Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

অদৃশ্য থাবায় বন্দি রমেক হাসপাতাল

বদলির ৪ মাসেও বুঝিয়ে দেয়া হয়নি দায়িত্ব

রংপুর থেকে স্টাফ রির্পোটার : | প্রকাশের সময় : ২১ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০০ এএম

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালকের পিএ কাম হিসাব রক্ষক উম্মে সুলতানা নওশীন বদলীর চার মাসেও দায়িত্ব বুঝিয়ে দেননি। ফলে হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকান্ড অনেকটাই স্থবির হয়ে পড়েছে।
জানা যায়, বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাতের মাফিয়া ডন বলে খ্যাত মোতাজ্জেরুল ইসলাম (মিঠুর) ভাতিজি উম্মে সুলতানা নওশীন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালকের একান্ত সহকারী হিসেবে কর্মরত থেকে পুরো হাসপাতালের টেন্ডার কোটেশনসহ সব কিছুই নিয়ন্ত্রণ করেন। বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় এই তথ্য ফাঁস হয়ে গেলে মাফিয়া ডন মিঠুর ভাতিজী নওশীনকে প্রায় ৪ মাস আগে লালমনিরহাটে ১০০ শয্যা হাসপাতালে বদলি করা হয়। মরিয়া হয়ে বদলি আদেশ স্থগিতের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে তিনি গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র আলমারিতে রেখে দরজায় তালা ঝুলিয়ে অবশেষে চলে যান। নিজ কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে লালমনিরহাটের নতুন কর্মস্থলে কাগজে-কলমে যোগদান করলেও তিনি রংপুরে বদলীর ব্যপারে তদবীর শুরু করেছেন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বার বার বলার পরেও তিনি এখনো কোন কাগজ বুঝিয়ে দেননি এবং তার রুমের তালা খুলে দেননি। ফলে হাসপাতালের পরিচালকসহ সব কর্মকর্তা নিজেদের অসহায়ত্ব প্রকাশ করে তালা মেরে রাখা কক্ষের দরজা খোলার সিদ্ধান্তই নিতে পারছেন না।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতের মাফিয়া ডন মোতাজ্জেরুল ইসলাম মিঠু এখনও বিদেশে থেকে হাসপাতালের বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ করছেন। তার দোসরদের অধিকাংশই এখনও হাসপাতালে বহাল তবিয়তে থেকে কল-কাঠি নাড়ছেন। তারই খুঁটির জোরে ভাতিজি নওশিনকে লালমনিরহাটে বদলী করা হলে তিনি তার নতুন কর্মস্থলে কাগজে-কলমে যোগদান করে সেখানে নিয়মিত অফিস করেন না। রংপুরে থেকেই তিনি পুনরায় বদলীর ব্যপারে তদবীর চালিয়ে যাচ্ছেন। আর তার দুর্নীতির প্রতিবাদকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের হুমকি দিয়ে তাদের বিরুদ্দে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে হয়রানির চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
এদিকে রমেক হাসপাতালের দায়িত্ব বুঝিয়ে না দেয়ায় হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকাÐ বিঘিœত হলেও অদৃশ্য কারনে নীরব ভ‚মিকা পালন করছেন সংশ্লিষ্ট কর্তপক্ষ। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মোতাজ্জেরুল ইসলাম মিঠু ওরফে মহি মিঠু বিদেশে থেকেই ভাতিজি নওশীনকে দিয়ে পুনরায় রমেক হাসপাতালে তার অবৈধ রাজত্ব কায়েমের চেষ্টা চালাচ্ছেন।
এ ব্যাপারে হাসপাতালের ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী সমিতির সভাপতি মশিউর রহমান পুনরায় রমেক হাসপাতালে মিঠুর রাজত্ব কায়েম করার চেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করে জানান, যারা নওশীনের দুর্নীতির প্রতিবাদ করছেন তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে হেনস্থা করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ডা. রুস্তম আলী বিষয়টি নিয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন