Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

৬ গোলের রোমাঞ্চে জার্মানির হোঁচট

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০২ এএম

বাসেল থেকে কোলন, ম্যাচের চিত্রনাট্যেও এলো বদল। গোল উৎসবে জমে উঠল লড়াই। শুরুতে নিষ্প্রাণ খেলে দুই গোল হজম করল জার্মানি। ঘুরে দাঁড়িয়ে সমতা টানার পরক্ষণে গোল খেল আবারও। সে যাত্রায়ও গোল শোধ করে দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তনের আশা জাগিয়েছিল সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। তবে, গোছালো ফুটবল খেলা সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে শেষ পর্যন্ত জয়ের দেখা পায়নি তারা। উয়েফা নেশন্স লিগে গতপরশু রাতে ‘এ’ লিগের ৪ নম্বর গ্রুপে ছয় গোলের রোমাঞ্চ ছড়ানো ম্যাচটি ৩-৩ ড্র হয়েছে। অবশ্য দুবার পিছিয়ে পড়ার পর ড্রয়ে মাঠ ছাড়তে পারাটাও জোয়াকিম লোর জন্য কম স্বস্তির নয়। প্রথম পর্বে বাসেলে দুই দলের লড়াই ১-১ ড্রয়ে শেষ হয়েছিল।
আগের ম্যাচে স্পেনের কাছে হেরে আসা সুইজারল্যান্ড পঞ্চম মিনিটে প্রথম সুযোগেই এগিয়ে যায়। কর্নারে রেমো ফ্রয়লার হেড করার পর আরেক হেডে জাল খুঁজে নেন মারিও গাভরানোভিচ। ২৬তম মিনিটে জার্মানি দ্বিতীয় গোল হজম করে নিজেদের ভুলে। মাঝমাঠে টনি ক্রুস বল হারানোর পর জেরদান শাচিরি তা বাড়ান সেফেরোভিচকে। ২৮ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ডের ক্রস আলতো টোকায় পোস্ট ছেড়ে বেরিয়ে আসা নয়ারের মাথার ওপর দিয়ে জালে জড়িয়ে দেন ফ্রয়লার। দুই গোল হজমের পর ২৮তম মিনিটে ঘুরে দাঁড়ানো গোলের দেখা পায় জার্মানি। কাই হাভার্টজ থেকে পাওয়া বল নিখুঁত কোনাকুনি শটে লক্ষ্যে পৌঁছে দেন টিমো ভেরনার। প্রথমার্ধের শেষ দিকে ক্রুসের শট বাইরের জাল কাঁপায়।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে জার্মানির হাভার্টজের শট পোস্টে লেগে ফেরার পর ৫৫তম মিনিটে সমতা টানে ২০১৪ সালের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। ডান দিক দিয়ে ডি বক্সে ঢুকে কোনাকুটি শটে লক্ষ্যভেদ করেন হাভার্টজ। পরের মিনিটে ফের এগিয়ে যায় সুইসরা। ছোট ডি-বক্সের ভেতর থেকে সেফেরোভিচের দুটি প্রচেষ্টা ফেরালেও পুরোপুরি বিপদমুক্ত করতে পারেননি নয়ার। বল পেয়ে যান গাভরানোভিচ। বুলেট গতির শটে নয়ারকে পরাস্ত করেন দিনামো জাগরেভের এই ফরোয়ার্ড। চার মিনিট পরই ভেরনারের ব্যাক পাসে সের্গে জিনাব্রির বুদ্ধিদ্বীপ্ত ব্যাক হিল দূরের পোস্ট দিয়ে ঠিকানা খুঁজে নেয়। আবারও সমতার স্বস্তি ফিরে জার্মান শিবিরে। টানা দুই ড্রয়ের পর আগের ম্যাচে ইউক্রেনের বিপক্ষে জেতা জার্মানি আসরে এ নিয়ে তিন ম্যাচে পয়েন্ট খোয়াল। চার ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপে দ্বিতীয় স্থানে আছে তারা।
একই রাতে ‘এ’ লিগের অপর ম্যাচে প্রতিপক্ষের ওপর চাপ ধরে রেখে ভালো কিছু সুযোগ তৈরি করলেও কাক্সিক্ষত গোলের দেখা পেল না স্পেন। সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের হতবাক করে পার্থক্য গড়ে দিলেন ভিক্তর তিশানকভ। অসাধারণ এক জয়ের আনন্দে মাঠ ছাড়ল আন্দ্রে শেভচেঙ্কোর দল। কিয়েভে ম্যাচটি ১-০ গোলে জিতেছে স্বাগতিকরা। শেষ দিকে ইউক্রেনের জয়সূচক গোলটি করেন তিশানকভ।
ম্যাচে ৭০ শতাংশের বেশি সময় বল দখলে রেখে গোলের উদ্দেশে মোট ২১টি শট নেয় স্পেন, এর আটটিই ছিল লক্ষ্যে। বিপরীতে পুরো ম্যাচে ইউক্রেনের নেওয়া দুটি শটের একটি ছিল লক্ষ্যে এবং সেটাতেই ৩ পয়েন্ট নিশ্চিত।
দুই জয় ও এক ড্রয়ের পর আসরে প্রথম হারের স্বাদ পেল সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। ইউক্রেনের এটি দ্বিতীয় জয়। আসরে প্রথম দেখায় গত মাসে ঘরের মাঠে ইউক্রেনকে ৪-০ গোলে হারিয়েছিল স্প্যানিশরা। চার ম্যাচে দুই জয় ও এক হারে ৭ পয়েন্ট নিয়ে এখনও শীর্ষে আছে স্পেন। জার্মানির সমান ৬ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে ইউক্রেন। সুইজারল্যান্ডের পয়েন্ট ২



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রোমাঞ্চ-জার্মানি
আরও পড়ুন