Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১১ মাঘ ১৪২৭, ১১ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

থাইল্যান্ডে জরুরি অবস্থা ঘোষণা, গণজমায়েত নিষিদ্ধ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ অক্টোবর, ২০২০, ১০:২৫ এএম

প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুথ চান-ওচারওর পদত্যাগ দাবিতে বিক্ষোভ-সমাবেশ ঠেকাতে থাইল্যান্ডের জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে দেশটির সরকার। একই সঙ্গে সব ধরনের জনসমাগমও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। নিয়ন্ত্রণ আরোপ করা হয়েছে দেশটির গণমাধ্যমের কণ্ঠও। মূলত ব্যাংককে সরকার বিরোধী বিক্ষোভ প্রতিহত করতেই এ ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।
টেলিভিশনে এক ঘোষণায় পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ব্যাংককে বেআইনিভাবে অনেক লোকজনকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে এবং বিশাল জনসমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে।
ওই ঘোষণায় বলা হয়েছে, শান্তি ও শৃঙ্খলা বজায় রাখতে জরুরি অবস্থা জারির প্রয়োজন ছিল। থাই রাজা মহা ভাজিরালংকর্নের দেশে ফেরাকে কেন্দ্র করেই সরকারবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে থাইল্যান্ড।
গতকাল বুধবার ব্যাংককে থাই রাজার গাড়িবহরকে উদ্দেশ্য করে বিক্ষোভ শুরু করে হাজার হাজার মানুষ। বিরোধীরা থাইল্যান্ডের রাজনৈতিক সংস্কারের পাশাপাশি বছরের বেশিরভাগ সময় বিদেশে থাকা রাজা ভাজিরালংকর্নের ক্ষমতা কমানোর দাবি জানিয়েছেন। এছাড়া প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুথ চান-ওচারও পদত্যাগ চান তারা।
বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, সমাবেশের ডাক দেওয়া তিনজনকে আটক করেছে দেশটির পুলিশ। তবে এবিষয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
থাইল্যান্ডের রাজধানীতে সংগঠিত বিক্ষোভের মধ্যে গত সপ্তাহের বিক্ষোভ টিই ছিল সবচেয়ে বড়। গত শনিবারের ওই বিক্ষোভে ১৮ হাজার মানুষ যোগ দিয়েছিলেন বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে এ সংখ্যা আরও বেশি। এরপর থেকে বিক্ষোভ আরও ছড়িয়ে পড়ে। বিক্ষোভ থেকে রাজক্ষমতা পুনর্গঠনের দাবি জানানো হচ্ছে যা থাইল্যান্ডে স্পর্শকাতর ঘটনা বিষয় হিসেবে দেখা হয়। থাইল্যান্ডের আইন অনুযায়ী রাজতন্ত্রের সমালোচনার শাস্তিযোগ্য অপরাধ।
আজ বৃহস্পতিবার সকালে জরুরি অবস্থা কার্যকর হওয়ার পরপরই থাই দাঙ্গা পুলিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বাইরে থেকে বিক্ষোভকারীদের সরিয়ে দেয়।
গত জুলাই থেকে থাইল্যান্ডের ছাত্ররা বিক্ষোভ করে এলেও গত সপ্তাহে বড় জনসমাগম করে। আবারও বড় ধরনের সমাবেশের ডাক দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা। সূত্র : বিবিসি



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: থাইল্যান্ড


আরও
আরও পড়ুন