Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ৭ কার্তিক ১৪২৭, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

বাফুফে’র সভাপতি প্রার্থী মানিকের ভিশন ২০৩৩!

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৯:০৩ পিএম

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) আসন্ন নির্বাচনে অন্যতম চমক সাবেক তারকা ফুটবলার ও কোচ শফিকুল ইসলাম মানিক। এবারের নির্বাচনে তিনি কাজী মো. সালাউদ্দিনকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে সভাপতি পদে প্রার্থী হয়েছেন। কোনো প্যানেল নয়, এককভাবেই নির্বাচন করছেন মানিক। নির্বাচনকে সামনে রেখে বাফুফের তিনবারের সভাপতি সালাউদ্দিনের ৩৬ দফার বিপরীতে মঙ্গলবার নিজের ২১ দফার ইশতেহার ঘোষণা করেন সাবেক এই ফুটবলার। এদিন রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের সামনে ইশতেহার তুলে ধরেন মানিক। যে ইশতেহারে রয়েছে ভিশন-২০৩৩! তার এই ভিশনে রয়েছে অলিম্পিক উপযোগী একটি যুব দল গঠন করা। যারা এক সময়ে অলিম্পিকে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে পারে। জাতীয় দল নিয়েও ভাবনা রয়েছে মানিকের ইশতেহারে। তিনি নির্বাচিত হলে জাতীয় দলের ফুটবলারদের বেতন কাঠামো ও বীমার ব্যবস্থা করতে চান। এ ছাড়া যেকোনো ধরনের আর্থিক অনিয়মের বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির কথা বলেছেন বাফুফের সভাপতি পদের এই প্রার্থী। নির্বাচিত হলে ঘরোয়া ফুটবলের ‘ক্যানসার’ খ্যাত পাতানো ম্যাচ চিরতরে বন্ধ করারও ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের কোচ। একই সঙ্গে ২১ দফা ইশতেহারে ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ে বাংলাদেশকে পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। মানিককে সমর্থন দিতে ইশতেহার ঘোষণা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এক সময়ের তারকা ফুটবলার তারই সতীর্থ সৈয়দ রুম্মান বিন ওয়ালী সাব্বির।

বাফুফের নির্বাচনে কাউন্সিলরদের কাছে ভোট চাওয়ার পাশাপাশি নির্বাচিত হলে ইশতেহারের প্রতিটি দফা বাস্তবায়নের ঘোষণাও দিলেন জাতীয় দলের সাবেক কোচ মানিক। সেই সঙ্গে ফুটবলে পরিবর্তনের ডাক দিয়ে নির্বাচনী লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত থাকার অঙ্গীকার করেন তিনি। ইশতেহারে তৃণমূলের ফুটবলকে প্রাধান্য দিয়েছেন মানিক। জেলা ফুটবল ও পাইওনিয়ার লিগ থেকে প্রিমিয়ার লিগ পর্যস্ত অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নিয়মিত খেলা আয়োজন করার কথা বলেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয় ফুটবল, আন্তঃস্কুল, অন্তঃকলেজ ফুটবলে নজরদারি তৈরি, প্রতিটি ক্লাবের অনুশীলন মাঠ, জাতীয় পর্যায়ে অনূর্ধ্ব-১৭ বঙ্গবন্ধু কাপ প্রতিবছর আয়োজন, অনূর্ধ্ব-২১ জাতীয় ফুটবলের নামকরণ শেখ জামালের নামে, অনূর্ধ্ব-১৯ সোহরাওয়ার্দী কাপ, শের-ই-বাংলা কাপ পূনরায় চালু, বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টকে আরো আকর্ষণীয় করার ওপর ইশতেহারে জোর দিয়েছেন শফিকুল ইসলাম মানিক।

মঙ্গলবার ইশতেহার ঘোষণা অনুষ্ঠানে মানিক বলেন, ‘অনেকে বলছেন, আমি একা। আসলে তা নয়। আমার সঙ্গে অনেক কাউন্সিলর আছেন। আমি এই অনুষ্ঠানে কাউকে আমন্ত্রণ জানাইনি। আমি শুধু গণমাধ্যমকে আমন্ত্রণ জানিয়ে আমার বার্তা সবার কাছে পৌঁছে দিচ্ছি।’

বাফুফেতে নির্বাচন করার পূর্ব পরিকল্পনা ছিল না বলে জানান এই সাবেক তারকা ফুটবলার। তার কথায়,‘অনেক দিন ধরে একজন সভাপতি নির্বাচন করবে ঘোষণা দিয়েও করেননি। আরেকজনও ঘোষণা দিয়ে করেননি। আমি কয়েকজনকে অনুরোধও করেছিলাম সভাপতি পদে নির্বাচন করতে। কেউ সাহস পাননি। এটা তো হতে পারে না। তাই আমি সভাপতি পদে প্রার্থী হয়েছি। আমি শেষ পর্যন্ত লড়াই করবো। আমার একটা নীতি আছে। তাই সরে যাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না।’

তার ইশতেহার পর্যালোচনা করে এবং দুই প্রতিপক্ষের পূর্বের কাজ মূল্যায়ন করে ভোটাররা যদি সঠিক সিদ্ধান্ত নেন তাহলে তাকেই বেছেন নেবেন বলে বিশ্বাস সাবেক এই তারকা ফুটবলারের। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘পরিবর্তন শুধু সভাপতি পদে নয়, পরিবর্তন প্রয়োজন কাজের। সেই কাজকে সফলতায় রূপ দিতে প্রয়োজন শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা কাউন্সিলরদের প্রতি আমার আস্থা রয়েছে। আমি আশাবাদী তারা আমাকেই ভোট দেবেন।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ