Inqilab Logo

রোববার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২২ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

মিথ্যা মামলা করতে এসে জেলে

কুড়িগ্রাম জেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ১৩ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০০ এএম

কুড়িগ্রামের আদালতে হত্যা চেষ্টার মিথ্যা মামলা করতে এসে আদালতকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা ও প্রতারণার অভিযোগে বাদীকেই জেল হাজতে পাঠিয়েছেন বিচারক। গত রোববার কুড়িগ্রাম চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. সেফাতুল্লাহ এ আদেশ দেন। একইসঙ্গে ভুরুঙ্গামারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ছাড়পত্র আদালতে প্রদান করায় ওই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসককে আদালতে হাজির হয়ে ব্যাখ্যা প্রদানের নির্দেশ প্রদান করা হয়। আদালত সূত্র জানা গেছে, ভুরুঙ্গামারী উপজেলার উত্তর বলদিয়া গ্রামের শহিদুল ইসলাম জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের বরাত দিয়ে একই গ্রামের ফরহাদ হোসেন (২৩), নয়ন মিয়া (২১), শমসের আলী (৫২), ফরিদুল ইসলাম (২৫) ও তাইজুল ইসলামের নামে আদালতে নালিশি দরখাস্ত করেন। ২১ সেপ্টেম্বরের ঘটনার বিবরণ দিয়ে ওই পাঁচ জনের নামে তাকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ এনে তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা ও স্বাক্ষী তলবের আবেদন করেন শহিদুল। আবেদনের সঙ্গে তিনি ভুরুঙ্গামারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা গ্রহণের কাগজপত্র দাখিল করেন।
এ সময় আদালতে উপস্থিত শহিদুলের মাথায় ব্যান্ডেজ ছিল এবং ব্যান্ডেজে মেডিসিনের চিহ্ন ছিল। কিন্তু আদালত কক্ষে বাদী শহিদুলের পান চিবানো ও ভাবভঙ্গিমা দেখে বিচারকের সন্দেহ হলে তিনি (বিচারক) বাদীর আইনজীবীকে ব্যান্ডেজ খুলে জখম দেখতে চান এবং গুরুতর জখম হলে আবেদন অনুযায়ী আদেশের আশ্বাস দেন। এ সময় শহিদুলের মাথার ব্যান্ডেজ খোলা হলে তার মাথায় কোনও জখমের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। পরে আদালত উষ্মা প্রকাশ করে বাদীর আবেদন খারিজ করেন এবং আদালতকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা ও প্রতারণার অভিযোগে শহিদুলকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।
একইসঙ্গে মামলা করতে আসা শহিদুল ইসলামের কোনও ইনজুরি না থাকা সত্তে¡ও আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ভুরুঙ্গামারী থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর স্বাক্ষরিত ছাড়পত্র কিভাবে শহিদুল ইসলাম বরাবর ইসস্যু করা হলো সে বিষে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসককে আগামী ২৫ অক্টোবর হাজির হয়ে লিখিত ব্যাখ্যা প্রদানের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।
এ ব্যাপারে শহিদুল ইসলামের আইনজীবী মাকসুদা আকতার বেবির মন্তব্য জানতে চাইলে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মিথ্যা-মামলা
আরও পড়ুন