Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

নাটকীয়ভাবে বেড়েছে প্রাকৃতিক দুর্যোগ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৪ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০২ এএম

গত ২০ বছরে চরম আবহাওয়ার কারণে সংঘটিত বিপর্যয়ের ঘটনা নাটকীয়ভাবে বেড়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। গত সোমবার সংস্থাটি জানায়, গত দুই দশকে বিশ্বব্যাপী চরম আবহাওয়ার কারণে সংঘটিত দুর্যোগে মানুষের জীবন ও অর্থনৈতিক মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা আরও বাড়তে পারে। আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবসের একদিন আগে জাতিসংঘ থেকে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আগামী দশকে সবচেয়ে বড় হুমকি হিসেবে দেখা দেবে তাপপ্রবাহ ও খরা। আবহাওয়াকে উত্তপ্ত করে তোলে এমন গ্যাসের ব্যবহার বাড়ার কারণেই তাপমাত্রা বাড়তে থাকবে। জাতিসংঘ জানায়, ২০০০ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি প্রাকৃতিক দুর্যোগের শিকার ১০টি দেশের মধ্যে আটটির অবস্থান এশিয়াতে। সবচেয়ে বেশি প্রাকৃতিক দুর্যোগ ঘটেছে চীনে ৫৭৭টি, যুক্তরাষ্ট্রে ৪৬৭টি, ভারতে ৩২১টি, ফিলিপাইনে ৩০৪টি ও ইন্দোনেশিয়ায় ২৭৮টি। ২০০০ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত পৃথিবীতে মোট সাত হাজার ৩৪৮টি বড় ধরনের প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ঘটনা রেকর্ড করা হয়েছে। এসব দুর্যোগে প্রাণ হারিয়েছেন ১২ লাখ ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষ, ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন প্রায় ৪২০ কোটি মানুষ। বিগত দুই দশকে এসব দুর্যোগে প্রায় দুই লাখ ৯৭ হাজার কোটি ডলার অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়েছে। বড় আকারের ক্ষয়ক্ষতির জন্য দায়ী দুর্যোগের মধ্যে খরা, বন্যা, ভ‚মিকম্প, সুনামি, দাবানল ও তাপমাত্রার চরম বৃদ্ধিকে চিহ্নিত করেছে জাতিসংঘ। দুর্যোগ ঝুঁকি প্রশমন বিষয়ক জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ প্রতিনিধি মামি মিজোতুরি এক ব্রিফিংয়ে বলেন, ‘ভালো খবর হলো, এসব দুর্যোগে অনেক মানুষের জীবন বাঁচানো গেছে। কিন্তু, খারাপ খবর হচ্ছে, জলবায়ু জরুরি পরিস্থিতির দিনদিন আরও মারাত্মক হচ্ছে। ফলে, আরও বেশি মানুষ ক্ষতির মুখে পড়ছে।’ আগাম সতর্কতা ব্যবস্থা ও দুর্যোগের ঝুঁকি প্রশমনের জন্য কৌশল প্রণয়নে বিনিয়োগ করতে সরকারগুলোর প্রতি আহŸান জানান তিনি।

বেলজিয়ামের লুভেন বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগের এপিডেমিওলজি সম্পর্কিত গবেষণা কেন্দ্রের দেবরতী গুহ-সাপির বলেছেন, ‘যদি চরম আবহাওয়ার ঘটনাগুলো এ হারে বাড়তে থাকে এবং পরবর্তী ২০ বছর পর্যন্ত বিপর্যয়গুলো ঘটতেই থাকে, তবে মানবজাতির ভবিষ্যৎ সত্যই খুব দুর্বল হয়ে পড়বে।’ তিনি বলেন, ‘আগামী ১০ বছরে আমাদের, বিশেষত দরিদ্র দেশগুলোর সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হবে তাপদাহ।’

ইউরোপীয় ইউনিয়নের কোপারনিকাস জলবায়ু পরিবর্তন পরিষেবা জানায়, গত মাসে বিশ্বের উষ্ণতম সেপ্টেম্বর হিসেবে তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। সেপ্টেম্বরে সাইবেরিয়া, মধ্যপ্রাচ্য, দক্ষিণ আমেরিকা ও অস্ট্রেলিয়ায় তাপমাত্রা ছিল অস্বাভাবিক। সূত্র : রয়টার্স।

 



 

Show all comments
  • Jack Ali ১৪ অক্টোবর, ২০২০, ১১:১৯ এএম says : 0
    1. Natural disasters are punishment of Allah Subhanahu Wa Taala for those people who are either disbelievers or cross His limits; 2. Natural disasters are warning for the sinners; 3. Natural disasters are test for the believers. Now elaboration of all these points in the light of holy Quran and Hadith is as follows, 1. Natural disasters are punishment of Allah for those people who are either disbelievers or cross His limits: On different instances in the holy Quran Allah SWT has clarified that natural disasters result from His disobedience. Some of these instances are as follows: 1. And whatever of misfortune befalls you, it is because of what your hands have earned. And He pardons much. (Ash-Shura 42:30) 2. And if Allah were to punish men for that which they earned, He would not leave a moving (living) creature on the surface of the earth, but He gives them respite to an appointed term, and when their term comes, then verily, Allah is Ever All Seer of His slaves. (Fatir 35:45) 3. Evil (sins and disobedience of Allah etc.) has appeared on land and sea because of what the hands of men have earned (by oppression and evil deeds, etc.), that Allah may make them taste a part of that which they have done, in order that they may return (by repenting to Allah, and begging His Pardon). (Ar-Rum 30:41)
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জাতিসংঘ


আরও
আরও পড়ুন