Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ ২০১৯, ০৭ চৈত্র ১৪২৫, ১৩ রজব ১৪৪০ হিজরী।

ফিলিস্তিনে আজানের পরিবর্তে সঙ্গীত ইসলামবিরোধী ষড়যন্ত্র-মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী

প্রকাশের সময় : ১৪ আগস্ট, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী এক বিবৃতিতে শুক্রবার ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরের কয়েকটি মসজিদে আজানের পরিবর্তে সঙ্গীত বাজানোর ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, এ ধরনের ন্যক্কারজনক ঘটনা ইসলামবিরোধী বহুমুখী ষড়যন্ত্রের ইতিহাসে আরেকটি সংযোজন। মুসল্লিরা যখন নামাজের জন্য মুয়াজ্জিনের কণ্ঠে আজানের ধ্বনি শুনে আকুল আবেগে মসজিদের পানে ছুটে যাওয়ার অপেক্ষায়, সে সময় মসজিদ থেকে ভেসে আসে মিশরের সুপরিচিত গায়ক উম্মে কুলসুমের গান। এতে বিস্ময়ে হতবাক হন মুসল্লিরা। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।
তিনি বলেন, ফিলিস্তিনের মসজিদ থেকে আজানের বদলে সঙ্গীতের আওয়াজ ভেসে আসায় মুসলমানরা বিস্ময়ে হতবাক, হতাশ ও ক্ষুব্ধ । তিনি বলেন, আজানের বদলে সঙ্গীত কি যান্ত্রিক ক্রুটি-বিচ্যুতি, না গোপন ষড়যন্ত্রের প্রকাশ? এটাই এখন প্রশ্ন। এই গান ইচ্ছাকৃতভাবে চালানো হয়েছে টেস্ট কেস হিসেবে মুসল্লিদের প্রতিক্রিয়া জানার জন্যে। স¤প্রচার সিস্টেমে ত্রæটির আজুহাত দাঁড় করিয়ে হয়ত এই ঘটনাকে আড়াল করার চেষ্টা করা হবে। তবে এটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। কেননা মসজিদে গানের ক্যাসেটই বা থাকবে কেন? তাছাড়া একটি মসজিদে নয়, একাধিক মসজিদ থেকেই আজানের বদলে গান ভেসে আসে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ