Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১২ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

কারাবাখে আজারবাইজানের পতাকা

আর্মেনিয়া-আজারবাইজান সংঘর্ষ তীব্র আকার ধারণ করেছে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৫ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০৭ এএম

আজারবাইজানের সেনাবাহিনী রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে শত্রæদের হাত থেকে নাগার্নো কারাবাখের টের্টার জেলার তালিশ গ্রাম, জাব্রাইল জেলার মেহদিলি, চক্সিরলি, আশাগি ম্যারালিয়ান, শেবি, গাইজাগ ও ফিজুলি জেলার আশাগি আবদুররহমানিয়ালি গ্রাম মুক্ত করেছে বলে দাবি করেছে। টানা এক সপ্তাহের সংঘর্ষের পর আর্মেনিয়ার দখল থেকে মাদাগিজ শহরের পর নিজেদের আরো সাতটি এলাকা মুক্ত করেছে আজারবাইজানের সেনাবাহিনী। শনিবার আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম অ্যালিয়েভ এই ঘোষণা দেন। দক্ষিণ ককেশাসের বিরোধপ‚র্ণ এলাকা নগরনো-কারাবাখকে কেন্দ্র করে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে কয়েক দিন ধরে তীব্র লড়াই চলছে। এই অঞ্চল নিয়ে দুটি দেশের মধ্যে এর আগেও থেকে থেকে উত্তেজনা তৈরি হয়েছে, সামরিক সংঘাতও হয়েছে, কিন্তু সেগুলো সবই ছিল সীমিত পরিসরে। এর আগে প্রেসিডেন্ট অ্যালিয়েভ ঘোষণা করেছিলেন যে, (শত্রæদের হাত থেকে মুক্ত করে) মাদাগিজ শহরে পতাকা উত্তোলন করেছে আজারবাইজানের সেনারা। টুইটারে তিনি লেখেন, আজ আজারবাইজানের সেনাবাহিনী মাদাগিজের ওপরে আমাদের পতাকা উত্তোলন করেছে। মাদাগিজ এখন আমাদের। গত ২৭ সেপ্টেম্বর নাগার্নো-কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে ফের সংঘর্ষে জড়ায় আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজানের সশস্ত্র বাহিনী। এদিকে আর্মেনিয়া জানিয়েছে, তাদের আরো ৫১ জন সেনা নিহত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশটির মোট ২০৭ জন সেনা নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। ডয়চে ভেলের খবরে বলা হয়, যুদ্ধবিরতির আহŸান উপেক্ষা করে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান। বাড়ছে হতাহতের সংখ্যা। হামলা নিয়ে দুই পক্ষের পালটা দাবিতে সংকট আরো বাড়ছে। সপ্তাহ পেরুতে চললেও বিতর্কিত নাগার্নো-কারাবাখ নিয়ে আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যে লড়াই অব্যাহত রয়েছে। এরইমধ্যে ২৩০ জনের বেশি প্রাণ হারিয়েছেন। রোববার আজারবাইজান তাদের দ্বিতীয় বৃহৎ শহর গানজাতে আর্মেনিয়ার সেনাবাহিনী হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করেছে। পাশপাশি নগরনো-কারাবাখের সীমান্তবর্তী তাদের আরো দুটি শহরে গোলা বর্ষণের অভিযোগ করেছেন আজেরি প্রতিরক্ষামন্ত্রী। এতে দুই দেশের যুদ্ধ পরিস্থিতি আরো খারাপ দিকে মোড় নেয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। আজারবাইজানের এই দাবি অস্বীকার করেছে আর্মেনিয়া। তবে নাগার্নো-কারাবাখে তাদের সমর্থিত আর্মেনিয়ানদের প্রধান আরাইক হারুতিউনইয়ান গানজা শহরেতে একটি বিমান ঘাঁটিতে হামলার কথা স্বীকার করেছেন। আজারবাইজানের সামরিক বাহিনী নাগার্নো-কারাবাখের প্রধান শহর স্টেপানকার্টে বেসামরিক নাগরিকদের লক্ষ্য করে রকেট হামলা চালিয়েছে বলে পালটা অভিযোগ করেন তিনি। এর আগে বিতর্কিত অঞ্চলটির একটি শহর ও সাতটি গ্রাম দখলে নেয়ার দাবি করে আজারবাইজন। অন্যদিকে নাগার্নো-কারাবাখে বসবাসরত আর্মেনিয়দের সুরক্ষায় সব ধরনের উপায় ব্যবহার করা হবে বলে জানিয়েছে আর্মেনিয়া। আজারবাইজানের তিনটি বিমান ভ‚পাতিত করার দাবিও করেছেন দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সুশান স্টেপানিয়ান, যদিও এই তথ্য অস্বীকার করেছে বাকু। এদিকে যুদ্ধবিরতির জন্য ফ্রান্স মধ্যস্থতার উদ্যোগ নিলেও তাতে কাজ হয়নি। দুই পক্ষই লড়াই চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেছে। বিতর্কিত অঞ্চল নগরনো-কারাবাখ নিয়ে গত রোববার দুই প্রতিবেশি রাষ্ট্রের মধ্যে সংঘাত ছড়িয়ে পড়ে। সোভিয়েত ইউনিয়ন পতনের পর থেকেই এই অঞ্চলে দুই দেশের বিরোধ চলছে। ১৯৯০ এর দশকে আর্মেনিয়ান নৃগোষ্ঠী আজারবাইজানের কাছ থেকে কারাবাখ দখল করে। এ নিয়ে সংঘাত ছড়িয়ে পড়ে সেসময়ই। শুরু হয় যুদ্ধ, যাতে প্রাণ হারিয়েছেন ৩০ হাজার মানুষ। ১৯৯৪ সালে দুই পক্ষের মধ্য যুদ্ধবিরতি চুক্তিতে সরাসরি সংঘাতের ইতি ঘটলেও এ নিয়ে দুইদেশের বিবাদ অব্যাহত ছিল। নিজেদের অঞ্চল পুনরায় দখলে বেশ কয়েকবারই হুমকি দিয়েছে আজারবাইজান। গত রোববার নতুন করে শুরু হওয়া সংঘাতে তুরস্ক ও রাশিয়ার মতো আঞ্চলিক শক্তি জড়িয়ে পড়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। এরইমধ্যে তুরস্ক সরাসরি আজারবাইজানের পক্ষ নিয়েছে। ডেইলি সাবাহ, ডয়চে ভেলে।

 



 

Show all comments
  • শহীদি কাফেলার সৈনিক ৫ অক্টোবর, ২০২০, ১:০২ এএম says : 0
    মামু এই বার ঠেলা বোঝো। ইজরাইল রাশিয়ার সাথে হাত মিলিয়ে অনেক তো। লাফাইছ। এখন বোঝো ঠেলা। এখন থেকে এভাবেই মুসলিম নেতারা। একে একে মুক্ত করবে। পৃথিবীর সমস্ত নিষ্পেষিত-নির্যাতিত জায়গাগু্লো।
    Total Reply(0) Reply
  • Jobayer Mahmud ৫ অক্টোবর, ২০২০, ১:০৩ এএম says : 0
    আজারবাইজান এর জয় হোক। নিজেদের ভুখন্ড পুনরুদ্ধারের অধিকার আজারবাইজানের আছে। আর্মেনিয়া যখন অবৈধভাবে আজারবাইজান এর জমি দখল করেছিলো তখন মিডিয়া কোথায় ছিলো ।
    Total Reply(0) Reply
  • Robin Ahmed ৫ অক্টোবর, ২০২০, ১:০৩ এএম says : 0
    কিসের সমঝোতা। নিজের ভূখণ্ড রক্ষার অধিকার সব দেশের ই আছে। আজারবাইজান সেটাই করছে যেটা তার করা উচিত। দীর্ঘ ৩০ বছর কোথায় ছিল তারা যারা আজকে সমঝোতার মিথ্যা বুলি আওড়াচ্ছে।।।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Obaidur ৫ অক্টোবর, ২০২০, ১:০৪ এএম says : 0
    মাশাল্লাহ এগিয়ে যাও আজারবাই জান ৷ দোয়া করি তোমাদের জমি তোমরা দখল কর ৷
    Total Reply(0) Reply
  • MD Kamrul Hasan ৫ অক্টোবর, ২০২০, ১:০৪ এএম says : 0
    শহীদ তো তাদেরকে বলা হয় যারা জিবন দিয়ে নিজেদের অধিকার আদায় করে। গাজী তো তাদেরকে বলা হয় যারা জিবন পনে নিজেদের অধিকার আদায় করে ফিরে। সুতরাং ভয় নেই আজারবাইজান।
    Total Reply(0) Reply
  • Imranul Feroj ৫ অক্টোবর, ২০২০, ১:০৪ এএম says : 0
    বিশ্ব মুসলিম নেতা সুলতান এরদোয়ানের নেতৃত্বে মহান আল্লাহ তাআলা মাজলুমানদের হারানো ভুমি এবং মাজলুমানদের বিজয় দান করবেন ইনশাআল্লাহ
    Total Reply(0) Reply
  • Shafik Talukdar Shaaon ৫ অক্টোবর, ২০২০, ১:০৫ এএম says : 0
    আজারবাইজান তাদের ভূখন্ড দখলের জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করবে এটাই সাভাবিক। প্রত্যাকটা মানুষ তার ন্যায্য জন্য জীবন বিসর্জন দেয়। আজারবাইজান তাদের ন্যায্যের জন্য যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার আহবান রইলো। আর দোয়া রইলো আল্লাহ আপনাদের সহায়ক হোক
    Total Reply(0) Reply
  • Adnan Kabir ৫ অক্টোবর, ২০২০, ১:০৫ এএম says : 0
    আমাদের দেশে এমন লক্ষ লক্ষ মানুষ আছে,যারা চায় ইন্ডিয়া আর বাংলাদেশের এমন যুদ্ধ হোক। অবশ্য যারা চায়,এরা কেও বর্ডার এরিয়ার লোক না।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammad Faisal Bin Malek ৫ অক্টোবর, ২০২০, ১:০৫ এএম says : 0
    আজারবাইজান তাদের ভূমি তারা ফিরে পেতে মরিয়া, ভূমি না পাওয়া পর্যন্ত, যুদ্ধ চলমান থাকিবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Md.Murad Hossain ৫ অক্টোবর, ২০২০, ৬:৫৬ পিএম says : 0
    আজারবাইজান তাদের ভূখন্ড দখলের জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করবে এটাই সাভাবিক। প্রত্যাকটা মানুষ তার ন্যায্য জন্য জীবন বিসর্জন দেয়। আজারবাইজান তাদের ন্যায্যের জন্য যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার আহবান রইলো। আর দোয়া রইলো আল্লাহ আপনাদের সহায়ক হোক
    Total Reply(0) Reply
  • Md. Rafiquzzaman ৭ অক্টোবর, ২০২০, ১০:৫৭ এএম says : 0
    In- Sha- Allah ,Azarbizan could be free her Land by war.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আর্মেনিয়া-আজারবাইজান


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ