Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ০৫ ভাদ্র ১৪২৬, ১৮ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

ইরাক ও সিরিয়ায় সামরিক বিজয়ের অর্থ ইসলামিক স্টেটের শেষ নয় : মার্কিন জেনারেল

প্রকাশের সময় : ১২ আগস্ট, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : মার্কিন সামরিক কর্মকর্তারা বলছেন, ইরাকি বাহিনী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) কাছ থেকে মসুল নগরী পুনর্দখল করতে সক্ষম, তবে সে বিজয়ের অর্থ আইএসকে স্থায়ী পরাজয় নয়। পেন্টাগন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে যে এ গ্রুপটি প্রকৃত বিদ্রোহীবাহিনীতে পরিণত হতে পারে। খবর আরটি।  
জয়েন্ট টাস্ক ফোর্স অপারেশন ইনহারেন্ট রিজলভ-এর কমান্ডার সেনাবাহিনীর লে. জেনারেল সিন ম্যাকফারল্যান্ড বুধবার বলেন, ইরাক ও সিরিয়ায় সামরিক বিজয় অবশ্যই দায়েশের (আইএসের আরবি নাম) শেষ নয়। আমরা ধারণা করতে পারি যে এর পরিণতিতে শত্রুরা মারাত্মক হামলা চালাতে সক্ষম একটি প্রকৃত বিদ্রোহীবাহিনী ও সন্ত্রাসী সংগঠনে রূপান্তরিত হবে।
এ সপ্তাহে মার্কিন সামরিকবাহিনী ইরাকে আইএসের বিরুদ্ধে হামলার বিশদ বিবরণ দিয়ে বলেন, তারা সোমবার আইএসের এক বিরাট কৌশলগত ইউনিটের উপর আঘাত হানে। এতে আইএসের ৩টি যান, আইএসের একটি মর্টার ব্যবস্থা, আইএসের সমাবেশ এলাকা ধ্বংস এবং এলাকায় আইএসের প্রবেশ বন্ধ হয়েছে।
পেন্টাগন বুধবার ঘোষণা করে যে আইএসের একটি কৌশলগত ইউনিটের উপর আরেকটি বিমান হামলা চালানো হয়েছে  ও  এতে মসুলের কাছে  তাদের আরেকটি যান ধ্বংস হয়েছে।
২০১৪ সালের জুনে ইরাকের দ্বিতীয় বৃহত্তম নগরী মসুল আইএসের নিয়ন্ত্রণে আসে। এ সময় হাজার হাজার ইরাকি সৈন্য পালিয়ে যায়। পরে ইরাক স্বীকার করে যে আইএস আইএসের ২৩০০ হামভিসহ বিপুল পরিমাণ যুক্তরাষ্ট্র নির্মিত অস্ত্র দখল করেছে। দু’বছর পরও এখন পর্যন্ত মসুল জিহাদিদের শক্তঘাঁটি হিসেবে রয়েছে। তবে পেন্টাগনের দৃঢ় বিশ্বাস যে তা আর বেশীদিন নয়।
ম্যাকফারল্যান্ড বলেন, আমরা যত দ্রুত পারি মসুল পুনর্দখলের চেষ্টা করতে যাচ্ছি। তবে তিনি সঠিক সময়সীমা জানাতে অস্বীকার করেন।
ইরাক সরকার তাৎপর্যপূর্ণ মার্কিন পরামর্শ ও সম্মতি সাহায্য নিয়ে মসুল পুনর্দখলে বড় রকমের অভিযানের প্রস্তুতি নিচ্ছে।
ম্যাকফারল্যান্ড বলেন, যুক্তরাষ্ট্র পুলিশ নিয়োগ ও প্রশিক্ষণের দিকে গুরুত্ব আরোপ করেছে যা কিনা মসুল পুনর্দখলের পর ইরাকিবাহিনীকে দখল ধরে রাখায় সক্ষম করবে। তিনি বলেন, এসব লোকেরা দখল ধরে রাখতে গুরুত্বপূর্ণ হবে। এ মিশনের জন্য যথেষ্ট পরিমাণ অতিরিক্ত বাহিনীকে প্রশিক্ষণ দেয়ার পরিকল্পনা আমাদের রয়েছে।  
গত জুলাইতে যুক্তরাষ্ট্র আইএসের বিরুদ্ধে যুদ্ধে ইরাকি সশস্ত্র বাহিনীকে সাহায্য করতে ৫শ’ অতিরিক্ত মার্কিন সৈন্য প্রেরণের কথা ঘোষণা করে।



 

Show all comments
  • রাকিব ১২ আগস্ট, ২০১৬, ২:০৩ পিএম says : 1
    এরাই মধ্যপ্রাচ্যটাকে অশান্ত করে তুলছে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ