Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

কাশ্মীরি নেতা ফারুক আবদুল্লাকে ইডির জেরা, বিজেপি’র রাজনৈতিক প্রতিহিংসা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৯ অক্টোবর, ২০২০, ৭:০৫ পিএম

প্রায় এক দশকের পুরানো মামলার জের ধরে সোমবার জম্বু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাকে জেরা করল ভারতের এনফোর্সমেন্ট ডাইরেক্টরেট (ইডি)। জম্মু-কাশ্মীর ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের ৪৩ হাজার কোটিরও বেশি টাকার দুর্নীতির অভিযোগে ইতিমধ্যেই চার্জশিট পেশ করেছে সিবিআই। তার ভিত্তিতেই দীর্ঘক্ষণ জেরা করা হয় ফারুককে। তবে, হঠাৎ করে পুরানো একটি মামলা ও তার সাথে ফারুককে জড়ানোর জন্য কেন্দ্র তথা বিজেপির বিরুদ্ধে ‘রাজনৈতিক প্রতিহিংসা’র অভিযোগ তুলেছে তার দল ন্যাশনাল কনফারেন্স (এনসি)।

২০০২ থেকে ২০১১ সালের মধ্যে জম্মু-কাশ্মীর ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের ৪৩ কোটি ৬৯ লাখ রুপির দুর্নীতির অভিযোগে মামলা দায়ের করে সিবিআই। তদন্তের সূত্রে জানা যায়, ২০০২ থেকে ২০১১ সালের মধ্যে উপত্যকার ক্রিকেটের উন্নয়নের জন্য কয়েক দফায় ওই টাকা দিয়েছিল বিসিসিআই। সেই টাকা খরচে অসঙ্গতির অভিযোগে এনসি সাংসদ ফারুক-সহ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের তৎকালীন ৩ কর্মকর্তা মির মনজুর গজনফার আলি, বশির আহমেদ মিসগর এবং গুলজার আহমেদ বেগের বিরুদ্ধে চার্জশিট পেশ করে সিবিআই। তার জেরেই সোমবার ইডি ফারুককে জিজ্ঞাসাবাদ করে। যদিও ফারুক নিজে বা ইডির পক্ষ থেকে জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়ে কোনও মন্তব্য করা হয়নি।

তবে অশীতিপর ফারুককে জিজ্ঞাসাবাদ নিয়ে কেন্দ্র তথা বিজেপির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছে এনসি। গত বছর ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপের আগের দিন ৪ আগস্ট শ্রীনগরের গুপকর রোডে আবদুল্লার বাড়িতে বিজেপি বাদে জম্মু-কাশ্মীরের প্রায় সব রাজনৈতিক দলের নেতানেত্রীরা একটি বৈঠক করেন। ওই বৈঠকেই ‘গুপকর জোট’-এ সই করেন ওই নেতানেত্রীরা। কিন্তু তার পরেই ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপ করে কেন্দ্র এবং উপত্যকার অধিকাংশ রাজনৈতিক নেতানেত্রীকে আটক করা হয়। এক বছর পরে তাদেরকে ধাপে ধাপে মুক্তি দেয়া হয়েছে। কয়েক দিন আগেই মুক্তি পেয়েছেন জম্মু কাশ্মীরের আরেক মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি। মুক্তির পরেই তারা ফের একজোট হয়ে ‘পিপলস অ্যালায়েন্স ফর গুপকর ডিক্লেয়ারেশন’ গঠন করেছেন। গত বছরের ৫ আগস্টের আগে উপত্যকার নাগরিকদের যে অধিকার ছিল, তা ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিতে তাঁরা এক ছাতার তলায় এসেছেন।

এনসি নেতাদের বক্তব্য, ‘গুপকর ঘোষণার পরেই চিঠি পাঠিয়েছে ইডি। জম্মু-কাশ্মীরে জনসাধারণের জোট গঠনের পর এটা পরিষ্কার রাজনৈতিক প্রতিহিংসা।’ দলের পক্ষ থেকে টুইট করে বলা হয়েছে, আমরা জানতাম এমন কিছু আসতে চলেছে। নতুন এই জোটের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক ভাবে লড়াই করতে পারছে না বলেই কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলিকে কাজে লাগাচ্ছে কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপি। সূত্র: এবিপি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন