়িত্ব মূলত আপনার। স্ত্রী এক্ষেত্রে আপনার সহযোগী মাত্র। ব্যক্তির সহনশীলতা, মানবিক গুণাবলী ও মায়া মমতা এসবক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অনেকে অপরিচিত. অনাত্মীয়, দুর্বল বৃদ্ধকেও সেবা করে। অনেকে আবার নিজের আত্মীয় ও আপনকেও সেভাবে সেবা করে না। অনেকটা ব্যক্তিগত রুচি, মনোভাব, সংসারের প্রতি মায়া, পরিবারের সাথে সৌহার্দ্য, স্বামী স্ত্রীর মধ্যে সম্পর্কের ধরণ, বউ শাশুড়ির ভেতরকার সমঝোতা ইত্যাদি অনেক কিছু এসব কেসে বিবেচ্য। এমন পরিস্থিতিতে যথেষ্ট নির্মোহ ও বিধিগত বিবেচনা আপনার করা উচিত। সৌজন্য ও মানবিকতা, সম্পর্ক ও দায়িত্ববোধ জাগ্রত করে স্ত্রীর সীমাবদ্ধতা ও সক্ষমতা এবং সিনিয়র সদস্যদের প্রতি তার মানসিকতা অনুযায়ী তার থেকে দায়িত্বশীলতা আশা করতে হবে। এক্ষেত্রে সম্পূর্ণ অযৌক্তিক অবহেলা ও উদাসীনতা একজন স্বামীর জন্য যদিও অনেক কষ্টের। তবে, এখানে পক্ষপাতহীন বিবেচনাও জরুরী। এ বিষয়টি সম্পূর্ণ সমঝোতার বিষয়। পারস্পরিক সম্পর্ক ও সৌহার্দ্যরে বিষয়। এখানে ব্যতিক্রম বা কম বেশী হলে শুধু এ কারণেই স্ত্রীকে তালাক দেওয়া যায় না। কেননা, স্ত্রীকে স্বাধীনভাবে আলাদা বাসস্থান ও যাবতীয় অধিকার দেওয়া স্বামীর অন্যতম কর্তব্য। আলাদাভাবে মাকে সর্বোচ্চ সেবা ও মায়া মমতা দেওয়া তার পুত্রের প্রধান কর্তব্য। পুত্রবধুর করণীয়টি এখানে সম্পূর্ণই মানবিক ও সৌজন্যমাত্র।

উত্তর দিয়েছেন : আল্লামা মুফতি উবায়দুর রহমান খান নদভী
সূত্র : জামেউল ফাতাওয়া, ইসলামী ফিক্হ ও ফাতওয়া বিশ্বকোষ।
প্রশ্ন পাঠাতে নিচের ইমেইল ব্যবহার করুন।
[email protected]

ইসলামিক প্রশ্নোত্তর বিভাগে প্রশ্ন পাঠানোর ঠিকানা
[email protected]



 

Show all comments
  • এন ইসলাম ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১:০০ এএম says : 0
    "আপনার মায়ের সর্বোচ্চ সেবা ও তদারক করার দায়িত্ব মূলত আপনার। স্ত্রী এক্ষেত্রে আপনার সহযোগী মাত্র।" - সুবহানাল্লাহ্ । অথচ আমাদের সমাজে প্রচলিত ধারনা হলো "স্ত্রীকেই শাশুড়ীর সেবা করতে হবে, যেটি সম্পূর্ণ বিধর্মী চেতনা । তারপরেও তথাকথিত বিজ্ঞানমনষ্করা (এদের বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী ছাড়া বিজ্ঞানের কোন জ্ঞান নেই) ইসলামে আধুনিকতা দেখতে পায়না ।
    Total Reply(0) Reply
  • মোহাম্মদ আব্দুস সালাম ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৮:০৩ এএম says : 0
    কথাটি সকল দিক দিয়েই বাস্তব সম্মত। তবে আমাদের দেশের আর্থ সামাজিক অবস্থান নিয়ম চলে আসছে তা থেকে বের হয়ে আসাটা অনেক ক্ষেত্রেই কঠিন। তারপরও সকলকে সবার কল্যাণের দিকপাল মেনে কিছুটা সহনীয় হওয়াটাই আমার নিকট যুক্তিযুক্ত বলে মনে করি। মনে রাখতে আজকের বউটিই কিন্তু আগামীর শাশুরী।
    Total Reply(0) Reply
  • Golam Soroar ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৬:০৪ পিএম says : 1
    স্বামীর অর্ধাঙ্গিনী যদি স্ত্রী হয়, স্ত্রী যদি স্বামীর জন্য চাদর সরুপ হয় সেক্ষেত্রে স্ত্রী যদি স্বামীর অবাধ্য হয় তাহলে স্ত্রী তালাক দেয়া বৈধ।
    Total Reply(0) Reply
  • মো:নাজমুল হোসেন ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৮:৪২ পিএম says : 0
    স্বামীর আদেশে হোক আর নিজের মানবিক দিক বিবেচনা করে হোক বউ যদি সেবা যত্ন করে আর শাশুড়ী যদি বিরুপ আচরণ করে তাহলে কি হবে
    Total Reply(0) Reply
  • Amirul Islam Akash ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৯:৪৯ এএম says : 0
    "আপনার মায়ের সর্বোচ্চ সেবা ও তদারক করার দায়িত্ব মূলত আপনার। স্ত্রী এক্ষেত্রে আপনার সহযোগী মাত্র।" কথা সত্য. কিন্তু ছেলে যখন বাসায় না থাকে অর্থাৎ কাজে যায় ,তখন বউ মায়ের সাথে খারাপ আচরণ করে, সেক্ষেত্রে করনীয় কি? ছেলে মা কে ভালোবাসে ,তার মায়ের সেবা যত্ন করে ,এটিই অনেক মেয়ে বউ হিসেবে পছন্দ করে না , বরং হিংসা করে.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: প্রশ্ন

১৬ অক্টোবর, ২০২০
৯ অক্টোবর, ২০২০
২ অক্টোবর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন

প্রশ্ন : পতিতাদের জানাযার ব্যাপারে একটি মাসআলা সোশ্যাল মিডিয়ায় আসার পরে আমার মনে প্রশ্ন জেগেছে যে, বর্তমানে পতিতালয়ে অনেক নারী আছে, যারা সেচ্চায় এ কর্মে যায়না (বরং কোন প্রতারকের মাধ্যমে বিক্রি হয়ে বা অন্য কোন উপায়) আবার তারা ওখান থেকে বের হয়ে আসতেও পারেনা, কারণ তাদেরকে কঠিন বেষ্টনীর মধ্যে কড়া পাহাড়ায় রাখা হয়। এক পর্যায় কোনো উপায়ন্ত না পেয়ে এসব নারীরা পতিতাবৃত্তিতে যুক্ত হয়ে সারা জীবন এ বন্দী শিবিরে তাদের যৌবন বিলিয়ে দিতে বাধ্য হয়। এসমস্ত বন্দী পতিতা নারীদের মৃত্যুর পর জানাযার নামায পড়ার বিধান কি?

উত্তর : অবস্থাভেদে মাসআলাও ভিন্ন হয়। বাস্তবেই যাদের এমন জীবন ঈমান ও তওবার ভিত্তিতে তাদের সাথে সামাজিক আচরণও ভিন্ন হতে পারে। কিছুদিন আগে পুলিশ ও

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ