Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ৫ কার্তিক ১৪২৭, ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

লাদাখকে ভারতের অংশ মানে না চীন প্রতিবাদ দিল্লীর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০৩ এএম

লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা নিয়ে ফের বিতর্ক শুরু হলো ভারত এবং চীনের মধ্যে। লাদাখকে ভারতের অংশ বলে মনেই করে না চীন। মঙ্গলবার চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এই কথা জানিয়েছে। গতকাল পাল্টা বিবৃতি দিয়ে চীনের দাবি খারিজ করে ভারত জানিয়েছে, তারা ১৯৫৯ সালের চুক্তি তারা মানে না।
মঙ্গলবার চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন গ্লোবাল টাইমসকে বলেন, ‘বেআইনিভাবে লাদাখকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করেছে ভারত। একে মান্যতা দেয় না চিন। সামরিক নিয়ন্ত্রণের জন্য বিতর্কিত সীমান্ত এলাকায় যে কোনও নির্মাণেরও বিরোধিতা করে চীন।’ তিনি বলেন, ‘ভারত-চীন দু’পক্ষই আলোচনার মাধ্যমে ঠিক করেছে, পরিস্থিতিতে আরও জটিল করতে পারে, সীমান্ত এলাকায় এমন কোনও পদক্ষেপ কেউ করবে না।’ প্রসঙ্গত, ভারত সীমান্ত এলাকায় যে সড়ক তৈরি করছে, সে সম্পর্কেই এই প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়। পূর্ব লাদাখে উত্তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যে বেইজিংয়ের এ ধরনের মন্তব্য দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা আরও বাড়াবে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।
লাদাখ এবং অরুণাচল নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরেই ভারতের সঙ্গে চীনের সংঘাত চলছে। সম্প্রতি চীনের প্রশাসনকে উদ্ধৃত করে সেখানকার একটি সংবাদপত্র লিখেছে, ১৯৫৯ সালের চুক্তি অনুযায়ী চীন লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা চিহ্নিত করেছে। এবং সেই অনুযায়ী চীনের সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। ভারতের বক্তব্য, ১৯৫৯ সালের চুক্তি ভারত মানে না। ওই সময়েই ভারতের প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু সে কথা জানিয়ে দিয়েছিলেন। ভারতের বক্তব্য, ১৯৫৯ সালের চুক্তিতে স্পষ্ট ভাবে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা চিহ্নিত করা হয়নি। একটি আভাস দেওয়া হয়েছিল মাত্র। তার ভিত্তিতে বর্তমান সময়ে চীন সীমান্ত চিহ্নিত করতে পারে না। ভারতের দাবি, ১৯৫৯ সালের পরে আরো বহু ঘটনা ঘটে গিয়েছে। ভারত-চীন যুদ্ধ হয়ে গিয়েছে। একাধিক বৈঠক এবং চুক্তি হয়েছে। ফলে এখন ১৯৫৯ সালের চুক্তির কথা বলার কোনো অর্থ হয় না। ভারত ওই চুক্তিকে মানেও না।
২০০৩ সালে ভারত এবং চীনের মধ্যে আরেকটি চুক্তি হয়েছিল। তাতে ঠিক হয়েছিল, দুই দেশ আলোচনার মাধ্যমে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার একটি স্পষ্ট ধারণা তৈরি করবে। কিন্তু মঙ্গলবারের বিবৃতিতে ভারত জানিয়েছে, চীনের সঙ্গে সে কাজ করাও সম্ভব নয় কারণ, চীন ওই বিষয়ে যথেষ্ট উৎসাহী নয়। নিজেদের অবস্থান থেকে তারা এক চুলও সরতে রাজি নয়। ফলে ভারতও এ বিষয়ে আলোচনা করতে আর আগ্রহী নয়।
সম্প্রতি মস্কোয় ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে চীনের পররাষ্ট্র এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রীদের বৈঠক হয়েছে। সেখানে সাব্যস্ত হয়েছিল, বর্তমান সংঘাতময় পরিস্থিতি থেকে মুক্তি পেতে পাঁচটি বিষয়ে আলোচনা করা হবে। স্থির হয়েছিল, লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা থেকে দুই দেশই সেনা সরিয়ে নেবে। কিন্তু সেনা স্তরের বৈঠকে সে বিষয়ে ঐক্যমত্য হয়নি। হয়নি কারণ, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা নিয়েই দুই দেশের মধ্যে বিতর্ক রয়েছে। চীন যাকে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বলে মনে করে, ভারত তা মানে না। ফলে সেনা সরানো যায়নি। সেনা সূত্রের খবর, শীতের কথা মাথায় রেখে কোনও কোনও এলাকায় সেনা সামান্য বাড়ানো হয়েছে। ফলে লাদাখ সংকট এখনই কাটার কোনো সম্ভাবনা বিশেষজ্ঞরা দেখছেন না। সূত্র : ডন, ডয়চে ভেলে।



 

Show all comments
  • abul kalam ১ অক্টোবর, ২০২০, ৯:৫৫ এএম says : 0
    ভারত দখলী এলাকা ছেড়ে দিলেই শান্তি হবে
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত

১৫ অক্টোবর, ২০২০
১৫ অক্টোবর, ২০২০
১৪ অক্টোবর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ